Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১৫ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০৬-২০২০

বিভিন্ন স্পটে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে ছিনতাই, হত্যাকাণ্ড!

বিভিন্ন স্পটে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে ছিনতাই, হত্যাকাণ্ড!

ঢাকা, ০৭ আগস্ট - আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে ঢাকার বিভিন্ন স্পটে ছিনতাই-হত্যাকাণ্ড, অন্তত ৪০ স্পট চিহ্নিত। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে শুধু ছিনতাই নয়-ঘটানো হচ্ছে হত্যাকাণ্ডও। আর রাজধানী জুড়ে তৎপর কথিত গামছা পার্টি। যারা আরো ভয়ঙ্কর। রাজধানী ও আশপাশের ৩০-৪০টি স্পট চিহ্নিত করেছে পুলিশ যেখানে প্রায়ই ঘটছে ছিনতাই ও হত্যার ঘটনা। এসবে জড়িত কয়েকটি চক্রের ব্যাপারে অনুসন্ধান করছে পুলিশ।

গেলো বছরের শেষদিকে- রাজধানীর বাড্ডায় র‌্যাবের পোশাক পরা একদল লোক বাস থেকে একজনকে নামিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে ওই ব্যক্তির সাথে থাকা কয়েক লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে মারধর করে নামিয়ে দেয়া হয় নির্জন এলাকায়। সর্বশেষ ১৪ই জুলাই মানিকগঞ্জ থেকে উদ্ধার হয় উত্তরার একটি বায়িং হাউসের কমার্শিয়াল ম্যানেজার সুলতানের মরদেহ। ঘটনার ধরণ ছিল একই। গোয়েন্দা পুলিশ বা ডিবি পরিচয়ে চক্রটি হানা দেয় ঢাকার বাইরেও। ২৭শে জুলাই চাঁদপুরের পূবালী ব্যাংক থেকে বের হওয়ার পর এরকম অভিজ্ঞতার মুখে পড়েন গোলাম মোস্তফা খোকন।

আরও পড়ুন: কামরাঙ্গীরচরের আতঙ্ক কাউন্সিলর হোসেন

ভুক্তভোগী গোলাম মোস্তফা খোকন বলেন, ডিবি পরিচয় দিয়ে আমাকে ধরে বলে আমার কাছে নাকি ইয়াবা আছে। তারপর আমাকে গাড়িতে উঠিয়ে মারধর করে। আমাকে একটি নির্জন জায়গায় নিয়ে বলে তোকে ছেড়ে দেয়া হবে তবে আমাদের কথা মত গাড়ি থেকে নেমে সোজা চলে যেতে হবে। রাজধানীতে সিএনজিচালিত অটোরিকশা কিংবা প্রাইভেটকারে যাত্রী হিসেবে তুলে নিয়ে ছিনতায়ের ঘটনা ঘটছে অহরহ। ছিনতাইয়ে বাধা দিলে করা হচ্ছে খুন। এরকম ছিনতাইয়ের শিকার হয়েও প্রাণে বেঁচে গেছেন মিরপুরের রাশেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ওরা কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে আমাকে গাড়িতে তুলে ক্যান্টনমেন্টের ভেতর দিয়ে ইসিবি নিয়ে যায়। তারা আমার মোবাইল মানিব্যাগ নিয়ে আমার সম্পর্কে সব তথ্য নেয়। তারপর আমাকে বলে এক লাখ টাকা আনার জন্য। যখন আমি বলছি আমার পরিবারের অবস্থা ভালোপ না, তখন তারা আমাকে চলন্ত সিএনজি থেকে ফেলে দেয়। পুলিশ বলছে ঢাকা এবং আশপাশের ৩০ থেকে ৪০টি স্পটে এসব অপকর্ম করা হচ্ছে। তবে টার্গেট ব্যাংকপাড়া।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, ফ্লাইওভারের মোড়ে বা উপরে যেখানে সিসি ক্যামেরা বা আলোর স্বল্পতা আছে সেসব জায়গায়ই তারা টার্গেট করে। আমরা এমন অপরাধের সাথে যুক্ত কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছি। খুব দ্রুতই এসব অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ি ব্যবস্থা নিতে পারবো। গেলো ছয় মাসে রাজধানীতে ছিনতাইকারীর হাতে প্রাণ দিয়েছেন ১০ জন।পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে ৫ জন। যারা সবাই ছিনতাইকারী বলে দাবি পুলিশের।
সূত্র : বিডি২৪লাইভ
এন এইচ, ০৭ আগস্ট

অপরাধ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে