Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২৫ মে, ২০১৯ , ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-২৮-২০১৪

নগ্নতার নন্দনতত্ত্বে স্বস্তিকার সাফল্য অসামান্য

নগ্নতার নন্দনতত্ত্বে স্বস্তিকার সাফল্য অসামান্য

কলকাতা, ২৮ এপ্রিল- বস্ত্রছাড়া অভিনয়ের দৃশ্যে যে কারণে অস্বস্তি হয়নি স্বস্তিকার তা হচ্ছে টেক ওয়ান। একেবারেই ব্যতিক্রম এবং নতুন করে টার্ন নেবার মতো স্ক্রিপ্ট পেয়েছেন বলে আর কোনো অস্বস্তিকেই প্রশ্রয় দেননি স্বস্তিকা। আর অভিনয়ের কেন্দ্রবিন্দু যখন তাকে ঘিরেই, চোখ বুজেই কবুল করে নেন তিনি। কোনো ন্যুড-ফ্যুডই হিসেবে আনেননি।

ফলাফলও দারুণ! রীতিমতো হইচই পড়ে গেছে টেক ওয়ান-এর দোয়েল মিত্রকে নিয়ে। পর্দার বাইরে আমরা যাকে চিনি স্বস্তিকা বলে।

টেক ওয়ান-এর আলোচনায় আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, ছবির খাতিরেই ন্যুড দৃশ্যে অভিনয় করেছেন দোয়েল মিত্র। সেই সম্পূর্ণ, সম্মুখ নগ্নতার শুট এমএমএস-এ ছড়িয়ে পড়ায় একজন অভিনেত্রীর কর্ম এবং ব্যক্তিজীবন কেমন করে বিক্ষোভের আলোড়নে উদ্ভাসিত হয়, তাই টেক ওয়ান-এর মূল বিষয়।

মিডিয়া থেকে সাধারণ মানুষের হাজার প্রশ্নকে উড়িয়ে দিয়ে মুখে কুলুপ এঁটে থাকেন দোয়েল মিত্র। ব্যস। কোনো মহিলার আচরণ পছন্দ না হলেই চিরাচরিত নিয়মে সমাজ যেমন তার দেহ নিয়ে টানাটানি করে, ঠিক তেমনই এ ছবিতেও ‘বেশ্যা’ বলে সমাজ দোয়েল মিত্রর নামে কুৎসা রটায়।

আর ছবির শেষে সেই মহিলাই যদি বিদেশ থেকে পুরস্কার আনতে পারে, তখন সেই একই বর্ণচোরা মানুষ তাকে মাথায় তুলে নাচে। সমাজের এই দু’মুখো চরিত্রকেই দোয়েল মিত্রর জীবন দিয়ে বলতে চেয়েছেন পরিচালক মৈনাক ভৌমিক।

এই বলার ভঙ্গিতে আছে তার আবেগের নিজস্বতা। ঈর্ষা, দ্বন্দ্ব, ভয়, ঘৃণা, মনখারাপ- দোয়েল মিত্রর এসব অনুভূতি খুব চমৎকারভাবে নানা ফর্মে মৈনাক তার ছবিতে সাজিয়েছেন।

দোয়েল মিত্র একলা। ধূমপানের ধোঁয়া আর বরফ জলের তরলপানে সে নিজের জীবনকে গোপনীয়তায় ঢেকে রেখেছে। আনন্দবাজারের ভাষায়, ছবিটা দেখতে দেখতে মনে হয় নিঃশব্দেরা যেমন করে মনকে ছুঁয়ে যায়, তেমন করে আর কেউ পারে না।

ত্রুটি-বিচ্যুতিহীন ছবি নির্মাণ একেবারেই অসম্ভব। অনেক সতর্কতার পরও ত্রুটি থেকেই যায়। এসব ত্রুটি-বিচ্যুতি পাশ কাটিয়ে এটা বলা যায়, মৈনাক ভৌমিক বাণিজ্যিক বাংলা ছবিতে নগ্নতার নন্দনতত্ত্বকে এক অসাধারণ আর্ট ফর্মের আঙ্গিকে তুলে ধরলেন। আর স্বস্তিকাও যে এখানে একশ পারসেন্ট দেওয়ার চেষ্টা করেছেন, তাতে সন্দেহ নেই।

আনন্দবাজার আরো লিখেছে, স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়ের লাবণ্য দিয়ে তৈরি ‘টেক ওয়ান’-এর শরীর ও মন। বসনহীন রঙিন দৃশ্য থেকে স্নেহ পাগল একলা মায়ের ভয়াবহ জীবন, কোথাও তাকে দেখে অস্বস্তি হয়নি।

আর এ কারণেই স্বস্তিতে ফিরেছেন স্বস্তিকা। স্বস্তিকার এ সাফল্য অসামান্য!

টলিউড

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে