Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ , ৭ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (37 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২১-২০১৪

পারলৌকিক ক্রিয়া সম্পন্ন

মাসুম আলী


পারলৌকিক ক্রিয়া সম্পন্ন

কলকাতা, ২১ জানুয়ারি- জীবনের শেষ ৩০ বছর নিজের জীবন নিয়ে যেমন গোপনীয়তা রক্ষা করে ছিলেন সুচিত্রা সেন, তাঁর পারলৌকিক কাজেও ছিল অনুরূপ গোপনীয়তা। মেয়ে মুনমুন সেন মায়ের অন্তরালের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই সম্পন্ন করেছেন পারলৌকিক কাজ। সোমবার বালিগঞ্জের বেদান্ত নামের বাড়িতে সাধারণ মানুষ তো দূরের কথা, পরিচিতদের প্রবেশাধিকারও সংরক্ষিত ছিল। অনাড়ম্বর ছিল সেই আয়োজন।

‘বেদান্ত আবাসন’-এর ছাদে ছয় হাজার বর্গফুট এলাকাজুড়ে এই অনুষ্ঠান হয়। ছাদে সুচিত্রার ফ্ল্যাটের ওপরের অংশে একটি মন্দিরে আয়োজন করা হয়েছিল পারলৌকিক কাজ। পুরোহিত যুগল কিশোর শাস্ত্রী কাজটি সম্পন্ন করেন। বৈদিকমতে প্রায় দুই ঘণ্টা চলে এই আয়োজন। যুগল কিশোর বলেন, ‘উনি যেহেতু কন্যা, সে কারণে তিন রাত্রির পর শাস্ত্রসম্মতভাবে সব কাজ শেষ করেছেন মুনমুন সেন। এখন আমি প্রয়াতের চিতাভস্ম পূজা করে সেগুলো বিসর্জনের অনুমতি দেব।’

গতকাল ফুলে ফুলে ভরে উঠেছিল পুরো বাড়ি। ভক্তদের ফুল পৌঁছে গিয়েছিল সুচিত্রার ফ্ল্যাটে এবং পারলৌকিক কাজের নির্ধারিত স্থানে। এত দিন সুচিত্রার গুণমুগ্ধরা ফুল কিংবা উপহার আনলে তা প্রহরীদের ঘেরাটোপ পেরিয়ে কিছুতেই পৌঁছাত না মহানায়িকার কাছে, থেকে যেত বেদান্ত আবাসনের নিরাপত্তারক্ষীদের হেফাজতেই। সুচিত্রা সেনের পারলৌকিক কাজের আগে সেই কঠোর অনুশাসন কিছুটা কমল।

নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নিজের ফ্ল্যাট থেকে আবাসনের নিরাপত্তারক্ষীদের ফোন করে মুনমুন সেন জানতে চান, তাঁর মায়ের কোনো ভক্ত কি ফুল দিয়ে গিয়েছে? বেদান্তর গেটের সামনে তখন ফুলের স্তূপ। নিরাপত্তাকর্মীরা তা জানান মুনমুনকে। এর পরই মুনমুন নিরাপত্তাকর্মীদের হকচকিয়ে দিয়ে বলেন, ‘ওপরে মায়ের ঘরে ফুলগুলো দিয়ে এসো।’ তবে শর্ত ছিল, শুধু ফুলই যাবে। কোনো মালা নয়। অন্তরালে যাওয়ার পর থেকেই নিজের সব ছবি সুচিত্রা সরিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর তিন হাজার স্কয়ার ফুটের ফ্ল্যাট থেকে। সেখানে ছবি থাকত শুধু রামকৃষ্ণ ও সারদা দেবীর। তবে সুচিত্রার বেশ কিছু ছবি মুনমুন সেনের ফ্ল্যাটে ছিল। পারলৌকিক কাজ সামনে রেখে মুনমুনের ফ্ল্যাট থেকে সুচিত্রা সেনের সেই সব বড় আলোকচিত্র আনা হয় সুচিত্রার ফ্ল্যাটে, রাখা হয় নায়িকার খাটে। সামনেই বিছিয়ে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভক্তদের নিয়ে আসা ফুল।

মিষ্টি বিতরণ করছেন মুনমুন সেন। ছবি: ভাস্কর মুখার্জীরাষ্ট্রীয় কাজে ব্যস্ত থাকায় গতকাল সুচিত্রার পারলৌকিক কাজে উপস্থিত থাকতে পারেননি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মাধ্যমে ফুল পাঠিয়ে দিয়েছেন। পঞ্চায়েতমন্ত্রী অনুষ্ঠানস্থল থেকে বেরিয়ে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি বলেন, মহানায়িকার ইচ্ছা নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছেন তাঁর মেয়ে মুনমুন সেন। পরিবারের ইচ্ছায় ছোট্ট পরিসরে এই আয়োজন সারতে হয়েছে। আয়োজনে নাতনি রিয়া ও রাইমা সেন, পূর্ণদাস বাউলসহ সেন পরিবারের অন্যান্য সদস্য ছিলেন। এর পাশাপাশি বেদান্ত আবাসনে যে বাসিন্দারা নিকট প্রতিবেশী হয়েও কোনো দিন মহানায়িকাকে চোখের দেখা দেখেননি, তাঁদেরও গতকাল পারলৌকিক কাজে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তবে তাঁদের সংখ্যাও ছিল সীমিত।

মহানায়িকার পারলৌকিক কাজে সাধারণ মানুষের প্রবেশাধিকার না থাকলেও গতকাল সোমবার অনেকেই ভিড় করেছেন বাড়ির সামনে। বাড়ির নম্বর প্লেটের ঠিক সামনেই রাখা হয়েছিল ছোট্ট একটি ছবি। যাঁদের ফুল পৌঁছায়নি ভেতরের আয়োজনে, তাঁরা ওই ছবির সামনে ফুল দিয়ে, দীর্ঘশ্বাস ফেলে বিদায় নেন। পানিও দেখা গেল অনেকের চোখে।

 

 

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে