Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০১৯ , ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (21 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১১-২০১২

তিস্তার ব্যর্থতায় আটকে আছে ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক

রাহীদ এজাজ


তিস্তার ব্যর্থতায় আটকে আছে ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক
ঢাকা শীর্ষ বৈঠকের পর চার মাস পেরিয়ে গেলেও তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি সইয়ে এতটুকু অগ্রগতি হয়নি। অভিন্ন এ নদীটির চুক্তি সইয়ের প্রক্রিয়া না এগোনোয় দুই প্রতিবেশীর সম্পর্কের অগ্রগতিও অনেকটা থমকে আছে।
হাসিনা-মনমোহন শীর্ষ বৈঠকের পর দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ের বৈঠকগুলো নিয়মিতভাবে হলেও উল্লেখযোগ্য কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ঢাকার কর্মকর্তাদের মতে, ‘তিস্তার ব্যর্থতা’য় অনেকখানি থমকে গেছে দুই নিকট প্রতিবেশীর সম্পর্কের অগ্রযাত্রা।
ঢাকা-দিল্লি সম্পর্কের অগ্রগতি বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা গত সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, দুই দেশের বিভিন্ন পর্যায়ের বৈঠকগুলো নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু তিস্তা চুক্তি, স্থলসীমান্ত বাস্তবায়ন-সংক্রান্ত প্রটোকল কার্যকর, ট্রানজিট প্রটোকল বাস্তবায়ন, ১০০ কোটি ডলার ঋণচুক্তির প্রকল্প বাস্তবায়নসহ প্রধান বিষয়ে তেমন অগ্রগতি নেই।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অন্য এক কর্মকর্তা বলেন, অমীমাংসিত বিষয়গুলো সুরাহা না হওয়ায় দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের গত কয়েক মাসে অগ্রগতি হয়নি। এর পাশাপাশি টিপাইমুখ বাঁধ প্রকল্প নির্মাণে ভারত যৌথ বিনিয়োগ চুক্তি সই করায় দুই দেশের মধ্যে খানিকটা দূরত্ব তৈরি হয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশের উদ্বেগ দূর করতে ভারতকে একটি যৌথ সমীক্ষা চালানোর অনুরোধ জানিয়েছে ঢাকা।
দিল্লি ও কলকাতায় কর্মরত বাংলাদেশের একাধিক কূটনীতিক গতকাল এ প্রতিবেদককে বলেছেন, তিস্তা চুক্তি নিয়ে অগ্রগতি না হওয়ায় অমীমাংসিত অন্য বিষয়গুলোর সুরাহার ক্ষেত্রেও তেমন কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। অভিন্ন নদীর পানি চুক্তিটি নিয়ে বাংলাদেশের হতাশা ভারত অনুধাবন করতে পারছে। তবে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতার কারণে দিল্লি কোনো ফলপ্রসূ পদক্ষেপও নিতে পারছে না।
আমাদের নয়াদিল্লি প্রতিনিধি জানান, অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে কংগ্রেসের সঙ্গে শরিক তৃণমূল কংগ্রেসের সাম্প্রতিক দূরত্বের কারণে তিস্তা নিয়ে অগ্রগতি হচ্ছে না। তা ছাড়া কল্যাণ রুদ্রের প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার আগে এ নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে আলাপ করতে আগ্রহী নয় পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকার। এ পরিস্থিতিতে ভারতের নীতিনির্ধারকদের মধ্যেও হতাশা বিরাজ করছে। কারণ, তিস্তা চুক্তিতে অগ্রগতি না হলে ট্রানজিট বাস্তবায়ন দীর্ঘায়িত হবে বলে মনে করে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট সরকার। অন্যদিকে, ছিটমহল ও অপদখলীয় জমি হস্তান্তরের ক্ষেত্রে সময়সীমা নির্ধারণের আগে বিষয়টি নিয়ে সংবিধান সংশোধনের প্রয়োজন আছে বলে মনে করেন ভারতীয় আমলারা।
মনমোহনের গুরুত্বেও কাজ হচ্ছে না: গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকায় তিস্তা চুক্তি সই না হওয়ায় তাঁর সফরকে ঘিরে ‘প্রত্যাশার সব আলো’ ম্লান হয়েছিল হতাশার কালো ছায়ায়। বাংলাদেশের এই হতাশা বুঝতে পেরে বিষয়টি নিজে তদারকির দায়িত্ব নেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং—এমনটি জানিয়েছেন দিল্লিতে কর্মরত বাংলাদেশের এক কূটনীতিক। তিনি বলেন, ‘ঢাকা শীর্ষ বৈঠকের পর থেকেই মনমোহন সিং নিয়মিতভাবে কেন্দ্রীয় পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ রাখছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে বিশেষ দূত পাঠিয়েছেন। এর পরও এ নিয়ে অগ্রগতি নেই।
এ প্রসঙ্গে কলকাতার একটি কূটনৈতিক সূত্র জানায়, মনমোহন সিং অন্তর্বর্তীকালীন তিস্তা চুক্তি সইয়ে গুরুত্ব দিলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সমীক্ষা ও তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ ছাড়াও এ চুক্তি সই করতে সম্মতি দেবেন না। এ জন্য মমতা রাজ্যের অন্যতম নদীবিশেষজ্ঞ কল্যাণ রুদ্রের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করেছেন। ওই কমিটি গত মাসের শেষে প্রতিবেদন জমা দেবে বলে জানালেও নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে পারেনি। কমিটি প্রতিবেদন চূড়ান্ত করতে আরও এক মাস সময় চেয়েছে। আর কমিটি প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর তা পর্যালোচনার জন্য আরও কয়েক মাস লাগতে পারে বলে রাজ্য সরকারের সূত্রগুলো আভাস দিয়েছে—এমনটা মন্তব্য বাংলাদেশের ওই কূটনীতিকের।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কমিটির প্রধান, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কল্যাণ রুদ্র গতকাল মঙ্গলবার রাতে মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের প্রতিবেদন তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে। খুব শিগগির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারকে প্রতিবেদনটি জমা দেওয়ার আশা করছি।’
তবে কমিটির অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে, তিস্তা নদীসংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য না পাওয়ায় ডিসেম্বরের নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে প্রতিবেদনটি চূড়ান্ত করা যায়নি। সম্প্রতি এ তথ্যগুলো পাওয়ায় এ মাসেই প্রতিবেদনটি চূড়ান্ত হবে।
প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শেষ মুহূর্তে বেঁকে বসায় মনমোহনের সফরে বহুল প্রতীক্ষিত চুক্তিটি সই হয়নি। মমতার ভাষ্য অনুযায়ী, খসড়া চুক্তিটি সম্পর্কে তাঁকে কেন্দ্রীয় সরকার জানায়নি। খসড়ায় বাংলাদেশকে যে পরিমাণ পানি দেওয়ার প্রস্তাব রয়েছে, তাতে বঞ্চিত হবে পশ্চিমবঙ্গ। তাই তিনি এ চুক্তির পক্ষে নন।
তিন চিঠিতেও সাড়া নেই: অভিন্ন নদীর পানি বণ্টন বিষয়ে আলোচনার লক্ষ্যে যৌথ নদী কমিশনের (জেআরসি) বৈঠক অনুষ্ঠানের আয়োজনের জন্য গত ৬ সেপ্টেম্বরের পর অন্তত তিনবার ভারতের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ৫ জানুয়ারি পাঠানো হয় সর্বশেষ চিঠিটি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, সেই প্রস্তাবে এখনো ভারত সাড়া দেয়নি। এ প্রসঙ্গে তিনি উল্লেখ করেন, তিস্তার পানি বণ্টনে চুক্তি সইয়ের প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে ভারত ডালিয়া পয়েন্টে বাংলাদেশের কাছে ১৯৯৫-৯৬ সাল থেকে পরবর্তী ১০-১৫ বছরের পানিপ্রবাহের উপাত্ত চেয়েছিল। এ উপাত্ত জেআরসির বৈঠকে ভারতকে দেওয়া হবে বলে এরই মধ্যে জানানো হয়েছে। এর পরও যৌথ নদী কমিশনের বৈঠক আয়োজনের ব্যাপারে ভারত কোনো জবাব পাঠায়নি।
তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন করে নদীর পানিপ্রবাহ বিনিময় হলে তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি সইয়ের প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত হবে।
অনিশ্চিত ছিটমহল ও অপদখলীয় জমিবিনিময়: গত বছর ঢাকায় হাসিনা-মনমোহন শীর্ষ বৈঠক শেষে অনেকটা নাটকীয়ভাবে সই হয় ১৯৭৪-এর স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের প্রটোকল। কারণ, অপদখলীয় জমি হস্তান্তরের সময়সীমা বেঁধে দিলেও ছিটমহল বিনিময়ের কোনো সময়সীমা নির্ধারণ করতে চায়নি ভারত। ওই বছরের মার্চে অপদখলীয় জমিবিনিময়ের কথা উল্লেখ করা হয় চূড়ান্ত প্রটোকলে। কিন্তু বাংলাদেশ যুক্তি দেখায়, অপদখলীয় জমির পাশাপাশি ছিটমহল বিনিময়েরও সময়সীমা বেঁধে দিতে হবে, তা না হলে প্রটোকলটি সই হবে না। এমন পরিস্থিতিতে প্রটোকলটি সইয়ের তালিকা থেকে বাদ পড়ে। কিন্তু শীর্ষ বৈঠক শেষে দুই নেতার একান্ত বৈঠকের ফাঁকে আকস্মিক নির্দেশনা আসে, বাংলাদেশের মত মেনে নিয়েছে ভারত, তাই এটিও সই হবে। পরে শেষ মুহূর্তে হাতে লিখে প্রটোকলে সংশোধনী আনা হয়। সংশোধনীতে বলা হয়েছে, একসঙ্গেই হবে ছিটমহল ও অপদখলীয় জমিবিনিময়।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, শীর্ষ বৈঠকের পর চার মাস পেরিয়ে গেছে, কিন্তু ছিটমহল ও অপদখলীয় জমিবিনিময় কবে থেকে শুরু হবে, তা নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। তা ছাড়া শিগগির এ নিয়ে কোনো আলোচনার সম্ভাবনাও নেই।
অগ্রগতি নেই ট্রানজিটেও: ‘তিস্তা চুক্তি না হলে ট্রানজিট নয়’—মনমোহন সিং গত সেপ্টেম্বরে ঢাকায় আসার আগে দিল্লিকে এ বার্তাই দেওয়া হয়েছিল। সে সময় খুব স্পষ্ট করে বলা হয়েছিল, তিস্তা চুক্তি সই হচ্ছে না, তাই সই হবে না ট্রানজিটের সম্মতিপত্র। এর পরও নৌ-প্রটোকলের আওতায় ট্রানশিপমেন্টের জন্য আখাউড়া-আশুগঞ্জ রুটে পরীক্ষামূলক চলাচল শুরু করে ভারতীয় যান। কিন্তু অবকাঠামো যথোপযুক্ত না হওয়ায় আপাতত সেটি চালু হচ্ছে না। তা ছাড়া এ বছরের মার্চে শেষ হচ্ছে নৌ-প্রটোকলের মেয়াদ। নবায়নের সময় প্রটোকলে মাশুল আদায়ের বিধান যুক্ত করতে চাইছে বাংলাদেশ। তাই অবকাঠামো উন্নয়নের পাশাপাশি মাশুল আদায়ের বিষয়টির সুরাহা না হলে দীর্ঘায়িত হতে পারে ভারতকে ট্রানজিট দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে