Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.9/5 (43 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-০৮-২০১৪

কানাডা যুক্তরাষ্ট্রে তুন্দ্রা অঞ্চলের তাপমাত্রা, নিহত ১৬

কানাডা যুক্তরাষ্ট্রে তুন্দ্রা অঞ্চলের তাপমাত্রা, নিহত ১৬

লন্ডন, ০৮ জানুয়ারি- পুরো কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রে বরফ ঝড়ের প্রভাবে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা অতীতের সব রেকর্ড ভাঙতে বসেছে। দেশদুটির অঞ্চল বিশেষে তুন্দ্রা অঞ্চলের মেরুঘূর্ণি (পোলার ভর্টেক্স) সুলভ আবহাওয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রের উত্তরাংশের প্রায় মকল রাজ্য ২ ফুট বরফের নিচে ঢেকে গেছে।

সোমবারের ৩০০০ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে স্কুল বন্ধ হয়ে গেছে এবং সবাইকে ঘরের ভেতরে থাকতে নির্দেশ দেয়া হচ্ছে।

তুষার ঝড়টির নাম হারকিউলিস। এখনও পর্যন্ত এর আঘাতে যুক্তরাষ্ট্রে ১৬ জন প্রাণ হারিয়েছে। সংখ্যাটি আরও বেশিও হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের কেনসাসে -২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে আবহাওয়া দপ্তর। এর আগে ১৯১২ সালে রাজ্যটির তাপমাত্রা -২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস-এ নেমে এসেছিল।
ঠাণ্ডা বাতাসের ঝোড়ো প্রবাহ চলছে শহরটিতে।

দক্ষিণ ডাকোটার পশুপালকরা তাদের পশুদের বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে। ভয়াবহ ঠান্ডায় তাদের বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়েছে।

ইন্ডিয়ানাসহ উত্তর পশ্চিমাঞ্চলের আরও বেশ কিছু অঙ্গরাজ্যে জরুরী অবস্থা ঘোষিত হয়েছে।

অন্টারিও’র থান্ডার বে’তে তাপমাত্রা -৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। স্থানীয় স্কি রেন্টার জানিয়েছেন রোববারে ২০ জন তার কাছ থেকে স্কি ভাড়া নিয়েছেন। স্বাভাবিক শীতকালে সংখ্যাটি অন্তত ২০০-৩০০হয়ে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ও মধ্যাংশের শহরগুলোতে তাপমাত্রা সর্বনিম্ন -৫১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে।

কানাডার নিউফাউন্ডল্যান্ডের বিদ্যুৎকেন্দ্র তুষার ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলে বিদ্যুৎ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে কমপক্ষে ৯০ হাজার বাড়িঘর

বিশ্বের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড (সূত্র: ওয়ার্ল্ড মেটেরিওলজিক্যাল অর্গানাইজেশন)

অ্যান্টার্কটিকা: -৮৯.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ভস্টক, ২১ জুলাই ১৯৮৩।
উত্তর আমেরিকা: -৬৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ইয়োকুন (কানাডা), ৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৭।
ইউরোপ: -৫৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, উস্ট শ্যুগর (রাশিয়া), ৩১ ডিসেম্বর, ১৯৭৮।
দক্ষিণ আমেরিকা: -৩২.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সার্মিয়েন্তো (আর্জেন্টিনা), ১ জুন, ১৯০৭।
আফ্রিকা: -২৩.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ইফ্রেইন (মরক্কো), ১১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৫।
অস্ট্রেলিয়া: -২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, শার্লট পাস (নিউ সাউথ ওয়েলস), ১৯৯৪।

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে