Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শনিবার, ১৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ৫ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (13 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-০৮-২০১৪

প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের পক্ষে মিজানুর রহমান

প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের পক্ষে মিজানুর রহমান

ঢাকা, ০৮ জানুয়ারি- নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতা বন্ধে প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগ করে অপশক্তিকে রোখার পক্ষে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্র ও সরকারকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, এখনই সময়; প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগ করে হলেও অপশক্তিকে রুখতে হবে। বাংলাদেশকে আমাদের রক্ষা করতে হবে। অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সমন্বিত রাখতে হবে।’

আজ বুধবার সকালে বৈষম্য বিলোপ আইনের খসড়া গবেষণাকাজের ওপর এক মতবিনিময় সভায় মিজানুর রহমান এ কথা বলেন। বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে এর আয়োজন করা হয়।

মিজানুর রহমান বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের পূর্ণ নিরাপত্তা রাষ্ট্র ও সরকারকেই নিশ্চিত করতে হবে। সরকার অবিলম্বে এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে বলে তিনি আশাপ্রকাশ করেন।

নির্বাচন ও পরবর্তী সময়ে সহিংসতা বিষয়ে মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে আমাদের আশ্বস্ত করা হলো নির্বাচনকালীন যাতে কোনো ধরনের সহিংসতা না হয়, সে জন্য মাঠে পর্যাপ্তসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত আছেন। কিন্তু নির্বাচনের আগের দিন দেখলাম একজন প্রিসাইডিং অফিসারকে দুর্বৃত্তরা পিটিয়ে-কুপিয়ে হত্যা করল। ভোট শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কীভাবে সংখ্যালঘুদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, লুটতরাজ করা হলো; তাও দেখলাম। ঝাঁপ দিয়ে শীতের মধ্যেও অতিরিক্ত সময় পানিতে থাকতে দেখলাম। গণমাধ্যমের কল্যাণে দেখেছি, অনেক মানুষ অন্য দেশে পাড়ি দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে। অনুনয়-বিনয় করে তাদের রাখা হয়েছে।’

মিজানুর রহমান বলেন, ‘অর্থাত্ আমাদেরকে যে এত আশ্বস্ত করা হলো, আশানুরূপ কোনো কর্মদক্ষতার প্রমাণ নেই। এ ক্ষেত্রে রাষ্ট্র ও সরকার যেন ব্যর্থ হয়েছে বলে মনে হয়েছে। এ ব্যর্থতা যেন প্রলম্বিত না হয়, এই ব্যর্থতা প্রলম্বিত হওয়া মানে হচ্ছে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন, লুটতরাজ প্রলম্বিত হওয়া। ব্যর্থতার অর্থ হতে পারে আমাদের দেশের ওপর বিরাট একটি জনগোষ্ঠীর আস্থা ওঠে যাওয়া। প্রলম্বিত হওয়ার আরেকটি অর্থ  হতে পারে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার যে বাংলাদেশ, সে অস্তিত্বই বিপন্ন হয়ে যেতে পারে।’

আইন কমিশনের চেয়ারম্যান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক এতে সভাপতিত্ব করেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রকে বাধাগ্রস্ত করতে নয়; গণতন্ত্রকে প্রবহমান রাখতে ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল করে রায় দেওয়া হয়েছিল। রায়টি পূর্ণাঙ্গ পড়লে এর মর্মার্থ বুঝতে পারবেন। ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল করতে হয়েছে। কারণ, আমাদের সংবিধান তিন মাসের জন্য জনগণের শাসন থাকবে না—এটি সমর্থন করে না। জনগণের ইচ্ছায় দেশ পরিচালিত হবে। জনগণের সার্বভৌমত্ব এক দিনের জন্য স্থগিত রাখা যায় না।’

বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক বলেন, ‘সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর যারা হামলা করেছে তারা দুষ্কৃতকারী। তাদের কোনো রাজনৈতিক পরিচয় আছে বলে আমি মনে করি না। তাদের আইনের আওতায় আনা উচিত। সংখ্যালঘু বাড়িতে যে হামলা-অগ্নিসংযোগ হয়েছে, তা কোনোভাবেই কাম্য নয়। নির্বাচনের আগে ও পরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় যেভাবে নিগৃহীত ও নির্যাতিত হচ্ছে তা দুঃখজনক। আমি এমন এক দেশে বাস করি, যেখানে আমার প্রতিবেশীর কোনো সুরক্ষা নেই।’

‘সকলের জন্য সমান সুযোগ, অধিকার, সুরক্ষা ও পূর্ণ অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বৈষম্য বিলোপবিষয়ক আইন প্রণয়ন’ বিষয়ে সুপারিশ তুলে ধরেন কমিশনের মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ফউজুল আজিম। অনুষ্ঠানে কমিশনের সদস্য এম শাহ আলম ও সচিব মো. আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
 

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে