Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২০ , ১১ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (16 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৩-২৬-২০১৪

রহস্য উদঘাটনের দাবি পুলিশের, আটক নেই

রহস্য উদঘাটনের দাবি পুলিশের, আটক নেই

চট্টগ্রাম, ২৬ মার্চ- নগরীর ডবলমুরিং থানার আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকায় সোমবার সকালে নিজ বাসায় এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়েসহ মাকে পায়ের রগ কেটে, কুপিয়ে নৃশংসভাবে খুনের রহস্য উদঘাটনের দাবি করেছে পুলিশ।

এটিকে পরিকল্পিত ও একাধিক পেশাদার খুনির কাজ বলেও নিশ্চিত হয়েছে, এছাড়া খুনিকেও চিহ্নিত করার দাবি করেছে পুলিশ।

তবে উত্যক্তকারী রায়হানকে আসামি করে একটি খুনের মামলা হলেও এখনো পর্যন্ত কোন আসামি আটক করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার পরপর আটক বাড়ির দুই নিরাপত্তা রক্ষী রাশেদ (২৮) ও হাবিবকে (৩৫) ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে মঙ্গলবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা জানান, এই হত্যাকাণ্ড পূর্ব পরিকল্পিত ও খুনিদের মধ্যে কেউ কেউ পূর্ব পরিচিত। এই খুনের ঘটনায় পেশাদার খুনি থাকায় তারা নিপুণ দক্ষতায় মা মেয়েকে খুন করে নিরাপদে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া হত্যাকাণ্ডের মিশনটি মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যে শেষ করেছে।

ঘটনার পর সিআইডির ফরেনসিক বিভাগের চার সদস্যেও একটি টিম ওই বাসা থেকে রক্তমাখা একটি বটি ও বড় ছোরার সঙ্গে একটি ব্যাগও উদ্ধার করা হয়েছে। ব্যাগে এমন কিছু জিনিস পাওয়া গেছে, যা দেখে তদন্ত কর্মকর্তারা মনে করছেন খুনিরা প্রথম প্রচেষ্টায় সফল না হলে দ্বিতীয় পদ্ধতি প্রয়োগের মাধ্যমে খুন করতেই এসব জিনিস নিয়ে এসেছিল। কারণ ওই ব্যাগে পাওয়া গেছে মাছ ধরার কিছু বড়শি, দুই বোতল অকটেন, একটি বড় তোয়ালে এবং এক জোড়া হ্যান্ডগ্লাভস।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, উদ্ধারকৃত এসব আলামত দেখে বুঝা যাচ্ছে তাদের তোয়ালে প্যাঁচিয়ে শ্বাস রোধ করে হত্যা করারও পরিকল্পনা ছিল খুনিদের। হাতের ছাপ না থাকার জন্যই নিয়ে আসা হয়েছিল হ্যান্ড গ্লাভস। তাছাড়া খুনের পর অকটেন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিলে পুড়ে মারা যাওয়ার কাহিনী তৈরির ইচ্ছাও থাকতে পারে খুনিদের মধ্যে। এছাড়াও খুনের ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি রক্তমাখা শার্ট উদ্ধার করে।

ওই বাসা থেকে একটি মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে, সেটির ম্যাসেজ বক্সে অভিযুক্ত রায়হানের পাঠানো কিছু এসএমএস পাওয়া গেছে। সেগুলো পড়ে বোঝা যায়, তাতে রায়হানের প্রেমে সাড়া দেওয়ার বিষয় নয়, আছে সম্পর্ক পুনঃস্থাপনের অনুরোধ। সব কিছু মিলে পুলিশ কর্মকর্তাগণ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে সায়মা নিশানের সাথে রায়হানের সম্পর্ক ছিল, যেকোন কারণে তা ভেঙে গেছে। রায়হান পুনরায় তা গড়ে তোলার চেষ্টা করলেও নিশান তাতে সাড়া দেয়নি। এজন্য ক্ষুব্ধ রায়হান ভাড়াটে কিলারদের দিয়ে এ ঘটনা ঘটাতে পারে। যদিও মৃত্যুর আগে নিহত রোজিয়া খাতুন এ হত্যাকাণ্ডের জন্য রায়হানকে দায়ি করে গেছেন।

এদিকে মা-মেয়ে খুনের ঘটনায় সোমবার রাতে ডবলমুরিং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে নিহত সায়মার পিতা ব্যবসায়ী রেজাউল করিম। জনৈক রায়হানের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করে দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় মামলাটি করা হয়। মামলা নাম্বার ২২। মামলায় রায়হানের নাম উল্লেখ করা হলেও তার পিতার নাম ও ঠিকানাসহ বিস্তারিত কোন তথ্য নেই এজাহারে।

আলোচিত এই মা-মেয়ে খুনের একদিন পেরিয়ে গেলেও পুলিশ কাউকে আটক করতে পারেনি। তবে ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মতিউল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও তার পরিবারের সাথে কথা বলে এ খুনের ব্যাপারে বেশ কিছু তথ্য আমাদের হাতে এসেছে। তদন্তের স্বার্থে এখন সব বলা যাচ্ছে না। পরিবারের পক্ষ থেকে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে তাকেও তদন্তের স্বার্থে আমরা আটকের চেষ্টা করছি।’

তিনি বলেন, ‘আসামিদের আটক করতে না পারলেও খুনের রহস্য উদঘাটন আমরা করতে পেরেছি। খুনের কারণ উদঘাটন ও খুনিদের চিহ্নিত করা গেছে। এখন আমরা আসামিদের গ্রেপ্তারে জোর চেষ্টা করছি। আশা করছি খুব শিগগিরই একটি রেজাল্ট আসবে।’

নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (গোয়েন্দা) বাবুল আক্তার বলেন, ‘খুনের কারণ উদাঘাটন করা হয়েছে। খুনিও চিহ্নিত করা হয়েছে এখন তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। অভিযুক্ত রায়হায়নের বিষয়টিও মামলায় গুরুতের সঙ্গে নেয়া হচ্ছে। আশা করছি একটি সুখবর সবাইকে দিতে পারবো।’

এর আগে সোমবার সকাল ১১টায় পুলিশ নগরীর আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকার ১৭ নম্বর সড়কের ১২৯ নম্বর যমুনা নামের একটি ভবনের চতুর্থ তলায় থেকে হাত পায়ের রগ কাটা মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে রেজিয়া খাতুন (৫০) ও মেয়ে সায়মা নাজনীন (১৬)। পরে চমেক হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত রেজিয়া নগরীর ধনিয়ালাপাড়া এলাকার এফএন ট্রেডিং করপোরেশন নামের একটি সিঅ্যান্ডএফ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও একই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রেজাউল করিমের স্ত্রী। মেয়ে সায়মা নাজনীন এবার আগ্রাবাদ সিডিএ গার্লস স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছিলেন।

চট্টগ্রাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে