Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (24 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২০-২০১৪

‘ট্রান্সশিপমেন্টের বাস্তবায়ন চায় বাংলাদেশ’

‘ট্রান্সশিপমেন্টের বাস্তবায়ন চায় বাংলাদেশ’

ঢাকা, ২০ জানুয়ারি- ভারতের সঙ্গে ১৯৯৯ সালে করা বাণিজ্য চুক্তি ‘ট্রান্সশিপমেন্টের’ পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন চেয়েছেন নতুন সরকারের বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়া প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ।  

ভারত সফররত মন্ত্রী কলকাতাভিত্তিক ইংরেজি দৈনিক ‘দি টেলিগ্রাফে’ দেয়া এক সাক্ষাৎকারে একথা জানান।

তিনি বলেন, ভারতের রাস্তা ব্যবহার করে আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে আঞ্চলিক সহযোগিতা ও যোগাযোগ বৃদ্ধি করতে চায় বাংলাদেশ।

“দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ একটি বড় ‘ইস্যু’ এবং এটির উন্নয়নে কাজ করে যাব। আমাদের পণ্য ভারতের ভেতর দিয়ে আফগানিস্তান ও শ্রীলঙ্কায় পাঠাতে চাই, ঠিক যেভাবে আমরা নেপাল ও ভুটানে তা পাঠাই।”

“একইভাবে বাংলাদেশের ভেতর দিয়েও ভারতীয় মালামাল পরিবহনের পক্ষে আমরা। এ বিষয়ে ১৯৯৯ সালে আমরা একটি চুক্তিতে পৌঁছেছিলাম।”

সার্ক দেশভুক্ত দেশগুলোর মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকের জন্য ভারতে অবস্থান করছেন তোফায়েল। এই সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গেও দেখা করেছেন তিনি।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর তোফায়েল আহমেদই নতুন সরকারের প্রথম মন্ত্রী যিনি ভারত সফর করছেন।

এর আগে ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত তোফায়েল প্রথমবার বাণিজ্য মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তার মন্ত্রিত্বেই ১৯৯৯ সালে ভারত-বাংলাদেশ ‘ট্রান্সশিপমেন্ট’ চুক্তি হয়।
এই চুক্তি অনুযায়ী, একটি নির্দিষ্ট মাশুলের বিনিময়ে বাংলাদেশের রাস্তা ব্যবহার করে মূল ভূ-ভাগ থেকে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশগুলোতে পণ্য পাঠাতে পারবে ভারত। আর বাংলাদেশি ট্রাক ব্যবহার করে এই পণ্য পরিবহনের কাজ চলবে।

টেলিগ্রাফকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তোফায়েল বলেন, তৈরি পোশাক রপ্তানিকারক দেশগুলোর মধ্য বাংলাদেশের অবস্থান সারা বিশ্বেই শীর্ষে রয়েছে।

“বছরে আমরা তিন হাজার কোটি ডলারের পোশাক বিক্রি করি। অন্যদিকে ভারত তৈরি পোশাক শিল্পের সবচে’ বাজারের একটি। কিন্তু আমরা এই প্রতিবেশী দেশটিতে মাত্র ৫০ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করি। আমি এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে চাই।”    

২০১২-১৩ অর্থবছরে ভারতে বাংলাদেশি পণ্যের রপ্তানি আয় আগের বছরের তুলনায় ১৩ শতাংশ বেড়ে ৫৬ কোটি ৪০ লাখ ডলারে পৌঁছে।

তৈরি পোশাক শিল্প থেকে বাংলাদেশের মোট রপ্তানি আয়ের ৮০ ভাগ আসে। ভারতে গার্মেন্টস শিল্পের বাজার সাড়ে তিন হাজার কোটি ডলারের।

তোফায়েল বলেন, “ভারত আমাদের কাছে বছরে সাড়ে চারশ’ কোটি ডলারের পণ্য বিক্রি করে। এর বেশিরভাগটাই যেমন- তুলা, সুতা ও তন্তু আমাদের শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

“তাছাড়া অতি প্রয়োজনীয় পণ্য চিনি ও মূলধনী যন্ত্রপাতিও ভারত থেকে আমদানি হচ্ছে। ভারসাম্য আনতে আমাদের নতুন এবং বড় বাজার প্রয়োজন আমাদেরই পণ্য রপ্তানির জন্য।”

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে