Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১০ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.3/5 (9 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-০৫-২০১৪

সব জরিপেই এগিয়ে বিজেপি

সব জরিপেই এগিয়ে বিজেপি

নয়াদিল্লী, ০৫ এপ্রিল- ভারতের লোকসভা নির্বাচনের আগে করা সব জরিপেই এগিয়ে রয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। এ দলের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে নির্বাচনী প্রচারে নেতৃত্ব দিচ্ছেন গুজরাটের তিনবারের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আর মাত্র এক দিন বাদে ভারতে লোকসভা নির্বাচন শুরু হচ্ছে। ৭ এপ্রিল থেকে ১২ মে পর্যন্ত ৩৬ দিনব্যাপী নয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ভোট গ্রহণ। বর্তমানে ক্ষমতাসীন দল কংগ্রেসসহ প্রধান বিরোধী দল বিজেপি ও অন্য দলগুলো ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ভোট প্রার্থনা করছে।

আন্দামান থেকে হিমালয় পর্যন্ত ভারতীয় লোকালয়ে ছুটছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। সেই সঙ্গে শুরু হয়েছে ক্ষণগণনা। ঠিক এমন টানটান উত্তেজনাকর মুহূর্তে নির্বাচনপূর্ব ফলাফল জরিপে দেখা যাচ্ছে, কংগ্রেসের চেয়ে বেশ এগিয়ে রয়েছে বিজেপি।

জি গ্রুপ ও তালিম রিসার্চ ফাউন্ডেশন কর্তৃক পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, ৩৫ দশমিক ৭ শতাংশ ভোট পেতে পারে বিজেপি। এর বিপরীতে কংগ্রেসের পাওয়ার সম্ভাবনা ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট। আর এ জরিপে তৃতীয় অবস্থানে আছে বহুজন সমাজবাদী পার্টি, যারা ৩ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পেতে পারে।  

এ ছাড়া আলোড়ন সৃষ্টিকারী আম আদমি পার্টি (এএপি) পেতে পারে ২ দশমিক ৯ শতাংশ ভোট। আর প্রদেশভিত্তিক জনপ্রিয় দল যেমন পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস ২ দশমিক ১ এবং সমাজবাদী পার্টিও ২ দশমিক ১ শতাংশ ভোট পেতে পারে। এ জরিপের ফলাফল শুক্রবার প্রকাশ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ভারতের মোট ভোটার সংখ্যা ৮১ কোটির বেশি। মোট আসন ৫৪৩টি। কোনো দলকে এককভাবে জিততে হলে লাগবে ২৭২টি আসন। এ সংখ্যাটিকে বলা হচ্ছে ম্যাজিক ফিগার।
শতকরা ভোট প্রাপ্তির পরিমাণ সম্পর্কে যে অনুমিত চিত্র দেখা যাচ্ছে, আসন সংখ্যার দিক থেকেও জরিপে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। জরিপের ফলাফলে দেখা গেছে, বিজেপি এককভাবে পেতে পারে ২১৫টি থেকে ২২৫টি আসন।  যেখানে কংগ্রেস পেতে পারে ১২১টি থেকে ১৩২টি আসন।

এ ছাড়া নরেন্দ্র মোদিকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পছন্দ করছেন ৪৫ দশমিক ৭ শতাংশ ভোটার। তার প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের ভাইস প্রেসিডেন্ট রাহুল গান্ধীকে পছন্দ করছেন ২১ দশমিক ৩ শতাংশ ভোটার। এ তালিকায় কেজরিওয়াল রয়েছেন তিন নম্বরে, তাকে পছন্দ করছেন ৪ শতাংশ ভোটার। আর প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে মায়াবতীকে পছন্দ ৩ দশমিক ৭ শতাংশ ভোটারের।

এদিকে এনডিটিভির প্রাক-নির্বাচনী ফলাফল জরিপে প্রায় একই চিত্র দেখা যাচ্ছে। এ জরিপে জোটগত ফলাফল চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। এতে বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট ২৫৯টি আসন পেতে পারে। এর সঙ্গে আরো ১১৮টি আসন যোগ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে শুক্রবার।

এনডিএ-এর প্রতিপক্ষ কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট পেতে পারে ১২৩টি আসন। এ ক্ষেত্রে তাদের ১০৮টি আসন হারানোর সম্ভাবনা রয়েছে। আর অন্য সব দল মিলে ও অপেক্ষাকৃত ছোট জোটগুলো মিলে পেতে পারে ১৬১টি আসন।
প্রাক-নির্বাচনী ফলাফল জরিপের তথ্য ৭০ শতাংশ পর্যন্তও সফল হতে পারে। যদি তাই হয়, তবে বিজেপির জয়ের সম্ভাবনাই বেশি। তাদের নেতৃত্বেই ১৬ মে হয়তো গঠিত হবে ভারতের ১৬তম লোকসভা। কিন্তু সোয়া শতাব্দীর চেয়ে বেশি পুরোনো রাজনৈতিক দল হিসেবে কংগ্রেসের নির্বাচন মোকাবিলার অভিজ্ঞতা অন্যদের তুলনায় একটু আলাদা। তাদের রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা হয়তো শেষ পর্যন্ত একটি সম্মানজনক লড়াইয়ে পৌঁছে দেবে তাদের।

ভারতের নির্বাচনে এবার যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়াবে তা হলো- হয়তো কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। এতে করে দলীয়ভাবে কোনো রাজনৈতিক দল সবচেয়ে বেশি আসন পেলেই যে তারা সরকার গঠন করবে, তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। তবে শেষ হাসিটা কে হাসে, তাই দেখার অপেক্ষায় গণতান্ত্রিক বিশ্ব।

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে