Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২০ , ১০ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (15 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৩-১৯-২০১৪

কারাগার থেকে মোবাইল বার্তা ও ছবি ফাঁস, প্রশাসনে তোলপাড়

এ কে এম রিপন আনসারী


কারাগার থেকে মোবাইল বার্তা ও ছবি ফাঁস, প্রশাসনে তোলপাড়

গাজীপুর, ১৯ মার্চ- কারাগারে ভাড়া করা সিম দিয়ে বন্দিরা আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলেন। বন্দিদের নির্যাতন করে ক্ষত চিহ্নের ছবি মোবাইল এমএমএস এর মাধ্যমে পরিবারের কাছে পাঠিয়ে আদায় করেন অর্থ। এমন কিছু সাম্প্রতিক তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে হইচই পড়ে গেছে প্রশাসনে। এ ধরনের চাঞ্চল্যকর তথ্যের সূত্র ধরে তিন জঙ্গি কয়েদি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা পুরোপুরি আবিষ্কার করা সম্ভব বলেও মনে করা হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, গাজীপুরের হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক একাধিক বন্দি মোবাইল ফোনে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলেন। কারাগার থেকে মোবাইল ফোনে ছবি পাঠিয়েছেন বন্দিরা। ওই ছবিগুলোতে কয়েদিদের ওপর নির্যাতনের চিত্র ফুটে উঠেছে।

গাজীপুর জেলা পুলিশের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বন্দিরা বেশ কিছু মোবাইল নাম্বারে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলেন মর্মে গোপন সূত্রে সংবাদ ছিলো।

সূত্র জানায়, অনুসন্ধান করে কারাগারে ব্যবহৃত বেশ কিছু সিম নাম্বার পাওয়া গেছে। ওই সব নাম্বার দিয়ে বন্দিরা আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে কথা বলেন মর্মে অভিযোগ রয়েছে। প্রায় ৬টি নাম্বার অনুসন্ধান করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সূত্র বলছে, কাশিমপুর নেটওয়ার্ক থেকে ওই সব সীমে বন্দিরা কথা বলেছেন। বন্দিদের পরিবারের কাছ থেকে বড় অংকের টাকা আদায়ে বন্দিকে নির্যাতন করে বন্দিকে দিয়েই মোবাইলের এমএমএস এর মাধ্যমে ছবি পাঠানোর প্রমাণ পাওয়া গেছে। কারাগার থেকে আসা বন্দিদের পাঠানো বেশ কিছু ছবি পুলিশের জালে আটকা পড়েছে।

সূত্র জানায়, হাইসিকিউরিটি কারাগারে বন্দিদের কাছে সিম ভাড়া দেয়ার ব্যবসা করেন এমন পাঁচ কর্মকর্তার নাম পেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। আপাতত তদন্তের স্বার্থে নাম প্রকাশ করছেন না তারা। তবে অভিযুক্ত পাঁচ সদস্যের কারা সিন্ডিকেটের মধ্যে একজন জেলার, দু’জন ডেপুটি জেলার ও দু’জন জামাদার রয়েছেন বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে হাইসিকিউরিটি কারাগার থেকে মোবাইল ফোনে এমএমএস এর মাধ্যমে জনৈক বন্দি তার স্ত্রীর কাছে নির্যাতনের ক্ষত চিহৃসহ একাধিক ছবি পাঠিয়েছেন। স্ত্রী ছাড়াও একাধিক জায়গায় ওই সব ছবি পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা সূত্র।

ছবিগুলো পাঠিয়ে কারা সিন্ডিকেট নির্যাতিত ওই বন্দির পরিবারের কাছে ৫০ হাজার টাকা চেয়েছে বলে অনুসন্ধানে জানতে পেরেছে গোয়েন্দা সূত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, ইতোপূর্বে কারাগারে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করা বন্দিরা নির্যাতনে নিহত হয়েছেন না হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন তা তদন্তের জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কারাগারের ভেতর থেকে বাইরের আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে বন্দিদের মোবাইলে কথোপকথনের ছবি লেনদেন করার কারণে তিন জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা সম্পর্কে ধারণা অনেকটাই স্পষ্ট হচ্ছে। ফলে কারা সিন্ডিকেটের মধ্যে কোন জঙ্গি আছে কিনা তাও তদন্তের দাবি উঠতে পারে। তবে বিষয়টি নিয়ে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে তোলপাড় পড়ে গেছে।

এ প্রসঙ্গে গাজীপুরের পুলিশ সুপার আব্দুল বাতেন বলেন, এমন একটি বিষয়ে তদন্ত চলছে। কিন্তু কোন মন্তব্য করা যাবে না।

তবে ভাল সফলতা আছে বলে মন্তব্য করেন পুলিশ সুপার।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে