Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০২০ , ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.8/5 (4 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০৫-২০২০

বিলম্ব ফি ছাড়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের সময় আরও বাড়ছে

বিলম্ব ফি ছাড়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের সময় আরও বাড়ছে

ঢাকা, ০৫ জুলাই- করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতিতে বিলম্ব ফি ছাড়া বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের সময় বাড়ছে। আগের ঘোষণা অনুযায়ী, বিলম্ব ফি ছাড়া বিল পরিশোধের শেষ সময় ছিল গত ৩০ জুন।

রোববার (৫ জুলাই) অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল সংক্রান্ত বিতরণ কোম্পানিগুলোর প্রতিবেদন নিয়ে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব সুলতান আহমেদ বিষয়টি জানান।

করোনার কারণে ফেব্রুয়ারি, মার্চ, এপ্রিল ও মে মাসের বিল জুনের মধ্যে বিলম্ব ফি ছাড়া পরিশোধের সুযোগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু বিল নিয়ে ঝামেলা হওয়ায় সমন্বয়ের আগে তা অনেকেই পরিশোধ করেননি। এখন বিল পরিশোধ করলে কি তাদের বিলম্ব মাশুল দিতে হবে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা যে অভিযোগ পেয়েছি সেই অভিযোগের ভিত্তিতে বিলগুলো সমন্বয়ের জন্য একটু সময় লাগছে। গ্রাহকদের মধ্যে একটা সংশয় আছে যে বিলটি আমি দেব কী দেব না? এতেও কিছু সময় চলে গেছে। এটা আমরা বিবেচনা করছি।’

‘বিইআরসির (বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন) সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। বিইআরসি একটি ইতিবাচক মতামত দিয়েছে। আমাদের একটা প্রসেস আছে, সেই প্রসেসটা ফলো করে আরও কিছু সময় বাড়ানোর চিন্তা করছি। আশা করছি, এটা গ্রাহকদের জন্য খুবই সহজ হবে। আমরা একটা সময় তাদের দেব।’

শিল্প ও বাণিজ্যিক গ্রাহকদের বিলম্ব ফি ছাড়া বিল পরিশোধের সুযোগ দেয়া হবে কি না- জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘এটা আবাসিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে। তবে শিল্প ও বাণিজ্যিক গ্রাহকদের ক্ষেত্রে সরকারের ডিসিশন হয়নি যে, সারচার্জ ছাড়াই তারা দিতে পারবেন। সেটা এখনও আগের মতোই আছে।’

করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে জুনের মধ্যে বিলম্ব মাশুল ছাড়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের সুযোগ দেয় সরকার।

গত ১০ জুন অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছিলেন, ‘বিল বকেয়া রাখার যে সুযোগ দেয়া হয়েছিল, তার মেয়াদ আর বাড়বে না। কারণ ইতোমধ্যে কোম্পানিগুলোর প্রচুর বকেয়া পড়ে গেছে। গত তিন মাসে গড়ে ১০ শতাংশ বিলও আসেনি।’

তিন মাসের বিল একসঙ্গে দেয়াটা গ্রাহকদের জন্য চাপ হয়ে যাবে- এমন প্রশ্নে প্রতিমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘অবশ্যই বার্ডেন (চাপ) হবে। এজন্য আমরা আগেই বলেছিলাম, প্রস্তুত থাকতে। গ্রাহকদের প্রতি মাসের বিল দেয়া হয়েছে। তবে আমরা বলেছিলাম, পরের মাসে বিল দিলেও সারচার্জ লাগবে না। কিন্তু আগামী ৩০ জুনের মধ্যে বিলগুলো পরিশোধ করতে হবে। এরপর একদিন পার হলেই সারচার্জ দেয়া লাগবে।’

সূত্র: জাগোনিউজ

আর/০৮:১৪/৫ জুলাই

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে