Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (56 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১৮-২০১৪

শতাধিক যাত্রি নিয়ে মধ্যাকাশে অসুস্থ হয়ে পড়লেন পাইলট

শতাধিক যাত্রি নিয়ে মধ্যাকাশে অসুস্থ হয়ে পড়লেন পাইলট

নিউ ইয়র্ক, ১৮ জানুয়ারি- ভুপৃষ্ঠ থেকে ৩০ হাজার ফুট উচ্চতায় বিমান যখন ছুটে চলেছে টার গন্তব্যের দিকে তখনই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লেন বিমানের পাইলট। হঠাৎ ঘোষণায় চিন্তায় পড়ে যান যাত্রীরা। যাত্রীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। খবর ডেইলিমেইল-এর।

ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের বিমানটি তখন আইওয়ার দেস ময়নেস থেকে ডেনভারের পথে। মাটি থেকে ৩০ হাজার ফুট উচুঁতে।

ককপিট থেকে হঠাৎ প্রশ্ন, আপনাদের মধ্যে কোনও চিকিৎসক আছেন? ঘোষণা শুনেই ককপিটের দিকে দৌড়ান পেশায় নার্স লিন্ডা আলওয়েস।

কিন্তু কেন এমন ঘোষণা? যাত্রীদের মধ্যে গুঞ্জন। কার কী হল! এর পরেই তা জানালেন বিমানকর্মী। চালকই আচমকা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

ঘটনাটি দিন পনেরো আগে ঘটলেও গতকাল বৃহস্পতিবার তা প্রকাশ পায়। নার্স ককপিটে যাওয়ার পরেও যাত্রীরা বুঝতে পারছেন না, কী চলছে ভিতরে। উদ্বেগের আরও কিছু মুহূর্ত পার করে তারা শুনতে পেলেন দ্বিতীয় ঘোষণাটি। যা শুনে ভয়ে অস্থির হয়ে যায় অনেক যাত্রীই।

লাউডস্পিকারে এ বার তাদের উদ্দেশে প্রশ্ন: কেউ কি বিমান চালাতে পারেন?

কিন্তু কি ঘটেছিল সে দিন? প্রশ্নটির উওর মিলেছে সেই নার্সের কাছ থেকে। ওড়ার ২০ মিনিটের মধ্যেই নাটকের শুরু। বর্ষশেষের ছুটি কাটাতে ক্যালিফোর্নিয়ার ক্যামারিলোর বাসিন্দা লিন্ডা সপরিবার ওই বিমানে বাড়ি ফিরছিলেন। ডেনভার হয়ে যাওয়ার কথা ছিল তার। বিমানে প্রথম ঘোষণাটি শুনে এক মুহূর্ত দেরি করেননি কয়েক দশকের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন নার্স লিন্ডা।

তার ভাষায়, ককপিটে ঢুকে দেখলাম পাইলট ঝুঁকে পড়ে রয়েছেন নিজের আসনে। বিড় বিড় করে অসংলগ্ন কথা বলছেন। কিন্তু ওঠার ক্ষমতা নেই। ইনটেনসিভ কেয়ার পরিসেবা লিন্ডার নখদর্পণে। তিনি বুঝতে পারেন, পাইলটের হৃদস্পন্দন স্বাভাবিক নয়। তার পরেই বোঝেন, সম্ভবত মাথায় রক্ত জমাট বেঁধে গিযেছে নয়তো হৃদরোগে আক্রান্ত বিমানচালক।

বিমানে ছিলেন আরও এক জন নার্স, অ্যামি সোরেনসন। তিনিও এগিয়ে আসেন। আরও কয়েক জন যাত্রীও সাহায্য করেন ককপিট থেকে পাইলটকে বের করে আনতে। এর পরে হৃদস্পন্দন স্বাভাবিক করার চেষ্টা শুরু হয়। বিমানের দায়িত্ব নেন সহকারী চালক। লিন্ডার মাথায় শুধু একটা চিন্তা পাক খাচ্ছিল। ঠিকমতো নামা যাবে তো? তাই এক ফাঁকে মহিলা বিমানকর্মীর কাছে জানতে চান, আপনারা তো জানেন কী ভাবে অবতরণ করতে হবে? ওই কর্মী তাকে অভয় দেন।

লিন্ডার কথায়, আর চিন্তা রইল না। আমি পাইলটকে সুস্থ করার কাজে মন দিলাম। কিন্তু তখনই দ্বিতীয় ঘোষণায় ভুল ভাঙে লিন্ডার।

তাদের উদ্বেগে রেখেই শেষ পর্যন্ত অবশ্য নির্বিঘ্নে বিমান নামান সহচালক। তবে ডেনভারে নয়। নামতে হয় নেব্রাস্কার ওমাহার বিমানবন্দরে। টারম্যাকে ততক্ষণে প্রধান চালকের চিকিৎসার জন্য পৌঁছে গিয়েছেন চিকিৎসক দল। ওমাহায় যাত্রীদের রাতে থাকার বন্দোবস্ত করা হয়। পর দিন ডেনভার যাওয়ার বিমানে পাঠানো হয় তাদের।

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে