Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১৪ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (20 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-২২-২০২০

পানির তোড়ে ধসে পড়ল সেতু

পানির তোড়ে ধসে পড়ল সেতু

জামালপুর, ২২ জুলাই- জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলায় বন্যার পানির তোড়ে সেতুর মাঝখানের একটি পিলার ও দুটি স্প্যানের ৪০ মিটার ধসে পড়েছে। সেতুটি দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে ১২টি গ্রামের মানুষ। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে সেতুটি ধসে পড়ে। উপজেলার কামরাবাদ ইউনিয়নের শুয়াকৈর শাহাজাদাহাট এলাকায় ঝিনাই নদের ওপর সেতুটির অবস্থান।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) সরিষাবাড়ী কার্যালয় থেকে জানা গেছে, ২০০৬ সালে ঝিনাই নদের ওপর ২০০ মিটার দৈর্ঘ্যের ওই সেতু নির্মাণ করা হয়। গতকাল রাত দেড়টার দিকে বন্যার পানির তীব্র স্রোতে সেতুটির ৭ নম্বর পিলার এবং ৬ ও ৭ নম্বর স্প্যানের ৪০ মিটার ধসে যায়। খবর পেয়ে আজ বুধবার দুপুরে সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিহাব উদ্দিন আহম্মেদ, এলজিইডির জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান ও এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী রাকিব হাসান ঘটনাস্থলে যান। এর আগে গতকাল সকালে ভেঙে যাওয়া অংশটুকু দেবে গিয়েছিল।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এক সপ্তাহ ধরে ঝিনাই নদে তীব্র স্রোত বয়ে যাচ্ছে। এই সেতু কামরাবাদ ইউনিয়নের ১২টি গ্রামের লোকজনের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম। সেতুর মাঝখানে ভেঙে যাওয়ায় হেঁটেও চলাচল করা সম্ভব নয়। উপজেলা সদরের সঙ্গে ১২টি গ্রামের মানুষের যোগাযোগ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেল। বিকল্প কোনো ব্যবস্থা না থাকায় এসব এলাকার মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

ইজিবাইকচালক শুয়াকৈর দক্ষিণপাড়া গ্রামের হাফিজুর রহমান বলেন, এই সেতুর ওপর দিয়েই উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে হতো। সেতুটি ভেঙে পড়ায় যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেল। নদীতে ব্যাপক স্রোত থাকায় নৌকা নিয়ে পার হওয়াটাও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেল। দ্রুত সময়ের মধ্যে যোগাযোগব্যবস্থা চালুর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

এলজিইডির সরিষাবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী রাকিব হাসান এ প্রতিবেদককে বলেন, সেতুটির দেবে যাওয়া অংশটুকু ভেঙে পানিতে ডুবে গেছে। সেতুর মাঝখানের একটি পিলার ও দুটি স্প্যানের ৪০ মিটার ভেঙে পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেঙে যাওয়া অংশে ব্যাপক স্রোত রয়েছে। নির্মাণের এত অল্প সময়ের মধ্যে সেতুটি ভেঙে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, এই নদ থেকে অপরিকল্পিতভাবে ব্যাপক বালু উত্তোলন করা হয়েছিল। এ কারণে সেতুর পিলারের নিচ থেকে মাটি সরে গিয়েছিল। তাই পানির তোড়ে সেতুটি ধসে গেছে। বন্যার পানি কমলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ভেঙে যাওয়া অংশ মেরামত করা যেতে পারে।

সূত্র: প্রথম আলো

আর/০৮:১৪/২২ জুলাই

জামালপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে