Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০ , ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.5/5 (4 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-১১-২০২০

সাবেক উপদেষ্টার সাজা মওকুফ করলেন ট্রাম্প

সাবেক উপদেষ্টার সাজা মওকুফ করলেন ট্রাম্প

ওয়াশিংটন, ১১ জুলাই- দণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক এক উপদেষ্টার সাজা মওকুফ করে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রজার স্টোন নামে তার সাবেক ওই রাজনৈতিক উপদেষ্টা প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার সঙ্গে আঁতাতের দায়ে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছিলেন। ওয়াশিংটন ডিসির একটি আদালত তার সাজা শুরুর দিন পিছিয়ে দেওয়ার আহ্বান খারিজ করায় ট্রাম্প তার সাজাই মওকুফ দিলেন। খবর বিবিসি ও সিএনএনের। 

যুক্তরাষ্ট্রের ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকালে রাশিয়ার সঙ্গে আঁতাতের অভিযোগে জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের তদন্তে ট্রাম্প প্রশাসনের যে ছয়জন কর্মকর্তা দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন, রজার স্টোন তাদের অন্যতম। 

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ নিয়ে হওয়া তদন্তে কংগ্রেস মিথ্যা সাক্ষ্যদান, তদন্তকারী আইনপ্রণেতাদের কাজে বাধা দেওয়া এবং অন্য সাক্ষীদের প্রভাবিত করার দায়ে এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত তাকে ৪০ মাসের কারাদণ্ড দেন। এর আগে ২০১৯ সালের ২৫ জানুয়ারি তাকে ফ্লোরিডা থেকে গ্রেপ্তার করে এফবিআই। 

এতোদিন অন্তর্বর্তী জামিনে থাকলেও আগামী মঙ্গলবার থেকে জর্জিয়ার জেসাপের কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি থাকার কথা ছিল ৬৭ বছরের রজার স্টোনের। 

এরইমধ্যে স্টোন ওয়াশিংটন ডিসির একটি আদালতে তার কারাদণ্ড শুরুর তারিখ পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করেছিলেন। তবে শুক্রবার আদালত ওই আবেদন খারিজ করে দেওয়ার কিছু সময় পরই ট্রাম্পের এ সাবেক উপদেষ্টার সাজা মওকুফের ঘোষণা আসে হোয়াইট হাউস থেকে। 

এ ব্যাপারে এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কেলেই ম্যাকেনানি বলেন, বাম শক্তি ও মিডিয়ায় তাদের মিত্রদের দ্বারা ট্রাম্প প্রশাসনকে খাটো করতে কয়েক বছর ধরে চলা ধাপ্পাবাজির শিকার রজার স্টোন। স্পেশাল কাউন্সেল রবার্ট মুলার ট্রাম্পের প্রচারণা শিবিরের সঙ্গে রাশিয়ার আঁতাতের বিষয় প্রমাণ করতে না পারার হতাশা থেকে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

ম্যাকেনানি আরও বলেন, রজার স্টোন ইতোমধ্যে খুব ভুগেছেন। তাকে খুব অন্যায়ভাবে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। এখন থেকে তিনি মুক্ত।

হোয়াইট হাউসের এমন ঘোষণায় আর জেলে যেতে হচ্ছে না স্টোনকে। 

তবে ট্রাম্পের এমন সিদ্ধান্তে সমালোচনার ঝড় উঠেছে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে। বিরোধীদল ডেমোক্র্যাটরা একে ‘যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের একটি কালো দিন’ বলে উল্লেখ করেছেন। 

ডেমোক্রেট নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদের ইন্টিলিজেন্স কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডাম স্কিফ বলেন, এ সাজা মওকুফের মাধ্যমে ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে যে এখন দুই ধরনের বিচার ব্যবস্থা বিদ্যমান, তা স্পষ্ট করেছেন। একটি তার অপরাধী বন্ধুদের জন্য, অন্যটি বাকি সবার জন্য।

সূত্র : সমকাল
এম এন  / ১১ জুলাই

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে