Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ৬ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৮-০৬-২০২০

সিফাতকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানোর অভিযোগ

সিফাতকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানোর অভিযোগ

বরগুনা, ০৭ আগস্ট- ‘সবাই জানেন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন। টেকনাফ থানাপুলিশ নিজেদের রক্ষা করতে সাহেদুল ইসলাম সিফাতসহ তার আরও দুই সহপাঠীকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানোর চেষ্টা করে।’ এমন অভিযোগ তুলেছেন সিফাতের নানা এনায়েত কবির হাওলাদার। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে তার বাসবভনে স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে এই অভিযোগ করেন। তিনি বরগুনার বামনা সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান।

এনায়েত কবির বলেন, ছোটবেলা থেকে সিফাতের শখ ছিল ফটোগ্রাফি ও অভিনয়ের। এ জন্যই আমরা তাকে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে ফিল্ম ও মিডিয়া বিভাগে ভর্তি করে দিই। নিহত অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা তার ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও ধারণ করার জন্য সিফাতকে নিয়ে যান টেকনাফে। সেখানে একটি রিসোর্টে অবস্থান করে এক মাস ধরে ডকুমেন্টারি তৈরি করছিলেন তারা।

তবে ফেরার পথে গত ৩১ জুলাই রাত ৯টায় টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর পুলিশ চেকপোস্টে এক পুলিশ কর্মকর্তার গুলিতে নিহত হন সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান।

‘পুলিশের সাজানো নাটকে সিফাতের স্বপ্ন আজ ধ্বংস হতে চলেছে। সিফাত জীবনে একটি সিগারেটও খায়নি, অথচ তাকে মাদক দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে। মেজর সিনহা ওকে খুব ভালোবাসত। ওর মাধ্যমে সিনহা তার ইউটিউব চ্যানেলটির কাজ শুরু করেন।’

এনায়েত কবির আরও বলেন, সাবেক সেনা কর্মকর্তার সঙ্গে একই গাড়িতে ফিরছিল আমার নাতি সিফাত। পুলিশ তাদের দোষ ধামাচাপা দিতে আমার নাতিকে মিথ্যা অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে। দেশবাসী বিশ্বাস করে, পুলিশের নাটকের বলির পাঁঠা হলো আমার নাতি সিফাত।

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি আজাদ জালিয়াতির সব জানতেন

সাহেদুল ইসলাম সিফাতের বাড়ি বরগুনার বামনা উপজেলার কলাগাছিয়া গ্রামে। তার বাবার নাম নূর মোস্তফা, মা যুক্তরাজ্য প্রবাসী মোসা. শিলা খান। সিফাত এ বছর স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ফিল্ম ও মিডিয়া বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

সিফাতের নানা আরও বলেন, সিফাত টেকনাফে যাওয়ার সময় সিনহার তথ্যচিত্রের বিভিন্ন দিক নিয়ে আমার সঙ্গে কথা বলেছে। ও আমাকে বলেছে- ‘নানু আমি ফটোগ্রাফি নিয়ে পড়াশোনা করে একদিন নামকরা ফটোগ্রাফার হব। তোমার নাতিকে একদিন সারাদেশ চিনবে। তোমরা দোয়া করো। আমি সিনহা স্যারের সঙ্গে টেকনাফে শুটিং করতে যাচ্ছি। ওখানে এক মাস থাকব।’

তিনি আরও বলেন, আজ আমার নাতিকে সত্যি দেশ চিনল, তবে পুলিশের সাজানো নাটকের আসামি হিসেবে। আমি আমার নাতির মুক্তি চাই। আপনারা আমার নাতিকে এনে দিন। সরকার আমার নাতিকে পুলিশের হাত থেকে ফিরিয়ে দিন।

এ বিষয়ে বামনা থানার ওসি ইলিয়াস আলী তালুকদার বলেন, সাবেক মেজর সিনহা টেকনাফে নিহত হয়েছেন। সেখানেই মামলা হয়েছে, যার তদন্ত চলমান। এর বেশি কিছু আমার জানা নেই।

সূত্র : আমাদের সময়
এম এন  / ০৭ আগস্ট

বরগুনা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে