Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (53 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১৭-২০১৪

সুস্থ থাকতে বিকালের নাস্তায় এড়িয়ে চলবেন যে ৫টি খাবার

বেলা যখন পাঁচটা/ছয়টা, তখন ঘড়ির দিকে না তাকিয়েও বুঝে ফেলা যায় পেটের ইঁদুরের একটু আধটু দৌড়াদৌড়িতে। হালকা ক্ষুধা ও ঘুম ঘুম ভাব কাজকর্মে বাঁধা ফেলতে শুরু করে। দুপুরের খাবারের পর এই সময়টাতে আবার যখন ক্ষুধা অনুভূত হতে থাকে তখন অনেকেই ক্ষুধা মেটাতে নানান ধরণের নাস্তা খেয়ে থাকেন। যদিও হালকা খাবার খাওয়া হয়, এই সময়ে কিন্তু বেশীরভাগ সময়েই স্বাস্থ্যের জন্য হানিকারক খাবারের প্রতি নজর যায় সবার। আবার অনেকে স্বাস্থ্যসম্মত ভেবেই খেয়ে নিচ্ছেন সময় অনুপযোগী কিছু খাবার যার প্রভাব পড়ছে দেহে। আসুন দেখে নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় কোন কোন খাবার বিকালের নাস্তায় খাবেন না।

সুস্থ থাকতে বিকালের নাস্তায় এড়িয়ে চলবেন যে ৫টি খাবার

এনার্জি ড্রিংক/ কোমল পানীয়
অনেকেই ভাবেন বিকেলে নাস্তার সময় এনার্জি ড্রিংক বা অন্য কোনো কোমল পানীয় একসাথে দুটি কাজ করবে। কাজ করার শক্তি দেবে ও ক্ষুধা ভাব দূর করবে। কিন্তু এটা একটি অনেক বড় ভুল ধারণা। এনার্জি ড্রিংকে শুধুমাত্র চিনি ও ফ্যাটের পরিমাণ বেশি থাকে যা খালি পেটে খেলে সরাসরি দেহে ফ্যাট হিসেবে জমা হয়। কারণ এনার্জি ড্রিঙ্কে শুধুমাত্র ফ্যাট ও চিনি রয়েছে, কোন ফাইবার নেই। তাই খালিপেটে এনার্জি ড্রিংক বা অন্য কোন কোমল পানীয় এড়িয়ে চলুন।

নোনতা বিস্কুট
বিকালের নাস্তায় সাধারণত বিস্কুটের প্রাধান্য দেখা যায়। অনেকেই তেলে ভাজা আলুর চিপসকে স্বাস্থ্যহানিকর মনে করে বিস্কুটকে বেছে নেন। বিস্কুটের মধ্যে নোনতা বিস্কুটকে অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর ধারণা করা হয়। কারণ নোনতা বিস্কুটগুলোতে ফ্যাট কম হয়,চিনিও নেই। কিন্তু ডায়টেশিয়ানদের মতে বিকালের নাস্তায় নোনতা বিস্কুট খুবই অস্বাস্থ্যকর একটি খাবার। এটা শুধুমাত্র ক্যালোরি, কার্বোহাইড্রেট ও অনেক বেশি সোডিয়াম দেহে প্রবেশ করায়। নোনতা বিস্কুটের চাইতে অনেক বেশি পুষ্টিকর খাদ্য হচ্ছে বাদাম। এলিসা জেইড বলেন, “বিকালের নাস্তায় বাদাম খাওয়ার অভ্যাস অনেক ভালো, এতে দেহ পুষ্টি পায়।“

আরও পড়ুন: প্রতিদিন ডিম খেলে মস্তিষ্কের কি হয় জানেন?

আপেল
শুনেই ভ্রু কুঁচকে ফেলছেন? ভাবছেন আপেলের আবার কি সমস্যা, অনেক পুষ্টিকর একটি ফল ইত্যাদি। হ্যাঁ,তা অবশ্যই। আপেল অনেক বেশি ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ। কিন্তু তাই বলে বিকেলের নাস্তায় শুধুমাত্র একটি আপেল আপনার জন্য খুব বেশি ভালো কিছু নয়। বরং আপেল খাওয়ার কিছুক্ষণের মাঝেই আবার ক্ষুধা লাগবে ও আপনি আরও বেশি হাবিজাবি খেয়ে ফেলবেন। আপেলের সাথে আপনাকে আরও পুষ্টিকর কিছু যোগ করতে হবে। আপেলের সাথে আপনি কিছু বাদাম যোগ করতে পারেন।
 

ক্যান্ডি বার
অনেকেই বাইরে কোথাও থাকলে কিংবা অফিসে এই সময় চট জলদি খিদে মেটাতে ক্যান্ডি বার খেয়ে নেন। ক্যান্ডি বারের সামান্য পরিমাণ চকলেট ও ক্যাফেইন অবশ্যই আপনাকে খানিকক্ষণের জন্য চাঙা করে তুলবে কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই আবার আগের পর্যায়ে ফিরে যাবেন। কারণ এতে কোনো ফাইবার নেই। সুতরাং ক্যান্ডি বার খেলে আপনার তেমন কোনো লাভ হবে না। ক্যান্ডি বারের ফ্যাটটিই শুধু আপানার দেহে জমা হবে। এর বদলে চিনি বিহীন ডার্ক চকোলেট বার সাথে রাখতে পারেন।

আলুর চিপস
চটজলদি ক্ষুধা মেটাতে সহজেই হাতের কাছে পাওয়া যায় আলুর চিপস। সহজলভ্য বলে অনেকেই আলুর চিপস খেয়ে বিকেল সময়টা পার করে দেন। কিন্তু এটা আপনার স্বাস্থ্যের উপর কি প্রভাব ফেলছে তা ভাবেন না কেউই। অল্প পরিমানের প্রোটিন ও ফাইবার এবং অতিরিক্ত পরিমানের ফ্যাট সমৃদ্ধ এই আলুর চিপস শুধুমাত্র দেহে ফ্যাট হিসেবে জমা হবে। আর তাৎক্ষনিক এনার্জির বদলে আপনাকে আরও আলসে করে তুলবে। তাই বিকেল সময়টাতে আলুর চিপসের বদলে বুট জাতীয় কিছু খেতে পারেন। বাদামও অনেক উপযোগী একটি খাবার কারণ এতে সামান্য ফ্যাটের সাথে ফাইবার রয়েছে প্রচুর পরিমাণে।

 

 

 

 

 

 

সচেতনতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে