Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০১৯ , ২ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (71 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-০৪-২০১৪

মোনালিসার বিয়ে, দাম্পত্য এবং ডিভোর্সের সাতকাহন

মোনালিসার বিয়ে, দাম্পত্য এবং ডিভোর্সের সাতকাহন

ঢাকা, ০৪ এপ্রিল- হুট করেই কাজটা করেছিলেন মোনালিসা। একেবারে চটজলদি বিয়ে আর ঝোঁকের মাথায় মিডিয়া ছেড়ে দেয়া। তবে তাড়াহুড়ার ফল যে শুভ হয় না, সেটার প্রমাণ মিলছে এই অভিনেত্রীর জীবন থেকেই। জনপ্রিয় মডেল, অভিনেত্রী ও নৃত্যশিল্পী মোজেজা আশরাফ মোনালিসা, এক নামে যাকে সবাই চেনে। আজকাল মিষ্টি এই মেয়েটির জন্য আফসোসও করে অনেকে।

২০১৩ সালের ১৪ জুন শেষের ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে যোগ দিতে নিউইয়র্ক যান মোনালিসা। অবাক ব্যাপার হচ্ছে, যাওয়ার মাত্র দুদিন পর ১৭ জুন হুট করেই সেখানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী নারায়ণগঞ্জের ছেলে ফাইয়াজ শরীফের সঙ্গে আংটি বদলের কাজটি সেরে ফেলেন! এই বাগদানের মধ্যস্থতা করেন মোনালিসার বড় বোন মুনিরা।

এরপর দেশে ফিরে বিয়ের মহা জমকালো আয়োজন কুর্মিটোলা আর্মি গলফ ক্লাবে। ১২.১২.১২ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় মোনালিসার বিয়ে। মিডিয়াতেও কম হৈচৈ হয় নি এই সেলিব্রেটি বিয়েকে ঘিরে। এবং বিয়ের কিছুদিন পরই মোনালিসা নিউইয়র্ক চলে যান স্বামীর ঘরে। কাহিনীটা এখানে শেষ হতে পারতো, রাজকন্যা-রাজপুত্র চিরকাল হাসিখুশি জীবন কাটাতে পারতো পরস্পরের হাত ধরেই।

তবে কাহিনী এখানেই শেষ নয়, মাত্র শুরু। কেননা বিয়ের একবছর পূর্ণ হওয়ার আগেই শোনা যায় তার তাঁর সংসারের ভাঙনের গুঞ্জন। কেন? কী সেই কাহিনী? জবাবটি সহজ- মিডিয়া! অন্তত গুঞ্জন তাই বলে!

মোনালিসা বলেন, ‘একেবারে হুট করেই পারিবারিকভাবে আমাদের বিয়ের সিদ্ধান্তটি নেওয়া হয়। তাই একজন আরেকজনকে খুব ভালোভাবে জানার বা বোঝার সময়টা পাইনি। আমি মনে করি, অশান্তি আর অবিশ্বাস নিয়ে সংসার করার চেয়ে না করাটাই ভালো।’

প্রকাশিত নানান সংবাদের ভিত্তিতে বলা যায়, মোসালিসার বিয়ের কিছু দিনের মাথায়ই দুজনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি শুরু হয়। ধীরে ধীরে তা খুব মারাত্মক আকার ধারণ করতে থাকে। একটা পর্যায়ে অশান্তির মাত্রা সহ্যের সীমা ছাড়িয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে পারিবারিকভাবে দাম্পত্য জীবনের ইতি টানার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হয়।

সুদূর আমেরিকায় যাওয়ার পরও মোনালিসা প্রায়ই বলতেন, ‘দর্শকের ভালোবাসা নিয়ে আমি আবারও নিয়মিত মডেলিং এবং অভিনয় করতে চাই।' স্বামী ফাইয়াজ মোনালিসার মিডিয়ায় কাজ করার এই বিষয়টি একেবারেই পছন্দ করতেন না। তবুও আমেরিকা যাবার কাগে "ড্রইংরুম" সহ আরও কিছু নাটকে কাজ করে যান তিনি। সব মিলিয়ে নানান কারণে তাদের মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকে। ফাইয়াজের পরিবারও মোনালিসার মিডিয়ায় কাজ করার বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি।

জানুয়ারির শুরুতে মিডিয়াকে মোনালিসা বলেছিলেন যে ডিভোর্স চূড়ান্ত হলে তবেই তিনি দেশে ফিরতে পারবেন। সে সময়ে নিউইয়র্কে বোনের বাড়িতে অবস্থা করছিলেন তিনি।

পত্রিকায় এমন গুঞ্জনও এসেছিল যে নিজের খরচ চালাতে আমেরিকায় চাকরি খুঁজছেন মোনালিসা। এবং পেয়েছেনও। যতদূর জানা যায় বর্তমানে আমেরিকায় টাইম তেলিভিশনে কর্মরত আছেন তিনি। ওপরের ছবিগুলো মোনালিসার সেই কর্মক্ষেত্রের, ফেসবুক সূত্রে পাওয়া। তবে বেশ কিছু পত্রিকার কাছে দেশে ফিরে পুনরায় মিডিয়াতে কাজ করার আশাও ব্যক্ত করেছেন তিনি।


মোনালিসার বিচ্ছেদের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হতে এ বছরের জুন মাস পর্যন্ত সময় লাগবে। এর পরই তিনি দেশে ফিরবেন বলে জানিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ও সেখানকার মানুষকে অনেক বেশি মনে পড়ছে। ইচ্ছে না থাকা সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রে থাকতে হচ্ছে। বিচ্ছেদের পুরো প্রক্রিয়াটা শেষ করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেশে ফিরব। আর ফিরেই নতুন উদ্যমে আবার কাজ শুরু করব।’

নিঃসন্দেহে তাঁর এই চাওয়ায় অত্যন্ত আনন্দিত হবে ভক্তমহল। আমরা সকলেই চাই মোনালিসা আবার ফিরে আসুন রূপালি জগতে, উপহার দিন ভালো ভালো কাজ। ব্যক্তিগত জীবনের কষ্ট ভুলে আবার হেসে উঠুন এই তারকা।

শুভভকামনা মোনালিসার জন্য।

মডেলিং

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে