Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২০ , ৮ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (20 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৪-০১-২০১৪

সিলেটের ৬ উপজেলায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি সমানে সমান

সিলেটের ৬ উপজেলায় আওয়ামী
লীগ-বিএনপি সমানে সমান

সিলেট, ০১ এপ্রিল- সোমবার অনুষ্ঠিত পঞ্চম ও শেষ দফার চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ছয়টি উপজেলার মধ্যে তিনটিতে আওয়ামী লীগ ও তিনটিতে বিএনপি প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। মোট পাঁচ দফা নির্বাচনের মাধ্যমে দুটি উপজেলা ছাড়া সিলেট বিভাগের ৩৬টি উপজেলায় নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। ফেঞ্চুগঞ্জ ও জগন্নাথপুর উপজেলায় মামলাজনিত কারণে নির্বাচন স্থগিত রয়েছে।

গতকাল অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সিলেটের বিয়ানীবাজার, মৌলভীবাজারের জুড়ি ও রাজনগরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী এবং সুনামগঞ্জের তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর ও হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

বিয়ানীবাজার
বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমান খান (আনারস) তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চাইতে এক হাজার ৫১১ ভোট বেশি পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩১ হাজার ২৩১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মুফতি শিব্বির আহমদ (চশমা) এবং সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩১ হাজার ৩৪৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রোকশানা বেগম লিমা (ফুটবল)। সোমবার রাত ১টার দিকে বিয়ানীবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম চৌধুরী উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন।

এর আগে বিয়ানীবাজারে নজিরবিহীন নিরাপত্তা বলয়ের মধ্যে সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৭৪টি কেন্দ্রে বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলে। এ সময়ের মধ্যে উপজেলার কোথাও বড় ধরনের কোন গোলযোগের সংবাদ পাওয়া যায়নি। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান পদ ধরে রাখতে পারলেও আওয়ামী লীগের হাতছাড়া হয়েছে দুটি ভাইস চেয়ারম্যানের পদ।

এদিকে,সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ঘোষিত তথ্যমতে, আওয়ামী লীগের বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমান খান পেয়েছেন ২০ হাজার ৬৪৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব হেলিকপ্টার প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ১৩৬ ভোট।

জুড়ি
মৌলভীবাজারের জুড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এম এ মুমিত আসুক আনারস প্রতীক নিয়ে ২৯ হাজার ৮৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নাসির উদ্দিন মিঠু দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৩ হাজার ৪৫২ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত কিশোর রায় চৌধুরী তালা প্রতীক নিয়ে ২১ হাজার ৬৬১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াত প্রার্থী মাওলানা আব্দুর রহমান বাল্ব প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ৯০৫ ভোট।

সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী রঞ্জিত শর্মা প্রজাপতি প্রতীকে ২৭ হাজার ২৭৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত হুসনে আরা বেগম কলস প্রতীকে পেয়েছেন ২৭ হাজার ২৫৫ভোট।

জুড়ি উপজেলায় গতকাল শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচন নিয়ে কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরামহীনভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ছয় ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত জুড়ি উপজেলায় ভোটকেন্দ্র ছিল ৩৮টি এবং মোট ভোটারসংখ্যা ৮৫ হাজার ৭৯৬ জন।

রাজনগর
রাজনগর উপজেলায় বেসরকারিভাবে আওয়ামী লীগের আছকির খান নির্বাচিত হয়েছেন। রাজনগর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মো. মুজিবুর রহমান এই ফলাফল নিশ্চিত করেন। ৬৩টি কেন্দ্রের ফলাফলে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী আওয়ামী লীগের আছকির খানের দোয়াত-কলম প্রতীকে প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা ২৬ হাজার ৯৫টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির জামি আহমদ ঘোড়া প্রতীকে ১৯ হাজার ৫৬৯ ভোট পেয়েছেন।

উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ফারুক আহমদ বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা ৩০ হাজার। এছাড়া সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির ডলি বেগম পদ্মফুল প্রতীকে ২৯ হাজার ৯৫০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

রাজনগর উপজেলা আটটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এই উপজেলায় ভোটারের সংখ্যা এক লাখ ৩৯ হাজার ৬৯২ জন। এদের মধ্যে
পুরুষ ভোটার ৬৯ হাজার ১১৬ জন এবং মহিলা ভোটার ৭০ হাজার ৫৭৬ জন। রাজনগর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ছয়জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন মিলে মোট ১৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

তাহিরপুর
তাহিরপুর উপজেলায় বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী মো.কামরুজ্জামান কামরুল বিজয়ী হয়েছেন। সোমবার রাত ১১টার দিকে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সোলায়মান এই ফলাফল ঘোষণা করেন। এই উপজেলার ৪৫টি ভোট কেন্দ্রের সবগুলোর ফলাফল বেসরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়েছে।

উপজেলার চেয়ারম্যান পদে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী কামরুজ্জামান কামরুল ঘোড়া প্রতীকে ২৭ হাজার ৩০৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আনিসুল হক কাপ-পিরিচ প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ৩২৮ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ফেরদৌস আলম আখঞ্জী চশমা প্রতীকে ২৯ হাজার ১৭০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. রতন মিয়া তালা প্রতীকে ২৩ হাজার একটি ভোট পেয়েছেন।

সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী শাহেদা আক্তার পদ্মফুল প্রতীকে ২২ হাজার ৯০৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকট প্রতিদ্বন্দ্বী খালেদা বেগম প্রজাপতি প্রতীকে পেয়েছেন ২১ হাজার ৩৩৩টি ভোট।

এই উপজেলায় চেয়ারম্যন পদে ছয়জন ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করেন। তাহিরপুর উপজেলায় মোট ভোটারসংখ্যা এক লাখ ১৫ হাজার ১৭৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫৭ হাজার ৯৩১ জন এবং বাকি ৫৭ হাজার ২৪৮ জন নারী ভোটার।

বিশ্বম্ভরপুর
চেয়ারম্যান পদে সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো. হারুনুর রশীদ মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ২৪ হাজার ৭১৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী দিলীপ কুমার বর্মন পেয়েছেন ১৫ হাজার ২৯৭ ভোট।

এছাড়া ভাইস চেয়াম্যান পদে আওয়ামী লীগের সুলেমান তালুকদার পেয়েছেন ২১ হাজার ১০২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াত সমর্থিত আবুল বাশার পেয়েছেন ১৬হাজার ৩০৪ ভোট।

সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন আয়েশা আক্তার, তিনি প্রজাপতি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২১ হাজার ১৪৯টি ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী গীতা রানী তালুকদার পেয়েছেন ১৭ হাজার ৬৭১ ভোট।

বানিয়াচং
হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলায় বিএনপির মনোনীত প্রার্থী শেখ বশির আহমদ ঘোড়া প্রতীকে ৩৪ হাজার ২৪৬ ভোট পেয়ে চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আওয়ামী লীগের আবুল কাশেম চৌধুরী মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২৪ হাজার ৩৪০টি।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীক নিয়ে ২৫ হাজার ৩২৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর মনোনীত প্রার্থী মো. ইকবাল বাহার খান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন খেলাফত মজলিসের এহতেশামুল হক শামীম। তিনি উড়োজাহাজ প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ১৫ হাজার ২৭৬টি।

এছাড়া সংরক্ষিত আসনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী তানিয়া খানম পদ্মফুল প্রতীক নিয়ে ৩৭ হাজার ২৫৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ফেরদৌস আরা হাঁস প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২৭ হাজার ৪৩টি।

সিলেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে