Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ২২ জানুয়ারি, ২০২০ , ৮ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.4/5 (16 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২৩-২০১২

প্রতীকী ফাঁসি লাশ নিয়ে মিছিল, দুপুরে হরতাল রাতে প্রত্যাহার

প্রতীকী ফাঁসি লাশ নিয়ে মিছিল, দুপুরে হরতাল রাতে প্রত্যাহার
অব্যাহত দর পতনের প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ বিনিয়োগকারীরা প্রতীকী ফাঁসি ও লাশ নিয়ে মিছিল করে। পরে গতকাল দুপুরেই পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ আজ মতিঝিলে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েও রাতে প্রত্যাহার করে নেয়। গতকাল রাতেই পুলিশ প্রশাসনের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এ হরতাল প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদাত উল্লাহ ফিরোজ। তিনি জানান, পুলিশ প্রশাসনের অনুরোধ, হরতাল দেয়ার অভিযোগে আটক নেতাদের ছেড়ে দেয়ার আশ্বাস ও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে আজকের হরতাল প্রত্যাহার করা হয়েছে। এর আগে গতকাল দুপুরে সংগঠনটির সিনিয়র সহসভাপতি সেলিম চৌধুরী এ হরতালের ডাক দেন। এদিকে মতিঝিল এলাকায় হরতাল ঘোষণা করার অভিযোগে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের ৮ নেতাসহ প্রায় অর্ধশতাধিক বিনিয়োগকারীকে আটক করেছে পুলিশ।
অপরদিকে গতকাল ডিএসইতে অব্যাহত দরপতনে সূচক তলানিতে ৪ হাজার ৬০০ পয়েন্টে এসে ঠেকেছে। ২০১০ সালের ডিসেম্বরে পুঁজিবাজারে দরপতন শুরু হওয়ার পর এটাই ডিএসই সূচকের সর্বনিম্ন অবস্থান।
বিক্ষোভ: পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী গতকাল সকাল থেকে বিনিয়োগকারীরা বিক্ষোভের উদ্দেশে ডিএসইর সামনে জড়ো হতে থাকে। দরপতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন শুরু হলে বিনিয়োগকারীরা রাস্তায় নেমে আসে। বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের ব্যানারে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিক্ষোভ শুরু হয়। তারা ডিএসই সামনের সড়ক অবরোধ করে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। বিক্ষোভ চলাকালে তারা অর্থমন্ত্রীসহ দায়ীদের মৃত্যু কামনা করে গায়েবি জানাজা পালন করেন। পরে পুলিশ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে কফিনটি ছিনিয়ে নেয়। পরে তারা ঝাড়ু মিছিল বের করে। এ সময় তারা ডিএসই ভবনে বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউজে ঢুকে বিনিয়োগকারীদের বের করে প্রধান ফটকে তালা লাগিয়ে দেন। বিক্ষোভ চলাকালে বিনিয়োগকারীরা প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের দাবি জানান। তারা বলেন, আমরাতো আনেক আগেই লাশ হয়ে গেছি। আমাদের এখন পুলিশ, জেলের ভয় দেখিয়ে কোনও লাভ নেই। সরকার আমাদের কোনও কথাই শুনছে না। এ সময় সংগঠনের সভাপতি মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বলেন, বাজারের পতনে সরকারের পদক্ষেপ নেয়ার পরও কুচক্রী মহলের ইন্ধনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আবার সরকার বাজার স্বাভাবিক না হতেই সরকারি কর্মকর্তাদের ব্যবসা বন্ধে প্রজ্ঞাপন জারি করে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে খেলা করছে। এতে করে বিনিয়োগকারীদের মনে আস্থা চলে যাচ্ছে। তিনি বলেন, কোম্পানির পরিচালকরা কম দামে শেয়ার  কেনার জন্য যড়যন্ত্র করে বাজার ফেলে দিচ্ছে। আর এজন্য তদারকি হচ্ছে না। বিষয়টি সরকারকে তদন্ত করার দাবি জানান তিনি। আজ সকাল থেকে রাজধানীর মতিঝিল এলাকায় অবস্থান করে হরতাল সফল করতে সকল বিনিয়োগকারীদের আহ্বান জানান তিনি।
প্রতীকী ‘ফাঁসি’ ও ‘লাশ’ মিছিল: ধারাবাহিক দরপতনের প্রতিবাদে গতকাল দুপুরে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে প্রতীকী লাশ নিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছেন বিনিয়োগকারীরা। পতনের মাত্রা বাড়তে থাকলে বেশ ক’জন বিনিয়োগকারী গলায় প্রতীকী ফাঁসি দিয়ে পুঁজিবাজারে দরপতনের প্রতিবাদ জানায়। দুপুর দেড়টার দিকে একটি খাটিয়া এনে এক নিঃস্ব বিনিয়োগকারীকে প্রতীকী ফাঁসি দিয়ে ও প্রতীকী লাশ বানিয়ে মিছিল করে বিক্ষোভ করেন তারা। এক বিনিয়োগকারীকে অর্থমন্ত্রী সাজিয়ে তাকে লাশবাহী খাটিয়ায় শুয়ে বিক্ষোভ মিছিলের চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। তবে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে বিনিয়োগকারীরা ডিএসই থেকে শাপলা চত্বর পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিল শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের সামনে অবস্থান নিয়ে গভর্নরের পদত্যাগের দাবিতে স্লোগান দেয় বিনিয়োগকারীরা। কিছুক্ষণ পরে পুলিশ তাদের সেখান থেকে তাড়িয়ে দেয়। যে কোন অস্থিতিশীল পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য ডিএসই এলাকায় বিপুলসংখ্যক নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য মোতায়ন করা হয়।
বিনিয়োগকারী আটক: মতিঝিল এলাকায় হরতাল ঘোষণা করার অভিযোগে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের ৮ জন নেতাসহ প্রায় অর্ধশতাধিক বিনিয়োগকারীকে আটক করেছে পুলিশ। মতিঝিল থানার অপারেশন অফিসার বি এম ফরমান আলী পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের নেতাদের আটক করার কথা সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, হরতাল ডাকার অভিযোগে তাদের আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের মধ্যে অন্যতম কয়েক জন হলেন- পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্যপরিষদের সভাপতি মিজান-উর-রশীদ চৌধুরী, সহসভাপতি সেলিম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আবদুর রাজ্জাক, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক আতাউল্লাহ নাঈম, আবদুল মান্নান, আবদুল হান্নান, রুহুল হক ও আবু সুফিয়ান। আবু সুফিয়ান ৫৩ নম্বর ওয়ার্ডের যুবলীগের সিনিয়র সহসভাপতি। পুলিশ বিকাল পৌনে ৫টার দিকে মতিঝিল এলাকা থেকে তাদের আটক করে।
সূচকের সর্বনিম্ন অবস্থান: কোনভাবেই বের হতে পারছে না ধারাবাহিক দরপতনের বৃত্ত থেকে দেশের পুঁজিবাজার। গতকাল দিন শেষে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক ৭১ দশমিক ৩০ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ৬৩৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে, যা গত দু’বছরের মধ্যে এটাই এখন সর্বনিম্ন সূচক। ২০১০ সালের ডিসেম্বরে পুঁজিবাজারে দরপতন শুরু হওয়ার পর এটাই ডিএসই সূচকের সর্বনিম্ন অবস্থান। এর আগে সবচেয়ে কম সূচক ছিল ২০১০ সালের ১৫ই নভেম্বর ৪ হাজার ৬৪৯ পয়েন্ট। রোববার ২৩৬ পয়েন্ট সূচক পতনের ধারাবাহিকতা নিয়ে গতকাল ডিএসইতে লেনদেন শুরু হয়। দিনভর সূচকের ব্যাপক ওঠানামার এক পর্যায়ে ১৩০ পয়েন্ট পর্যন্ত কমে যায়। তবে দিনশেষে সূচক ৭১ পয়েন্ট এবং অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে।
বর্তমান বাজারের এ অবস্থা সম্পর্কে ডিএসইর সাবেক প্রেসিডেন্ট রকিবুর রহমান বলেন, বাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থার সঙ্কট এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে। ফলে সূচক এমন অস্বাভাবিক আচারণ করছে। তবে এ সঙ্কট সরকারি মহল থেকেই সৃষ্টি করা হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, বিনিয়োগকারীরা যখনই নতুন করে বিনিয়োগ শুরু করে ঠিক তখনই একটি মহল বিভিন্ন ইস্যু ও প্রজ্ঞাপন দিয়ে বাজারে নেতিবাচক অবস্থার সৃষ্টি করে। সরকারের ভেতরে ঘাপটি মেরে বসে থাকা একটি মহল এ কাজ করছে। বাজারকে স্বাভাবিক করতে চাইলে সরকারকে বাজারের বিষয়ে তাদের অবস্থান ব্যাখ্যা করতে হবে। একই সঙ্গে বাজার নিয়ন্ত্রণে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) অবস্থান সুস্পষ্ট করে দিতে হবে। তাদের ওপর কোন হস্তক্ষেপ করা যাবে না।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে