Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (3 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২১-২০১৪

নেতাদের কারণেই বিএনপি ব্যর্থ!

নেতাদের কারণেই বিএনপি ব্যর্থ!

ঢাকা, ২১ জানুয়ারি- নেতাদের কারণেই সরকারবিরোধী আন্দোলনে বিএনপি ব্যর্থ বলে মনে করছেন বিএনপির মাঠপর্যায়ের কর্মীরা। নেতাদের পলায়নপর মনোবৃত্তির কারণে কর্মীদের চাঙা করতে তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন। গণতন্ত্র অভিযাত্রার মতো চমত্কার কর্মসূচি সফল করা যায়নি নেতাদের অনুপস্থিতির কারণে। আজ সোমবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশে আসা মাঠপর্যায়ের কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এই মনোভাব পাওয়া গেছে। অনেক কর্মী মনে করেন, জামায়াতের সঙ্গে জোট করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির কাছে বিএনপির ইমেজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পাশাপাশি জামায়াতের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায় বিএনপির ঘাড়ে এসে পড়েছে। তবে শিগগিরই খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে সফল হবে বলে মনে করেন অধিকাংশ কর্মী ।

মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপির কর্মী শাহেদ আলী মনে করেন, সরকারের অসংখ্য ব্যর্থতা থাকা সত্ত্বেও বিএনপি সেগুলোকে কাজে লাগাতে পারেনি। তিনি বলেন, ‘বিএনপির জায়গায় আওয়ামী লীগ থাকলে কবেই সরকারকে ফেলে দিত!’

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থেকে আসা আরেক কর্মী বলেন, গত পাঁচ বছরে শেয়ারবাজার, পদ্মা সেতু, হল-মার্কসহ নানা কেলেঙ্কারিতে বিএনপি সঠিক ভূমিকা ও অবস্থান নিতে পারেনি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে জাতীয় সংসদে সরকারকে একরকম ওয়াকওভার দিয়ে মাঠে লড়াই করতে চেয়েছে। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারেনি।

জামায়াতের সঙ্গে জোট বিষয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে কর্মীদের কাছে। অনেকেই মনে করেন, জামায়াতের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায় বিএনপিকে নিতে হচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের কর্মী শাওন মনে করেন, ‘যতই বিএনপি দায় নেবে না বলুক না কেন, দায় অবশ্যই বিএনপির ওপর চলে আসে।’ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলিয়াসের মতে, সাধারণ মানুষের কাছে জামায়াতের নেতিবাচক এবং সন্ত্রাসী ইমেজ বিএনপির ওপর চলে এসেছে। বিএনপির সঙ্গে জোটে থাকার কারণেই জামায়াত এত সব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাতে সাহস পেয়েছে বলে মনে করেন তিনি। অন্যদিকে বনানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রদলের কর্মী মনে করেন, জামায়াত-শিবির বিএনপির সঙ্গে থাকায় আন্দোলনের শক্তি বেড়েছে। আন্দোলন নতুন মাত্রা পেয়েছে।

আজকের সমাবেশে জামায়াতকে না রাখায় খুশি অনেক নেতা-কর্মী। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রদলের কর্মী বলেন, ‘জামায়াত না থাকলেও আজকের সমাবেশ তো ছোট হয়নি! বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা যে আন্দোলনের প্রাণ, সেটা আমাদের অনেক নেতা বুঝতে ভুল করেছেন।’

মোহাম্মদপুরের স্বেচ্ছাসেবক দলের এক কর্মী বললেন, আন্দোলনের সময় বিএনপির নেতারাই মাঠে ছিলেন না। তাঁরা ‘অজ্ঞাত স্থান’ থেকে প্রেস বিজ্ঞপ্তি বা ভিডিওবার্তা পাঠিয়ে দায়িত্ব শেষ করেছেন। নেতারা মাঠে না এলে কর্মীরা মাঠে আসার সাহস কোথায় পাবেন?
বিএনপির আরেক কর্মী বলেন, ‘রাজনীতি করতে এলে জেল-জুলুম সইতে হবে। কিন্তু গ্রেপ্তারের ভয়ে পালিয়ে থাকলে আন্দোলন সফল হবে কীভাবে?’

চিটাগাং রোড থেকে আসা যুবদলের এক কর্মী প্রশ্ন করেন, ‘আন্দোলনে কয়জন নেতাকে খালেদা জিয়া পাশে পেয়েছেন? শুধু টেলিভিশন ক্যামেরার সামনে এসে আন্দোলনে থাকার অভিনয় করলে আন্দোলন সফল হবে কীভাবে?’

নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপির লাভ না ক্ষতি হয়েছে, সেটা নিয়ে পরস্পরবিরোধী মন্তব্য পাওয়া গেছে। কেউ কেউ বলছেন, নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপির বড় অর্জন নির্বাচন কমিশনের আসল চেহারা প্রকাশ করতে পেরেছে। নির্বাচন কমিশন যে ‘সরকারের আজ্ঞাবহ’ সেটা প্রমাণ হয়ে গেছে। অন্যদিকে আরেক পক্ষের মতে, বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিয়ে ‘সরকারকে ওয়াকওভার’ দিয়েছে। খুব সহজেই আওয়ামী লীগ নতুন সরকার গঠন করতে পেরেছে। এখন সরকারকে সরানো একটু কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করেন অনেকে। তবে সবারই প্রত্যাশা, বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া সারা দেশে সফর করলে কর্মীদের মনোবল চাঙা হবে। ‘আন্দোলনে ব্যর্থ এবং পলায়নপর নেতাদেরকে’ ব্যর্থতার গণ্ডি থেকে বের করে সংগঠন গোছাতে পারলে আবারও বিএনপি ক্ষমতায় আসবে বলে বিশ্বাস করেন এসব তৃণমূল কর্মী।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে