Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৯ , ৩০ কার্তিক ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (35 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৪-২১-২০১৪

কোটি টাকার ‘বন তাপসী’ ৫ লাখে বিক্রি!

কোটি টাকার ‘বন তাপসী’ ৫ লাখে বিক্রি!

পটুয়াখালী, ২১ এপ্রিল- পটুয়াখালীতে বন পাহারাদার হিসেবে পরিচিত বন বিভাগের অত্যাধুনিক জলযান বন তাপসী বিক্রি হয়েছে মাত্র ৫ লাখ টাকায়। কোটি টাকা মূল্যের জলযানটি পানির দামে বিক্রি করায় শহরবাসীর মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

গত ৭ এপ্রিল জলযানটি বিক্রির জন্য তিনটি পত্রিকায় দরপত্র বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। এর মাধ্যমে ২৩টি ফরম বিক্রি হয়। তবে দরপত্র জমা পড়ে মাত্র তিনটি।

জমা পড়া এসব দরপত্রে বন তাপসীর সর্বোচ দর উঠে পাঁচ লাখ ২১ হাজার টাকা। কোটি টাকার জলযানটি সর্বোচ দামে বিক্রির জন্য কাগজপত্র তৈরি করে বন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, উপকূলীয় পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলায় বনোৎপাদন ও সংরক্ষণ কাজে ব্যবহারের জন্য ১৯৮২ সালে সরকার পটুয়াখালী বনবিভাগে ‘বন তাপসী’ নামে অত্যাধুনিক জাহাজ বরাদ্দ দেয়। নদী বেষ্ঠিত এদুটি জেলার বন কর্মকর্তারা বনডাকাতদের আতঙ্ক হিসেবে চিহ্নিত অত্যাধুনিক এ জলযানটি ব্যবহার করে আসছিলেন।

তবে দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় লোনাপানি, ঝর-ঝঞ্ঝা-বন্যা ও অযত্ন অবহেলায় বন তাপসীর কাঠামো অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়ে। তবে বন বিভাগের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা এটি সংস্কার ও মেরামত করার পরিবর্তে ব্যবহারের অনুপোযোগী দেখিয়ে দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে মাত্র ৫ লাখ ২১ হাজার টাকায় বিক্রি করার উদ্যোগ নিয়েছেন।

বনডাকাতদের আতঙ্ক হিসেবে চিহ্নিত হওয়া কোটি টাকা মূল্যের বন তাপসী পানির দামে বিক্রির খবরে শহরের সচেতন মহলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে পটুয়াখালী বনবিভাগের কর্মকর্তা মিহির কুমার দো বলেন, ‘২০১১ সালে বন মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শক দল বন তাপসীকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে। দীর্ঘদিন অব্যহৃত থাকায় এটা নষ্ট হয়ে যচ্ছে। তাই নিলামদর হিসাবে গত ৭ এপ্রিল তিনটি পত্রিকায় টেন্ডার নোটিশের মাধ্যমে ২৩টি ফরম বিক্রি হয়। তবে মাত্র তিনটি ফরম জমা পড়ে।’

মিহির কুমার আরো জানান, জমা হওয়া তিনটি টেন্ডার ফরমে বন তাপসীর সর্বোচ্চ দর উঠেছে পাঁচ লাখ ২১ হাজার টাকা। যার তালিকা প্রস্তুত করে বন মন্ত্রণালয়ে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বনবিভাগের একাধিক কর্মকর্তা জানান, বন তাপসী সংস্কার করা হলে এটি ব্যবহার উপযোগি হতো। অপর এক কর্মকর্তা দাবি করেন, বন তাপসীর বর্তমান মূল্য কোটি টাকার উপরে।

সরেজমিন ডিসি ঘাটের পূর্বপাশে বন বিভাগের ঘাটে নোঙর করা বন তাপসীতে বনবিভাগের কয়েকজন কর্মচারীকে দেখা গেছে। তাদের মধ্যে একজন তিরিশ বছরের বেশি সময় ধরে জলযানটিতে কাজ করে আসছেন।

বন তাপসীর সারেং দেলোয়ারের কাছে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি মুখ খুলতে রাজি হননি।

তবে বন কর্মকর্তা মিহির কুমার দো জোর দিয়ে বলেন, বন তাপসী এখন পরিত্যক্ত। তাই টেন্ডারের মাধ্যমে সব কিছু করা হয়েছে। গোপন টেন্ডারে কিছু করা হয়নি।

পটুয়াখালী

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে