Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ , ৪ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.4/5 (30 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৫-০১-২০১৪

সিলেট নগর বিএনপিতে পদের লড়াই

সিলেট নগর বিএনপিতে পদের লড়াই

সিলেট, ০১ মে- সিলেট জেলা বিএনপি’র নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠনের পর থেকে মহানগর নেতাকর্মীদের মধ্যে চাঙ্গাভাব দেখা দিয়েছে। কেমন হচ্ছে মহানগর বিএনপির নতুন কমিটি, কারা আসছেন কমিটির মূল নেতৃত্বে এসব নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।

দীর্ঘদিন ধরেই সিলেট মহানগর বিএনপিতে বর্তমান সভাপতি এম এ হকের নেতৃত্বাধীন অংশ এবং সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেনের নেতৃত্বাধীন অপর অংশের পৃথক তৎপরতা চোখে পড়ার মতো।

তবে সাম্প্রতিককালে এই দু’টি ধারা থেকে কমপক্ষে পাঁচটি উপধারার সৃষ্টি হয়েছে। মহানগরের বর্তমান কমিটির সভাপতি এম এ হক ও তার অনুসারীরা চাচ্ছেন নিজ নিজ পদে বহাল থাকতে আর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও নগর বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীর অসুসারীরা চাচ্ছেন তৃণমূল নেতাকর্মীদের সমর্থন নিয়ে তাদের ‘পুরনো পদ’ নগর বিএনপির শীর্ষ পদটি পুনরুদ্ধার করতে।

মহানগরের বর্তমান সভাপতি এম এ হকের নেতৃত্বাধীন কমিটির বিরুদ্ধে প্রতিপক্ষের অভিযোগ ভেঙ্গে দেয়ার ৩ বছর হতে চললেও সিলেট মহানগরের ২৭টি ওয়ার্ডের কাউন্সিল করতে পারেনি তারা। এই ২৭ ওয়ার্ডের মধ্যে হাতেগোনা কয়েকটির শুধুমাত্র আহ্বায়কের নাম ঘোষণা করা হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন হয়নি। যে কারণে তৃণমূল নেতাকর্মীরা দারুনভাবে ক্ষুব্ধ রয়েছেন বর্তমান কমিটির উপর। নেতাকর্মীদের অনেকেই মনে করেন মহানগরের ওয়ার্ড কমিটি না থাকায় বারবার আন্দোলনের তাগিদ সত্ত্বেও জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। হক-পন্থীদের নেতৃত্বাধীন ২২ জনের কমিটির নেতা সাইফুল ইসলাম বাবুলের মৃত্যুর অনেকদিন অতিবাহিত হলেও তার স্থলে অপর কাউকে এখন পর্যন্ত অন্তর্ভুক্ত করতে পারেনি বর্তমান কমিটি।

এম এ হকসহ অন্যান্য গ্রুপের নেতাদের পদ পদবী থাকার পরও কেউ বিদেশে কেউবা সরকারের সঙ্গে আঁতাতের মাধ্যমে দায়সারাভাবে দায়িত্ব পালন করছেন বলেও অভিযোগ করেন দলটির তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। দলের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মতামত উপেক্ষা করে আত্মঘাতি সিদ্ধান্তে অনঢ় আছেন এমনও অভিযোগ রয়েছে প্রতিপক্ষের। তবে প্রতিপক্ষের এমন অভিযোগ মানতে নারাজ হক-পন্থী নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিটি। তারা তাদের সাফল্যের ফিরিস্তি তুলে ধরেন।

ডা. শাহরিয়ারের নেতৃত্বাধীন গ্রুপটি আন্দোলন সংগ্রামে মাঠে থাকলেও পদ পদবী না থাকায় তারা সঠিকভাবে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে পারছেন না বলে অভিযোগ শাহরিয়ার বলয়ের। অপরদিকে এম এ হকের নেতৃত্বাধীন গ্রুপ দায়সারাভাবে আন্দোলন করায় সিলেট থেকে কঠোর আন্দোলন করতে ব্যর্থ হয় সিলেট মহানগর বিএনপি।

অথচ পর্যবেক্ষকদের ধারণা সিলেট মহানগর বিএনপি একক অবস্থান থেকে আন্দোলন করলে নজর কাড়া আন্দোলন করা একেবারেই সহজ ছিলো। আর এ সকল ব্যর্থতার জন্য মহানগরের এক পক্ষ আরেক পক্ষকে শুধু দোষারোপ করে আসছেন।

সিলেট মহানগর বিএনপির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব বিরোধের কারণে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা মনে করেন এবারের মহানগর কমিটিতে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা না হলে আগামীতে আন্দোলন সংগ্রাম রচনা করা অনেকটা কঠিন হয়ে পড়বে। আর এসকল বিষয়কে সামনে রেখেই দলের পরিক্ষিত নেতাকর্মী সমন্বয়ে কমিটি গঠন করতে হবে।

মহানগর বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মীর সঙ্গে আলাপ করে যে ধারণা পাওয়া গেছে তা থেকে মনে হচ্ছে মহানগরের নতুন কমিটির সভাপতি কিংবা আহ্বায়ক হিসাবে পুরনো নেতাদের মধ্য থেকেই কেউ না কেউ মনোনিত হবেন। এক্ষেত্রে মহানগর বিএনপির বর্তমান সভাপতি এম এ হক, সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধূরী, মহানগরের সাবেক আহ্বায়ক ডা. শাহরিয়ার হোসেন ও যে কেউ এই পদে আসীন হতে পারেন।

সূত্র মতে, সম্প্রতি দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া জেলার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করার পর থেকে মহানগরের নেতাকর্মীদের মাঝে অনেকটা চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে। হক এবং তার অনুসারীরা চাচ্ছেন তাদের কাজের সফলতার দিকগুলো তুলে ধরে স্বপদে বহাল থাকতে। অন্যদিকে আরিফ ও শাহরিয়ারের অনুসারীরা চাচ্ছেন হকের নেতৃত্বাধীন কমিটির ব্যর্থতার ফিরিস্তি তুলে ধরে তাদেরকে কোণঠাসা করে দায়িত্বশীল পদগুলো দখলে নিতে।

দলটির মাঠ পর্যায়ের নেতারা মনে করেন, বর্তমান কমিটিকে পুনর্বহালের সম্ভাবনা নেই। সম্প্রতি জেলা বিএনপিকে ডেকে নিয়ে যেভাবে নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে, ঠিক সেভাবেই মহানগরের কমিটি হতে পারে। তবে মহানগরের অনেক নেতাই জানিয়েছেন কেন্দ্র থেকে সংগঠনকে চাঙ্গা করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় যে কোনো মুহুর্তে সিলেট মহানগর কমিটিকে পুনর্গঠন করে কার্যক্রমকে গতিশীল করা হতে পারে। আর যদি কেন্দ্র থেকে মহানগর কমিটিকে পুনর্গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়, তবে সেই কমিটিতে নগর বিএনপির বর্তমান সভাপতি এম এ হক, সাবেক সভাপতি আরিফুল হক চৌধুরী, সাবেক আহ্বায়ক ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরীকে শীর্ষ পদে রাখার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন বলেন, পর্যায়ক্রমে দলের প্রত্যেকটি ইউনিট কমিটিকে ঢেলে সাজানো হবে। সে মোতাবেক সিলেট মহানগর বিএনপিকেও পুনর্গঠন করা হবে। তবে কবে নাগাদ সিলেট মহানগর বিএনপির কমিটি পুনর্গঠন হচ্ছে তা এখনো কেন্দ্র থেকে জানানো হয়নি।

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে