Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (35 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১৫-২০১৪

খালেদাকে নয়াপল্টনে চান নেতাকর্মীরা

খালিদ হোসেন


খালেদাকে নয়াপল্টনে চান নেতাকর্মীরা

ঢাকা, ১৫ জানুয়ারি- বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দেখতে চায় মাঠের কর্মীরা। পাশাপশি দলের লিগ্যাল এইড কমিটি সক্রিয় করার দাবি তাদের।

জেলা পর্যায়ের কর্মসূচি সফল দেখলেও ঢাকা শহরে পুরোপুরি ব্যর্থ। তাই আঁতাত এবং আত্মগোপন করে যারা আন্দোলন নস্যাৎ করেছে তাদের কথা বিবেচনায় রেখে সিদ্ধান্ত দেখতে চায় তারা। বেগম খালেদা জিয়া প্রতি সপ্তাহে নয়াপল্টনে গিয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় করলে মাঠপর্যায়ে বিএনপি শক্তিশালী হবে বলে সংগঠনটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী মনে করছে।

এদিকে নয়াপল্টনে বিএনপির প্রধান কার্যালয় হলেও সেখানে চেয়ারপারসনের যাতায়াত খুবই কম। ওই এলাকায় বড় ধরনের সমাবেশ ছাড়া সাধারণত খালেদা জিয়ার যাওয়া হয় না। আর এ কারণেই কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে চেয়ারপারসনের কক্ষ বেশিরভাগ সময়ই তালাবদ্ধ থাকে। গত বছরের মার্চে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় তছনছ করে দেড়শতাধিক বিরোধী নেতাকে আটক করে পুলিশ। এর কয়েক দিন পর কার্যালয় পরিদর্শনে যান খালেদা। সর্বশেষ গত ১৯ নভেম্বর বঙ্গভবন থেকে ফিরে দলীয় কার্যালয়ে দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদকে দেখতে যান তিনি। তবে তিনি ওইদিন কার্যালয়ে প্রবেশ করেননি। রুহুল কবির রিজভী নিচে নেমে এলে তার সঙ্গে দেখা করেই গুলশান চলে যান খালেদা জিয়া।

এছাড়াও ২৯ ডিসেম্বর ‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রা’ কর্মসূচির দিনে তিনি নয়াপল্টনে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু পুলিশ তার বাসভবনের সামনেই বাধা দেয়।

গত সোমবার রাতে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে গিয়েছিলেন পল্টন থানা বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক ফিরোজ আলম। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। ১৯৮৭ সালে ভোলার বোরহান উদ্দিন উপজেলা ছাত্রদলের মাধ্যমে রাজনীতিতে আসার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গুলশান অফিসে এসে ম্যাডামের সঙ্গে দেখা করতে অনেক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। ম্যাডাম যদি সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন নয়াপল্টনে অফিস করতেন তাহলে ঢাকার আন্দোলন চাঙ্গা হতো।’

রাজনীতি করার কারণে ফিরোজ আলমের বিরুদ্ধে ৯টি মামলা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ম্যাডাম লিগ্যাল এইড কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছিলেন। কমিটির সদস্য সচিব সানাউল্লাহ মিয়ার কাছ থেকে আইনি সহায়তা নিজে পেলেও কমিটির সেবা সবাই পায় না।’

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আমিরুজ্জামান খান শিমুল বলেন, ‘নয়াপল্টনে গিয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে ম্যাডামকে আলাপ করতে হবে। ত্যাগী নেতাদের দিয়ে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন পুনর্গঠন করতে হবে। পাশাপাশি সরকার বিরোধী আন্দোলন চালিয়ে নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘লিগ্যাল এইড কমিটি থাকলে দেখতে পেতাম। আমার নামে একাধিক মামলা আছে। আমি জামিনে রয়েছি।’ ব্যক্তিগতভাবে তিনি আইনি সহায়তা পান বলেও জানান আমিরুজ্জামান খান শিমুল।

শরীয়তপুর গোসারহাট উপজেলা ছাত্রদলের রাজনীতিতে তার ছোট ভাই জিল্লুর রহমান রয়েছে জানিয়ে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ডিএম মুনির হোসেন বলেন, ‘আমি রাজনীতি করি না। আমার ছোট ভাই গোসারহাট উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি। আমি ঢাকায় চাকরি করি। আমি সময় পেলে ম্যাডামের অফিস বা বাসার দিকে আসি।’

তিনি বলেন, ‘ম্যাডামের উচিৎ নয়াপল্টনে গিয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করা।’

তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে ২টি মামলা রয়েছে জানিয়ে মুনির হোসেন বলেন, ‘দলের পক্ষ থেকে কখনও আইনি সহায়তা আমরা পাইনি।’

গত বছরগুলোতে বিএনপির আন্দোলন কর্মসূচিতে ঢাকার রাজপথে যাদের উপস্থিতি ছিল তার মধ্যে নিয়মিত মুখ ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক সেলিনা সুলতানা নিশিতা।

খালেদা জিয়ার নয়াপল্টনে অফিস করার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই এতে কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা হবে।’ তার বিরুদ্ধে যেসব মামলা রয়েছে দলের আইনজীবীদের কাছ থেকে সহায়তা পান বলে জানান তিনি।

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি কামাল আনোয়ার আহমেদ বলেন, ‘ম্যাডাম যদি সপ্তাহে অন্তত ২ দিন নয়াপল্টনে অফিস করেন তাহলে ভালো হয়। জোট এবং কূটনীতিকদের জন্য গুলশানের অফিস আর নয়াপল্টন থেকে কর্মসূচি ঘোষণা করলে খুবেই ভালো হয়।’

তিনি বলেন, ‘মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলো পুনর্গঠন করা উচিৎ।’

যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গিয়াস উদ্দিন আল মামুন বলেন, ‘ম্যাডামের কাছে তৃণমুলকর্মীদের দরজা খোলা থাকা উচিৎ।’ ঢাকা মহানগর বিএনপি এবং এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলো পুনর্গঠন করা উচিৎ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকা মহানগর যুবদল নেতা এসএম জাহাঙ্গীর বলেন, ‘আমাদের পার্টি অফিস খুলে দিতে হবে। নেতা-নেত্রীদের কাছে পেলে স্বাভাবিকভাবেই কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা হয়।’

এসএম জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ১১৩টি মামলা রয়েছে। যার মধ্যে ৮১টি মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন। রাজনীতি করতে হলে মামলা থাকাটা স্বাভাবিক বলেই মনে করছেন তিনি। তার মামলার ক্ষেত্রে দলের আইনজীবীদের সহায়তা পান বলেও তিনি জানান।

সম্প্রতি স্থগিত হওয়া অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে ঢাকার রাজপথে মিছিলের কথা সংবাদকর্মীদের জানাতেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রফিক সিকদার। তিনি বলেন, ‘গুলশান অফিসে সবাই যেতে পারে না। ম্যাডাম যদি নয়াপল্টনে আসেন তাহলে দলের জন্য খুবেই ভালো হয়। সেই সঙ্গে আলোচনা করে ঢাকার সংগঠনগুলো পুনর্গঠন করা উচিৎ।’

বিএনপির কেন্দ্রীয় মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন আহমেদ অসীম বলেন, ‘বিভিন্ন কারণে গুলশান অফিসে সবাই যেতে পারে না। যার কারণে ম্যাডামের পার্টি অফিসে যাওয়া দরকার।’

তিনি বলেন, ‘নেতারা সব ফেল করেছে। ম্যাডামইেএখন দলের আশা-ভরসা।’

নাম প্রকশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক নেতা বলেন, ‘খোশগল্প করার জন্য গুলশান অফিসে যেতে চাই না। ওখানকার কর্মকর্তাদের ভাবখানা এমন যেন ম্যাডামের সঙ্গে আমরা খোশগল্প করতে যাই অথবা তাদের সর্বনাশ করতে।’

তিনি বলেন, ‘মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের মনের কথা বলতে না পেরে দূরত্ব সৃষ্টির জন্য গুলশান অফিসের কয়েকজন কর্মকর্তাও দায়ী। যারা দলের কোনো পদে না থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে অনৈতিক হস্তক্ষেপ করে দেশের জনপ্রিয় দল বিএনপিকে অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছে।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির আরো এক নেতা বলেন, ‘ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা এবং সদস্য সচিব আব্দুস সালামকে কমিটির উপদেষ্টা রেখে ওই কমিটি পুনর্গঠন করা যেতে পারে। আর সাংগঠনিক কারণে ম্যাডামকে অবশ্যই নয়াপল্টনে যেতে হবে।’

চেয়ারপারসন সপ্তাহে দুই বা তিনদিন নয়াপল্টনে যাবেন এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি আরো বলেন, ‘গুলশান অফিস বন্ধ করে দেয়া উচিৎ। তার বাসভবনের একটি কক্ষে ব্যক্তিগত অফিস করলেই হয়। সেখানে তিনি বিদেশি কূটনীতিকদের সাক্ষাৎ দেবেন। আর কেন্দ্রীয় অফিসে গিয়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে দলের প্রকৃত অবস্থা জানবেন।’      
চেয়ারপারসন দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে অফিস করার সম্ভাবনা রয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন বলেন, ‘এ ধরনের কোনো খবর আপাতত আমার কাছে নেই।’

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে