Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২০ জুলাই, ২০১৯ , ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-০৭-২০১৪

“কংগ্রেস ও বিজেপি উভয় দলই ফেভারিট”

“কংগ্রেস ও বিজেপি উভয় দলই ফেভারিট”

নয়াদিল্লী, ০৭ এপ্রিল- ভারতে ১৬তম লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে আজ। এবার দেশটিতে মোট নয় দফায় ভোট হবে। শেষ হবে আগামী ১২ মে। ভোট গণনা হবে আগামী ১৬ মে।

এবার ভারতের নির্বাচন কেমন হবে। এ নিয়ে সোমবার একটি বেসরকারি টেলিভিশনে কথা বলেছেন সাবেক কূটনীতিক ও তথ্য কমিশনার মোহাম্মদ জমির এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক এম শাহিদুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে মোহাম্মদ জমির বলেন, ‘ভারতের লোকসভা নির্বাচনে কোন দল জিতবে তা এখনই নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ও কংগ্রেস উভয় দলই ফেভারিট।’

নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশটির প্রধান বিরোধী দল বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, ‘আমি ভারতের প্রধানমন্ত্রী হলে এক কোটি মানুষের চাকরি দেব। যুবকদের সাথে নিয়ে দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব।’  

এদিকে কংগ্রেস বলেছে, মোদি ক্ষমতায় গেলে ভারতে সাম্প্রদায়িকতা বাড়বে।দেশে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হবে।

তবে মোদি কংগ্রেসের এমন বক্তব্যের প্রতিবাদে বলেছেন,‘কংগ্রেস বিজেপির বিরুদ্ধে মুসলমানদের উসকে দিতেই এমন মন্তব্য করছে।’

এদিকে নরেন্দ্র মোদি মুসলমানদের কাছে টানতে কাশ্মীরে গিয়ে বলেছেন,‘আমি ক্ষমতায় এলে কাশ্মীরের জনগণের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি থাকবে।’

মোহাম্মদ জমির বলেন,‘ভারতে সরকার গঠন করতে হলে নিয়মানুযায়ী কমপক্ষে ২৭২টি আসন পেতে হয়। সেটি মনে হয় এবার কোনো একক দলের পক্ষে সম্ভব হবে না। সরকার গঠন করতে হলে জোট করতে হবে। সেক্ষেত্রে মন্ত্রিসভার পদ নিয়ে অনেক সমস্যা দেখা দেবে।’

তিনি বলেন,‘বিজেপি যদি সরকার গঠন করে তাহলে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কে কিছুটা জটিলতা তৈরি হবে।এজন্য বাংলাদেশকে আগে থেকেই পরিকল্পনা করতে হবে যে, তারা ভারতের সাথে কিভাবে সম্পর্ক রক্ষা করবে।’

অনুষ্ঠানে এম শাহিদুজ্জামান বলেন, ‘কিছুদিন আগেও বলা হয়েছে, এবারের নির্বাচনে বিজেপি এগিয়ে থাকবে। কিন্তু আজ (সোমবার) তারা যে নির্বাচনি ইশতেহার প্রকাশ করেছে তা নিয়ে ভারতজুড়ে অনেক সমালোচনা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘বিজেপি তাদের ইশতেহারে তিনটি বিতর্কিত ইস্যু সামনে এনেছে। প্রথমটি হচ্ছে, অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের স্থানে রামমন্দির স্থাপন। এ কারণে বিজেপি মুসলমানদের মাঝে জনপ্রিয়তা হারাবে।

দ্বিতীয়টি হচ্ছে, মোদি চাইছেন তিনি ক্ষমতায় গেলে ভারতে সব ধর্মের মানুষের জন্য একটি কমন আইন করবেন। এটিও বিতর্কিত বিষয়। এ নিয়ে আজই  ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রশ্ন তুলেছেন বিশ্লেষকরা।

তৃতীয়টি হচ্ছে,বর্তমানে ভারত প্রজাতন্ত্রে কাশ্মীর একটি স্বতন্ত্র অঞ্চল। তাদের আলাদা এক ধরনের মর্যাদা দেয়া হয়। মোদি বলেছেন, তিনি ক্ষমতায় গেলে কাশ্মীরকে ভারতের অন্যান্য রাজ্যের মত একই মর্যাদা দেয়ার ব্যবস্থা করবেন।’

এম শাহীদুজ্জামান মনে করেন, বিজেপির ইশতেহারের এ দিকগুলো ভারতের মানুষের কাছে তাদের হিন্দুত্ববাদী চেতনাকে প্রতিফলিত করবে। এসব বিষয়গুলো নির্বাচনে বিজেপির জন্য নেতিবাচক বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে