Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ৫ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (25 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০২-১২-২০১৪

ইয়াসমীন মুশতারির ব্যস্ত প্রহর

জয়ন্ত সাহা


ইয়াসমীন মুশতারির ব্যস্ত প্রহর

তিনটি একক অ্যালবাম নিয়ে এখন দারুণ ব্যস্ত কণ্ঠশিল্পী ইয়াসমীন মুশতারি। নজরুলসংগীত, আধুনিক ও গজলের দুটি অ্যালবাম প্রকাশের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

ইয়াসমীন মুশতারি জানান, মৌলিক গান নিয়ে সাজানো হচ্ছে আধুনিক অ্যালবাম। অ্যালবামের সংগীতায়োজন করছেন শান্তনু সরকার। নজরুলসংগীত ও গজলের অ্যালবামে সংগীতায়োজন করেছেন এ সময়ের ব্যস্ত কজন সংগীত পরিচালক।

তিনি বলেন, “একটু ভিন্ন আঙ্গিকের গজল নিয়ে সাজানো অ্যালবামটির কাজ অনেকদিন আগেই শেষ হয়েছে। এটি আমার প্রথম গজলের অ্যালবাম। তাই বাড়তি সতর্কতার জন্য কিছুদিন সময় নিলাম।”

টিভি চ্যানেলগুলোর বিভিন্ন আয়োজনেও ব্যস্ত ইয়াসমীন মুশতারি।

এখন নজরুলসংগীত চর্চা কেমন চলছে, চর্চার ধারা কি ঠিক আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “নতুন প্রজন্মের নজরুলসংগীত শিল্পীরা বেশ ভালো করছে। তাদের গায়কীও চমৎকার। মূল সুরের প্রতি মনযোগী হয়েছে তারা। এটা ভালো লক্ষণ।”

নতুন প্রজন্মের প্রতি তার পরামর্শ, “প্রথমেই নজরুলসংগীতের মূল সুর ভালোভাবে শুনে নিতে হবে। পুরনো রেকর্ডগুলো জোগাড় করে নিতে হবে। এতে একদিকে যেমন বিকৃতিরোধ হবে, নজরুলচর্চাও গতিশীল হবে।”

তবে নজরুলসংগীত নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষার সমালোচনা করে তিনি বলেন, “পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে নজরুলের মূল সুর ও ভাবকেই বিকৃত করে ফেলছে কেউ কেউ। আমার মনে হয়, ওরা গানগুলোর অরিজিনাল রেকর্ডিং কখনও শোনেনি।”

নজরুল একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা কবি তালিম হোসেনের কনিষ্ঠ কন্যা ইয়াসমীন মুশতারির জন্ম পঞ্চাশের দশকে। সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বড় হয়েছেন। তবে তার শুরুটা হয়েছিল নাচ দিয়ে। দীর্ঘদিন তালিম নিয়েছেন আল্পনা মমতাজ ও আমানুল হকের কাছে। নাচের ছাত্রী হিসেবে তিনি বেশকটি গীতিনাট্যে অংশ নেন। এর মধ্যে আমানুল হকের নির্দেশনায় ‘প্রজাপতির দেশে’ গীতিনাট্যে তিনি প্রধান চরিত্র রাজকুমারীর ভূমিকায় নেচেছিলেন।

এরপর তিনি ভর্তি হন গানের স্কুলে। সেখানে তিনি নজরুলসংগীতের পাশাপাশি তালিম নিয়েছেন উচ্চাঙ্গসংগীতে। একাডেমিতে ভালো ফলাফলের জন্য শিক্ষা সমাপনীতে পেয়েছেন ‘সুরসাকি স্বর্ণপদক’। দীর্ঘ সংগীতজীবনে তিনি তালিম নিয়েছেন ওস্তাদ ফুল মোহাম্মদ, আখতার সামদানী, ওস্তাদ জাকির হোসেন, সুধীন দাশ, লুৎফর রহমান ও সোহরাব হোসেনের কাছে।

নওয়াজেশ আলী খানের ‘পাঁচকন্যা’ ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিটিভিতে শিশুশিল্পী হিসেবে অভিষেক হয় ইয়াসমীন মুশতারির। এ অনুষ্ঠানে তিনি বড়বোন পারভীন মুশতারি ও আবিদা সুলতানার ‘বন্দিশ’-এর সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছিলেন। এর কয়েক বছর পর একই অনুষ্ঠানে প্রণব দাসের সংগীতায়োজনে তিনি কণ্ঠশিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। সে অনুষ্ঠানে তিনি গেয়েছিলেন ‘চোখে যদি চোখ লাগে’ গানটি। এরপর তিনি ‘বর্ণালী’ অনুষ্ঠানেও নিয়মিত সংগীত পরিবেশন করেছেন।

ইয়াসমীন মুশতারির প্রথম একক অ্যালবাম ‘সেদিনের এক বিকালে’ প্রকাশিত হয় আশির দশকে। ১২টি মৌলিক আধুনিক গান দিয়ে সাজানো হয়েছিল অ্যালবামটি। এরপর ‘হারানো হিয়া’, ‘সেই মিঠে সুরে’, ‘প্রাণের মেলায়’, ‘মহুয়া বনে’, ‘মধুহাসিনী’ ও ‘রমজানের ঐ রোজার শেষে’-সহ দশটি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে তার।

সংগীত

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে