Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ৬ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (22 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১২-২০১২

অতিরিক্ত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের দাবি

অতিরিক্ত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের দাবি
নারায়ণগঞ্জ থেকে: নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা রুটে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলনরত যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ ফোরামের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশের তাণ্ডবে ফোরামের নেতৃবৃন্দসহ কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। পুলিশের বেধড়ক লাঠিপেটা থেকে রেহাই পায়নি পথচারীরাও। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে জনতার ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এ সময় শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাড়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের দাবিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাওয়ের পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি পালনে যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ ফোরামের নেতাকর্মীরা সকাল ১১টায় চাষাঢ়ার শহীদ মিনারে সমবেত হন। সেখান  থেকে মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় অভিমুখে রওয়ানা দেয়ার প্রস্তুতি নিলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে পুলিশের বাগবিতণ্ডা শুরু হলে পুলিশ চারদিক দিয়ে শহীদ মিনারের ভেতরেই অতর্কিতে ব্যাপক লাঠিচার্জ শুরু করে। এ সময় আন্দোলনকারীরাও নেতৃবৃন্দের পুলিশি হামলা থেকে বাঁচতে পাল্টা ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করলে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। ফোরামের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাধারণ জনতাও যোগ দেয়। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে পুলিশ ৪ রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে বলে জানান সদর মডেল থানার ওসি মঞ্জুর কাদের। পুলিশের লাঠিচার্জে আহত যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ ফোরামের আহ্বায়ক রফিউর জানান, পুলিশের হামলায় তিনিসহ নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এবি সিদ্দিক, সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান, গণফোরাম জেলা সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন চুন্নু, জেলা ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন, বাসদ নেতা আবু নাঈম খান বিপ্লব, অমল আকাশ, হিমাংশু সাহা, ফারুক মহসিনসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছে। পরে ফোরাম নেতৃবৃন্দ আহতাবস্থায়ই ডিসি অফিস ঘেরাও এবং তাদের দাবি বাস্তবায়নে ডিসির কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
সংবাদ সম্মেলনে পুলিশকে দায়ী: এদিকে ঘটনার পর বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের হানিফ খান মিলনায়তনে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলন করেন যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ ফোরাম নেতৃবৃন্দ। তারা সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশকে দায়ী করেন এবং এর পেছনে পরিবহন সেক্টর নিয়ন্ত্রণকারী সিন্ডিকেট কিংবা সরকারের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা রাজাকার বাহিনীকে অভিযুক্ত করেন। সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের আহ্বায়ক রফিউর রাব্বী বলেন, বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের দাবিসহ বিভিন্ন দাবিতে চাষাঢ়ায় শহীদ মিনারে সমাবেশ শেষে আমরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদানের জন্য রওয়ানা দেই। কিন্তু পুলিশ কোন ধরনের উস্কানি ছাড়াই আমাদের মিছিলের লোকজনদের ওপর চড়াও হয় এবং বেধড়ক লাঠিপেটা করে। রাব্বী বলেন, আমরা এ ঘটনার পর জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করে স্মারকলিপি প্রদান ও ডিসি অফিসের সামনে শান্তিপূর্ণ অবস্থান করি। আগামী ৩১শে জানুয়ারির মধ্যে আমাদের উপর হামলা করা পুলিশ সদস্যদের শাস্তি প্রদান ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহার করা না হলে হরতালসহ লাগাতার কর্মসূচি পালন করা হবে। সংবাদ সম্মেলনে আহতদের উপস্থিত করা হয়। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক নেতা মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, তরিকুল সুজন প্রমুখ।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে