Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ৬ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.8/5 (39 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৩-০৪-২০১৪

হোয়াটসঅ্যাপ উন্মাদনা এবার লোকসভা ভোটে

রাইসুল ইসলাম


হোয়াটসঅ্যাপ উন্মাদনা এবার লোকসভা ভোটে

কলকাতা, ০৪ মার্চ- আর কটা দিন। তারপরই লোকসভা নির্বাচন। ঘুম নেই ভারতের রাজনীতিবিদদের চোখে। চষে বেড়াচ্ছেন কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, হিমাচল থেকে ‍অরুণাচল পর্যন্ত।

বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশে জমে উঠেছে ব্যাপক প্রচারণা যুদ্ধ। মাঠে-ময়দানে প্রচারণা তো চলছেই। বাদ নেই ইন্টারনেট ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমও।

তবে এতদিন যারা ইন্টারনেটে প্রচারণার মাধ্যম হিসেবে বুঝতেন ফেসবুক ও টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে, ভারতের লোকসভা নির্বাচনে তারা দেখবেন হোয়াটসঅ্যাপে জয়জয়কার।

এবারের লোকসভা ভোটে প্রকৃত খেলোয়াড় মোবাইল ম্যাসেজিং সার্ভিস হোয়াটস অ্যাপ; বিশেষজ্ঞদের ধারণা এমনটাই।

যদিও ১৯ বিলিয়ন ডলারে জুকারবার্গের কাছে বিক্রি হওয়ার আগে অনেকটা অপরিচিতই ছিল হোয়াটসঅ্যাপ।

অনেকে ভুরু কুঁচকে বলেছিলেন, সামান্য একটা অ্যাপের জন্য মূল্যটা অনেক বেশি!

কেউ কেউ বলে ফেললেন, অল্প বয়সে ধনী হয়ে পাগল হয়ে গেছে ছোকড়া (জুকারবার্গ)। না হলে কেউ কি একটা সামান্য অ্যাপের জন্য এত বেশি দাম দেয়!

তবে ছোকড়া যে ভুল করে নি সেটা বুঝিয়ে দিতেই যেন লোকসভা ভোটে খেল দেখাচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ।

হোয়াটসঅ্যাপ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ব্যক্তিগত কিংবা গ্রুপ ম্যাসেজিংয়ের মাধ্যমে নিজেদের প্রচারণাকে সহজেই পৌঁছানো যায় ভোটারের দ্বারে, খুব তাড়াতাড়িই বিষয়টি বুঝে গেছেন ভারতের চতুর রাজনীতিকরা!

তবে ভোটারদের কাছে পৌঁছানোর ব্যাপারে হোয়াটসঅ্যাপের কার্যকারিতার দিকটি নাকি শীর্ষ নেতৃত্বের আগে অনুধাবন করতে পেরেছিলেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। পরিস্থিতি বুঝে তাই হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর খুলতে দেরি করেনি প্রধান দুই দল কংগ্রেস ও বিজেপি।

হোয়াটসঅ্যাপের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মতো ইন্টারনেট প্রোফাইল লাগে না। ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রয়োজন থাকলেও প্রয়োজন নেই কোনো সার্চ ইঞ্জিনের।
 
ভোটারদের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া পাওয়ার সুযোগ থাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় তাই এ মুহূর্তে সবচেয়ে কার্যকর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ।
 
উড়িষ্যা, দিল্লি এবং রাজস্থানের রাজনীতিকেরা ইতোমধ্যেই তাদের প্রচারণায় ব্যাপকভাবে হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহার শুরু করেছেন। জনপ্রতিনিধিরা বলছেন, ভোটারদের তাৎক্ষণিক সেন্টিমেন্ট বুঝতে হোয়াটসঅ্যাপের জুড়ি নেই।
 
এ ছাড়া অপেক্ষাকৃত সহজ ব্যবহার পদ্ধতির কারণেও হোয়াটসঅ্যাপ টেক্কা দিচ্ছে প্রতিদ্বন্দ্বী সোস্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলোকে।

হোয়াটসঅ্যাপে মুগ্ধ ভারতের এক এমপি বলেন, শুধু মেসেজ করা জানলেই হবে। কোনো সামাজিক যোগাযোগ প্রোফাইল বা অন্য কিছুতে লগইন করতে হবে না।

তাহলে দেখা যাচ্ছে, ১৯ বিলিয়ন ডলারে হোয়াটসঅ্যাপ কিনে ভুল করেননি জুকারবার্গ!

আপনি কী বলেন!

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে