Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১১ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.6/5 (9 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১২-২০১২

গোলাম আযম গ্রেফতার: ব্লগ-ফেসবুকে তোলপাড়

গোলাম আযম গ্রেফতার: ব্লগ-ফেসবুকে তোলপাড়
জামায়াতের সাবেক আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের গ্রেফতার আজকের প্রধান আলোচিত বিষয়। এই আলোচনা চলছে মাঠে ময়দানে, চায়ের টেবিলে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে- সর্বত্র। তবে সম্ভবত এসব জায়গার আলোচনা ছাপিয়ে গেছে-ব্লগ, ফেসবুক ও টুইটারে। শত শত নয়, হাজার হাজার নয়- লাখ লাখ মন্তব্য এসেছে এ বিষয়ে। বিশ্বের নানা প্রান্তে বসবাসকারী বাংলাদেশীরা এই বিষয়ে মন্তব্য করেছেন।
 
মন্তব্য এসেছে পক্ষে-বিপক্ষে। তবে অশালীন মন্তব্যই বেশি। কেউ গোলাম আযমকে গালাগাল করেছেন, কেউ সরকারকে। তবে অনেকে নিজস্ব মন্তব্য করেছেন। আর এসব মন্তব্য যে রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে লেখা-তা মোটাদাগে টের পাওয়া যায়।
 
বুধবার দুপুরে গোলাম আযম গ্রেফতারের পর থেকেই আনন্দমাখা স্ট্যাটাসের ছড়াছড়ি শুরু হয় ফেসবুকে। উচ্ছ্বাসের মাত্রা বোঝাতে অনেকেই দিনটিকে ‘ঈদের দিন’ বলেও স্ট্যাটাস দিয়েছেন। অনেকে আবার বলেছেন, দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্ন পূরণ হলো। কেউ কেউ আবার গোলাম আযমের ফাঁসির জল্লাদ হওয়ার আগ্রহের কথাও লিখে জানিয়েছেন।
 
তবে গোলাম আযমের পক্ষেও অনেক স্ট্যাটাস দেখা গেছে ফেসবুকে। কেউ কেউ সরকারের সমালোচনা করে স্ট্যাটাস লিখেছেন। দুয়েকজন আবার গোলাম আযমের মুক্তির দাবিতে হরতালের আহবানও জানিয়েছেন ব্লগে।
 
সামহোয়ার ইন ব্লগে রাসেল আরেফিন লিখেছেন,‘‘এখনই সময় আবার সেই আওয়াজ তোলার। আসুন সবাই মিলে আবার সেই একই স্লোগানে চারপাশ মুখরিত করে তুলি। শহীদ জননী জাহানারা ইমামের অসমাপ্ত কাজ শেষ করার এখনই সময়।’’
 
অনেকেই লিখেছেন, “গোলাম আজমের ফাঁসি চাই। ”
 
ঘুনেপোকা নামক এক ব্লগার লিখেছেন,‘‘অধ্যাপক গোলাম আজম রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বৈ কিছু না। তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ প্রমাণ না হওয়া পর্যন্ত তিনি নির্দোষ। কাজেই এখন পর্যন্ত গোলাম আযম আমার কাছে ভালো মানুষ।’’
 
জাহিদ রেজা নূর ফেসবুকে লিখেছেন, “গোলাম আযম তার মৃত্যুর আগে যেনো তার শাস্তি পায় এই কামনা করি। আজকের দিনটি অসাধারণ দিন। ঐতিহাসিক দিন। আজ শহীদদের আত্মা একটু হলেও শান্তি পাবে।”
 
রতন মজুমদার নামের এক শিক্ষক স্ট্যাটাস দিয়েছেন, “স্বাধীন বাংলাদেশের মাটি আজ পবিত্র হলো। ৩০ লক্ষ শহীদের আত্মা আজ শান্তির নিঃশ্বাস নিল, ইজ্জত হারানো দুই লক্ষ মা-বোন আজ দীর্ঘশ্বাস নিল। ইতিহাস যে কাউকে ক্ষমা করে না আজ সেটা প্রমাণিত হলো।”
 
এছাড়াও গোলাম আজমের জেলযাত্রার ছবি ব্লগ এবং ফেসবুকে শেয়ার করে উল্লাস প্রকাশ করেছেন অনেকেই।
 
গোলাম আজমের উদ্দেশ্যে খোলা চিঠি মতো করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন আখতারুজ্জামান আজাদ। তিনি লিখেছেন, ‘‘গোলাম আযম, কলাবরেটর্স অর্ডারে বাহাত্তরেই তোমার ফাঁসি হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। ৭২ থেকে ২০১২-৪০টা বছর বেশি বেঁচে ফেলেছ! এবার এই ৪০ বছর বেশি বাঁচার কাফফারা দাও আগে! এই ৪০ বছরে বাংলার কয় ঘনফুট অক্সিজেন নিয়েছ? কত গ্যালন জলপান করেছ? কত বস্তা চাল খেয়েছ? কয়খানা লুঙ্গি পরেছ? একে একে তোমাকে প্রত্যেকটার পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসাব দিতে হবে! আজ তোমার কেয়ামত শুরু, বিনা হিসাবে তোমাকে এক পাও আগাতে দেয়া হবে না!”
 
ব্লগ এবং ফেসবুকে মন্তব্য করার পাশাপাশি অনেকেই আবার বিভিন্ন বই এবং পত্রিকার কপিও পেস্ট করেছেন ফেসবুকে। একাত্তরের সময়কালীন দৈনিক সংগ্রামে গোলাম আযমের বিভিন্ন বক্তব্য এবং একাত্তর পরবর্তী সময়ে তার কিছু কর্মকাণ্ডের দলিলাদিও ছাড়া হয়েছে অনলাইনে।
 
তবে কাজল আব্দুল্লাহ নামের এক ব্লগার অবশ্য আশাবাদ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, ‘‘আজ এই শকুনদের পালের গোদা গোলাম আযম গ্রেফতার হয়েছে। এই আনন্দের পক্ষে আমরা উদ্বেলিত কিন্তু আমরা এখনো জয়োধ্বনি করতে পারছি না। আমরা তখনই জয়োধ্বনি করবো যখন এই বুড়ো শকুনসহ সবকয়জন রাজাকার শকুনদের দ্রুত বিচার করে শাস্তি  নিশ্চিত করা হবে। ভেঙে ফেলা হবে সব শ্বাপদের নখ।’’
 
ফেসবুকে অন্যরকম স্টেটাস দিয়েছেন খোমেনী ইহসান। তিনি লিখেছেন, “সব মিলিয়ে পরিস্থিতি বিরক্তিকর। রাজনীতির উপরে উপরে যাই চলুক না কেন, গোপনীয় সমঝোতাগুলো ইচ্ছেমতো ভেঙে ফেলাটা ঠিক না। কথা ছিল অধ্যাপক গোলাম আযম সাহেব ট্রাইব্যুনালে হাজির হবেন। বয়স ও ট্রাইব্যুনালে নিয়মিত হাজির থাকার শর্ত বিবেচনা করে তাকে জামিন দেয়া হবে। জামায়াতে ইসলামীর দিক থেকে এ গোপনীয় সমঝোতার জন্য যা যা করার করা হয়েছে। আগাম জামিনের আবেদনও জানানো হয়েছিল। কিন্তু আজ দ্বিতীয় পক্ষ কোনো কথাই রাখেনি। যা সুনির্দিষ্টভাবে প্রতারণা। রাজনীতিতে গোপন সমঝোতা লঙ্ঘনের এ অমার্জনীয় ব্যাপার সংঘটিত করার মাধ্যমে আসলে তারা নিজেদেরই গোপন সমঝোতার অযোগ্য প্রমাণ করল। ভবিষ্যতে সমঝোতার পথটিও বন্ধ করে দিল। তারা তো জানে প্রস্থান পথের জন্য তাদেরই সবচেয়ে বেশি গোপন সমঝোতা দরকার। সবাইকে মনে রাখতে হবে বুর্জোয়া রাজনীতিতে অদৃশ্য ব্যাপারগুলোই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।”
 
সর্বশেষ রাত সাড়ে নয়টায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এখনো নতুন নতুন মন্তব্য আসছে। গোলাম আযমকে নিয়ে একের পর এক মন্তব্য করছেন ব্লগার এবং ফেসবুক ইউজাররা।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে