Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.7/5 (43 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০২-০৭-২০১৪

ভারতীয় রুপির বিপরীতে শক্তিশালী হচ্ছে টাকা

ভারতীয় রুপির বিপরীতে শক্তিশালী হচ্ছে টাকা

ঢাকা, ০৭ ফেব্রুয়ারী- ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসে টাকার বিপরীতে ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ কমেছে ভারতীয় রুপির দাম। রফতানির দিক বিবেচনা করলে এটি নেতিবাচক। তবে ভারতে রফতানির তুলনায় বাংলাদেশ আমদানি করে বেশি। এ কারণে সামগ্রিকভাবে টাকার দর বৃদ্ধি ইতিবাচক হিসেবে দেখা দিয়েছে।

মূলত ডলারের বিপরীতে টাকার শক্তিশালী অবস্থানের সময় রুপির দরপতনের কারণে এমন হয়েছে বলে মনে করছেন ব্যাংকাররা। তাদের মতে, দীর্ঘ মেয়াদে এ ধারা চলতে থাকলে রফতানিতে এর প্রভাব পড়তে পারে। যার সুবিধা পাবে ভারত।

সাধারণত ডলারকে ধরে আন্তর্জাতিক মুদ্রা বিনিময়ের হিসাব করা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ডলারের বিপরীতে টাকার শক্তিশালী অবস্থান বজায় থাকলেও ডিসেম্বর পর্যন্ত ছয় মাসে রুপির ব্যাপক দরপতন হয়েছে। গত ডিসেম্বর শেষে প্রতি ডলার কিনতে খরচ করতে হয়েছে ৬২ রুপি। অথচ জুন শেষে ৫৯ দশমিক ৮৫ রুপিতে ১ ডলার পাওয়া গেছে। এতে ছয় মাসে ডলারের বিপরীতে রুপির দরপতন হয়েছে ২ দশমিক শূন্য ১৫ রুপি, যা ৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ। আর গত ডিসেম্বর শেষে ৭৭ টাকা ৭৫ পয়সা দরে প্রতি ডলার পাওয়া গেছে। গত জুন শেষে প্রতি ডলারের দর দাঁড়িয়েছিল ৭৭ টাকা ৭৬ পয়সা। এ হিসাবে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬ মাসে টাকার বিপরীতে ডলারের দর বেড়েছে মাত্র ১ পয়সা। ডিসেম্বর শেষে প্রতি রুপি ১ টাকা ২৬ পয়সায় কেনা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. হাসান জামান বলেন, রফতানির তুলনায় ভারত থেকে আমদানি অনেক বেশি হয়। ফলে টাকার বিপরীতে ভারতীয় রুপির দরপতনের উপকার বাংলাদেশ বেশি পেয়েছে। এ ছাড়া ভারত থেকে আমদানির একটি অংশ রফতানি কাজে ব্যবহার্য বিভিন্ন কাঁচামাল ও যন্ত্রপাতি। ফলে টাকার শক্তিশালী অবস্থান এ মুহূর্তে খারাপ কিছু নয়। তবে পার্শ্ববর্তী দেশ হিসেবে ভারতের মূল্যস্ফীতির সঙ্গে আমাদের মূল্যস্ফীতির সম্পর্ক রয়েছে। এ ক্ষেত্রে তাদের মূল্যস্ফীতি বাড়লে আমাদের মূল্যস্ফীতি বাড়ার ঝুঁকি আছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আমদানি তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, ২০১২-১৩ অর্থবছরে বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশ মোট ৩ হাজার ৩৯৭ কোটি ডলারের সমপরিমাণ পণ্য আমদানি করেছে। এর মধ্যে ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ৪৭৪ কোটি ডলারের পণ্য, যা মোট আমদানির ১৬ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। আর গত অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট রফতানির পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৭০৩ কোটি ডলার। এর মধ্যে ভারতে রফতানি হয়েছে মাত্র ৫৬ কোটি ডলার মূল্যমানের পণ্য। এতে গত অর্থবছরে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৪১৮ কোটি ডলার, যা ৭৪৬ শতাংশ। এ কারণে ভারতীয় রুপির বিপরীতে টাকার শক্তিশালী অবস্থান বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের স্বস্তি দিয়েছে।

 

ব্যবসা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে