Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (33 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৪-২৫-২০১৪

রেলের পুকুর দখল করছেন আ.লীগের নেতারা

রেলের পুকুর দখল করছেন আ.লীগের নেতারা

বগুড়া, ২৫ এপ্রিল, পরিবেশ আইন লঙ্ঘন করে বগুড়া শহরের রেলস্টেশন-সংলগ্ন কামারগাড়ি এলাকায় রেলওয়ের একটি পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। পুকুরের জায়গাটি দখলে নিতেই জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর শামছুদ্দিন শেখ হেলাল, শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল মান্নান ও শহর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন সরকার চার দিন ধরে ভরাটের কাজ করাচ্ছেন।
পুকুর ভরাটের অভিযোগে ওই তিন নেতার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে বগুড়া সদর থানায় মামলা দায়ের করেছে রেলওয়ের ভূসম্পত্তি বিভাগ। ২২ মার্চ রেলওয়ে বগুড়ার ৩ ও ৪ নম্বর কাচারির কানুনগো মো. মোকারম হোসেন মামলাটি করেন। মামলায় ওই তিন নেতার বিরুদ্ধে ১০ বিঘা আয়তনের দুটি পুকুর ভরাটের অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে মামলার পরও ভরাট থেমে নেই।
পরিবেশ অধিদপ্তর বগুড়া কার্যালয়ের পরিচালক আলী রেজা মজিদ বলেন, পরিবেশ আইনে শহরাঞ্চলে পুকুর ভরাট নিষিদ্ধ হলেও যেহেতু মালিকানা রেলওয়ের, তাই তাদেরই আগে ব্যবস্থা নিতে হবে। তারা ব্যবস্থা নেওয়ার পর অধিদপ্তর পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে।
শামছুদ্দিন শেখ প্রথম আলোর কাছে পুকুর ভরাটের কথা স্বীকার করে দাবি করেন, ‘১০ বিঘা আয়তনের পুকুর নয়, মাত্র দুই বিঘা আয়তনের একটি পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য কিংবা ব্যক্তিগত স্বার্থে পুকুরটি ভরাট করা হয়নি। শহরের রেলস্টেশন-সংলগ্ন রেলপথের ওপর দীর্ঘদিন ধরে ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসা করে আসছেন কয়েক শ ব্যবসায়ী। তাঁদের রেললাইন থেকে সরিয়ে পুনর্বাসন করার জন্যই পুকুরটি ভরাট করা হচ্ছে। রেলওয়ের যথাযথ নিয়ম মেনেই পুকুরটি ভরাটের পর তা ইজারা গ্রহণ সাপেক্ষে ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসন করা হবে। রেলওয়ে অনুমতি দিলে সেখানে অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে।’
আওয়ামী লীগের নেতা আবদুল মান্নান বলেন, ‘রেলওয়ের মালিকানাধীন পুকুরটির শ্রেণী “কৃষি” দেখিয়ে একজনকে ইজারা দিয়েছে রেলওয়ে। এতে রেলওয়ে ইজারামূল্য পেত মাত্র ৩৮ হাজার টাকা। অথচ ইজারা গ্রহণকারী ওই ব্যক্তির সম্মতিতে আমরা পুকুরটি দখলে নিয়ে তা জনস্বার্থে ভরাট করছি। এখন আমরা নিয়ম মেনে বাণিজ্যিক দরে জায়গাটি ইজারা নেব।’
রেলওয়ে ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, বগুড়া শহরের রেলস্টেশন ও হাড্ডিপট্টি বাস টার্মিনালের পাশে ‘কামারগাড়ি পুকুর’ নামে পরিচিত দুটি প্রাচীন জোড়া পুকুর পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাসহ এলাকার সৌন্দর্যবর্ধন করে আসছে। সরকারি আজিজুল হক কলেজের পাশের কামারগাড়ি এলাকায় ছাত্রীদের শতাধিক মেস রয়েছে। পুকুর দুটি ছাত্রীদের কাছে ‘কামারগাড়ি লেক’ হিসেবে পরিচিত।
গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, জোড়া পুকুরের মধ্যে দক্ষিণ পাশের পুকুরটি একদিকে শ্যালোপাম্প বসিয়ে সেচে শুকানো হচ্ছে। আর পুকুরের তিন দিকে ট্রাক দিয়ে বালু ও মাটি ফেলে ভরাট করা হচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় লোকজন জানান, ভরাটের পর এখানে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বহুতল বিপণিবিতান ও আবাসিক ভবন করার পরিকল্পনা করেছেন। জায়গাটির বাজারমূল্য প্রতি শতাংশ কমপক্ষে ১০ লাখ টাকা। সেই হিসাবে ২ দশমিক ২৫ একর জমির বাজারমূল্য কমপক্ষে ২২ কোটি টাকা।
রেলওয়ে বগুড়ার কানুনগো মোকারম হোসেন জানান, রেলওয়ের মালিকানাধীন পুকুর দুটি ১৪১৯ বাংলা সন পর্যন্ত ইজারা দেওয়া ছিল মিরাজ হোসেন নামে এক ব্যক্তির কাছে। আইনি জটিলতার কারণে ১৪২০ সনে পুকুরটি কাউকে ইজারা দেওয়া হয়নি। কিন্তু ২১ এপ্রিল থেকে বালু ও মাটি ফেলে ভরাট করছেন আবদুল মান্নান, শামছুদ্দিন শেখ হেলাল ও আবদুল মতিন সরকার।
আবদুল মান্নান জানান, ইজারাগ্রহীতা মিরাজ হোসেন যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হন, এ জন্য আপস-মীমাংসার ভিত্তিতে পুকুরটি দখলে নেওয়া হয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে ইজারা নেওয়ার জন্যই ভরাটের কাজ চলছে।
বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. নুর-এ-আলম সিদ্দিকী বলেন, পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে। আপাতত পুকুর ভরাটের কাজ বন্ধ রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বলা হয়েছে।

বগুড়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে