Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-২০-২০১৪

‘সরকার সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ’

‘সরকার সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ’

ঢাকা, ২০ জানুয়ারি- আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারকে ‘কলঙ্কিত’ আখ্যায়িত করে অবিলম্বে ‘নিরপেক্ষ’ সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচন দেয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া।

নির্বাচনের পর বিভিন্ন স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ঘর-বাড়িতে হামলার ঘটনাতেও সরকারকে দায়ী করেছেন তিনি।

৫ জানুয়ারির ভোটের পর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির প্রথম সমাবেশে বক্তব্যের শুরুতেই খালেদা জিয়া ‘প্রহসনের নির্বাচন মেনে না নেয়ায়’ দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনই বলে দিয়েছে- নির্দলীয় সরকার ছাড়া নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না।

প্রথমে ইনকিলাব ও  প্রথমে প্রথম আলোর ৬ জানুয়ারির সংখ্যা তুলে ধরে খালেদা জিয়া বলেন, যারা ভোটার, তারা সেদিন ভোটকেন্দ্রে যাননি।

প্রথম আলোর সেদিনের শিরোনাম পড়ে শুনিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন- এই সরকার ‘কলঙ্কিত’ সরকার।  

“নির্লজ্জ সরকারকে বলব, অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে নিজেদের জনপ্রিয়তা যাচাই করুন।”

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ‘ভোটে নয়, অস্ত্রের জোরে’ ক্ষমতায় রয়েছে মন্তব্য করে ‘আলোচনার’ মাধ্যমে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেয়ার দাবি জানান তিনি।

খালেদা জিয়া বলেন, নির্বাচনে মানুষের সমর্থন না পেয়ে ব্যর্থতা ঢাকতেই সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যতন করা হচ্ছে।

“হিন্দু ভাইদের বাড়ি-ঘরে হামলা করছে, তাদের ওপর নির্যাতন করছে, বাড়িঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করছে, দখল করছে।

“সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার দায়দায়িত্ব সরকারের। সরকার ব্যর্থ হয়েছে নিরাপত্তা দিতে, হামলাকারীদের ধরতে।”

সরকার এখন ‘যৌথ অভিযানের নামে’ একর পর এক ‘হত্যা, গুম’ শুরু করেছে বলেও খালেদা অভিযোগ করেন।

সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “বন্ধ করেন, এসব বন্ধ করেন। এর জন্য একদিন জবাব দিতে হবে।”

তিনি সরকারকে হুঁশিয়ার করেন, “যদি মনে করেন, গায়ের জোরে এভাবে ক্ষমতায় থাকবেন, এটা কিন্তু হবে না, হতে দেয়া হবে না।”

সরকারের কর্মকাণ্ড দেখে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব অটুট আছে বলেও বিশ্বাস করতে পানেন না বলে জানান খালেদা।

বর্তমান সরকারকে ‘অবৈধ’ আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, “যারা জনগণের ভোটে জয়ী হয়নি, তাদের সংসদে বসার অধিকার নেই।”

জনগণ এই সরকারকে ক্ষমতা থেকে ‘বিদায় করবে’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

“এই নির্বাচন সবাই প্রত্যাখ্যান করেছে, এ নির্বাচন কারো কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। তাই আমরা বলতে চাই, অতি দ্রুত আলোচনায় বসে নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন।”

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, “যেখানে ৫ শতাংশ ভোটও পড়ে নাই, সেখানে এই নির্বাচন কমিশন তিন দিন সময় নিয়ে ৪০ শতাংশ ভোট দেখিয়েছে।”

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে