Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০ , ২৩ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০৭-২০২০

এন্ড্রু কিশোর একজন জাত শিল্পী ছিলেন: খুরশীদ আলম

এন্ড্রু কিশোর একজন জাত শিল্পী ছিলেন: খুরশীদ আলম

ঢাকা, ০৭ জুলাই- নন্দিত কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই। সোমবার (৬ জুলাই) তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করছিলেন। এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে শোকাহত হয়ে পড়েছে বিনোদন অঙ্গন।

এন্ড্রু কিশোরকে স্মরণ করে জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী খুরশীদ আলম বলেন, ‘এন্ড্রু কিশোর মনে প্রাণে একজন জাত শিল্পী ছিলেন। অনেক কষ্ট করে আজকের অবস্থানে এসেছিল। তার গানের গলা যেমন অসাধারণ তেমনি দরদ ছিল। তাই মানুষ মোহাবিষ্ট হতো। ফিল্মে তার সঙ্গে আমার কয়েকটি ডুয়েট গান করার সৌভাগ্য হয়েছিল। এন্ড্রু শুরুতেই আলম খানের নজরে পড়ায় ফিল্ম ক্যারিয়ারে তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কিন্তু আমার মনে হয় তার মতো শিল্পীর আরো বহুদিন থাকার কথা ছিল। তার মতো শিল্পী আর হবে না। তাকে হারানোয় সংগীত জগতের অনেক ক্ষতি হলো, যা কোনোদিন পূরণ হবে না। তাকে দেখতে আমি সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলাম। শেষ জীবনে অসুখের জন্য অনেক কষ্ট পেয়েছে। তবে একদিক থেকে এন্ড্রু খুব লাকি। ও সব আগেই বলে গিয়েছিল। কোথায় তার সমাধি হবে কিভাবে হবে সব। আমি প্রার্থনা করি আল্লাহ তাকে শান্তিতে রাখুক।’

এন্ড্রু কিশোর বাংলাদেশে ‘প্লেব্যাক সম্রাট’ নামে পরিচিত। কয়েক হাজার সিনেমার গানে কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে— জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙের ফানুস, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, আমার বুকের মধ্যে খানে, আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান, ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা, সবাই তো ভালোবাসা চায় প্রভৃতি।

এ শিল্পী ১৯৫৫ সালের ৪ নভেম্বর রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। আব্দুল আজিজ বাচ্চুর অধীনে প্রাথমিকভাবে সংগীত পাঠ গ্রহণ শুরু করেন এন্ড্রু কিশোর। মুক্তিযুদ্ধের পর নজরুল, রবীন্দ্রনাথ, আধুনিক, লোক ও দেশাত্মবোধক গানে রেডিওতে তালিকাভুক্ত শিল্পী হন।

এন্ড্রু কিশোরের চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক যাত্রা শুরু হয় ১৯৭৭ সালে আলম খান সুরারোপিত ‘মেইল ট্রেন’ সিনেমার ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তার কেউ’ গানটি। এরপর ‘এমিলের গোয়েন্দা বাহিনী’তে কণ্ঠ দেন। এর পর বেশ কিছু গান তাকে ভীষণ পরিচিত করে তোলে। তবে তুমুল জনপ্রিয়তা পান বেলাল আহমেদের ‘নয়নের মনি’ সিনেমার গান দিয়ে। ওই সিনেমার পুরো অ্যালবামই হিট, পরে কলকাতায় রিমেকও হয়।

এন্ড্রু কিশোর বড় ভালো লোক ছিল, সারেন্ডার, ক্ষতিপূরণ, পদ্মা মেঘনা যমুনা, কবুল, আজ গায়েহলুদ, সাজঘর, কি যাদু করিলা সিনেমায় কণ্ঠ দিয়ে মোট আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। এ ছাড়া বাচসাস, মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারসহ অনেক স্বীকৃতি পেয়েছেন। ব্যক্তিগত জীবনে সংজ্ঞা ও সপ্তক নামের দুই সন্তানের জনক অ্যান্ড্রু কিশোর।

এম এন  / ০৭ জুলাই

সংগীত

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে