Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১১ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.7/5 (53 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-২২-২০১৪

ভারতে গৃহপরিচারিকারা নির্যাতিত হচ্ছে: আইএলও

ভারতে গৃহপরিচারিকারা নির্যাতিত হচ্ছে: আইএলও

নয়াদিল্লী, ২১ ফেব্রুয়ারী- আইনী কোনো সুরক্ষা ব্যবস্থা না থাকায় ভারতের মধ্যবিত্ত সমাজে বিপুল সংখ্যক গৃহপরিচারিকা প্রতিনিয়ত নির্যাতন, যৌন হয়রানি ও মানবাধিকার বঞ্চিত হচ্ছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংগঠন আইএলও।

বুধবার আইএলও বলেছে, ১৯৯০ সালের পর থেকে ভারতীয় সমাজে মধ্যবিত্ত শ্রেণীর বিকাশ ঘটেছে।এ সমাজে নারীদের মানস্মমত চাকরির সুযাগ সৃষ্টি হওয়ায় সেখানে গৃহপরিচারিকার চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকে।

২০০১ সাল থেকে ২০১০ সালের মধ্যে কাজের মেয়ের চাহিদা বা এ পেশার হার ৭০ শতাংশ বেড়েছে। দেশটিতে বর্তমানে প্রায় এক কোটি পেশাদার গৃহপরিচারকা রয়েছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে আইএলও’র পরিচালক টাইন স্টেয়ামোস বলেন, “তারা ভারতে একটি বিশাল অনানুষ্ঠানিক খাত। তারা দৃষ্টির আড়ালে রয়েছে।তাদের কোনো আইনি সুরক্ষাও নেই।”

তিনি আরো বলেন, “শ্রমিক অধিকারের ক্ষেত্রে সামাজিক ন্যায় বিচার একটি মৌলিক মানবিক বিষয়। আমাদের উচিত মন মানসিকতার পরিবর্তন ঘটানো এবং এসব পেশার মানুষকে সঠিক মর্যাদা দেয়া। আমাদের জীবনযাত্রার সঙ্গে মিল রেখে তাদের জন্য একটি জীবনমান ঠিক করে দেয়া।”

অন্যান্য পেশার শ্রমিকদের মতো গৃহপরিচারকা হিসেবে নিয়োজিত শ্রমিকরা বেতন-ভাতার ক্ষেত্রে কোনো মানসম্মত বোঝাপড়ায় আসতে পারে না। চিকিৎসা, অবসর ভাতার মতো কল্যাণমূলক সুবিধাগুলোও তারা পায় না।

আইন ও নিয়ম-নীতি না থাকার কারণে গৃহস্থালির কাজে নিয়জিত মধ্য বয়সী নারীরা ব্যতিক্রমীভাবে পাচারেরও শিকার হয়। যদিও বর্তমান যুগে অন্য কোনো পেশায় এ ধরনের সংস্কৃতি নেই।

গত নভেম্বরে ৩৫ বছর বয়সী এক নারী গৃহপরিচারিকাকে হত্যার দায়ে রাজধানী নয়াদিল্লি থেকে গ্রেপ্তার করা হয় এক এমপি ও তার স্ত্রীকে। পুলিশ জানায়, এমপি ও তার স্ত্রী ওই নারীকে মারধর করা এমনকি গরম শিকের ছ্যাঁকা দিত। অহরহ অমানবিক অত্যাচার করত।

এর আগে অক্টোবরেও ১২ বছর বয়সী কাজের মেয়েকে মারধর, না খাইয়ে রাখা এবং বন্দি রাখার দায়ে এক বিমানবালাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

২০০৯ সালে ভারত সরকার গৃহপরিচারিকাদের সুরক্ষায় ‘ন্যাশনাল পলিসি অন ডমেস্টিক ওয়ার্কার্স’ নামক এক কৌশল নেয়। সেখানে ন্যূনতম মজুরি, শ্রমঘণ্টা, কাজের ধরণ, সামাজিক নিরাপত্তা শর্ত এবং শ্রমিক সংগঠন সৃষ্টির অধিকার রাখা হয়। তবে মন্ত্রিসভায় ওই কৌশল এখনো অনুমোদন পায়নি।

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে