Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০ , ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৭-০৪-২০২০

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে শঙ্কামুক্ত ছিল না পাকিস্তান ক্রিকেট দল!

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে শঙ্কামুক্ত ছিল না পাকিস্তান ক্রিকেট দল!

ইসলামাবাদ, ০৪ জুলাই- ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ শেষ হয়েছে প্রায় এক বছর হয়ে গেলো। এক বছর পর এসে হঠাৎ তখনকার পাকিস্তান ক্রিকেট দলের আভ্যন্তরীন একটি বিষয় নিয়ে বিতর্ক উসকে দিলেন তখনকার পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল হক। পাকিস্তানের একটি টিভি চ্যানেলকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি মন্তব্য করে জানিয়ে দেন, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে পাকিস্তা দলের ক্রিকেটাররা সব সময়ই একটা শঙ্কায় থাকতো, এই বুঝি তাকে দল থেকেই বাদ দিয়ে দেয়া হলো।

পাকিস্তানের ব্যটিং কিংবদন্তি এবং সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম-উল হক একই সঙ্গে এটাও দাবি করেছেন যে, সরফরাজ আহমেদকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া মোটেও ঠিক হয়নি। তাকে আরও সময় দেয়া প্রয়োজন ছিল। তার মতে, একজন অধিনায়ককে যখন তার ভালো সময় থাকে তখন থেকে সমর্থন দেয়া উচিৎ। খারাপ সময় এলেও। এতে করে তার ভালো সময় ফিরতে সহজ হয়।

ইনজমাম-উল হক বলেন, ‘এমনকি গত বিশ্বকাপেও আমি অনুভব করেছি, অধিনায়ক এবং খেলোয়াড়রা ছিল অনেক বেশি চাপের মধ্যে। কারণ তারা চিন্তা করেছিল, যদি আমরা এই টুর্নামেন্টে ভালো করতে না পারি, তাহলে সম্ভবত দল থেকেই বাদ পড়ে যাবো। এ ধরনের পরিবেশ তৈরি হলে তা কখনোই ক্রিকেটের জন্য ভালো নয়।’

সরফরাজ আহমেদের পক্ষ নিয়ে ইনজামাম বলেন, ‘সরফরাজ পাকিস্তানের হয়ে অনেক উল্লেখযোগ্য জয় এবং সাফল্য পেয়েছে। একই সঙ্গে কিভাবে ভালো অধিনায়ক হওয়া যায়, তা শিখছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্য, যখন সে অভিজ্ঞতা এবং ভুলগুলো থেকে শিক্ষা নিতে শুরু করলো, তখনই তাকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হলো।’

২০১৬ সাল থেকে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ পর্যন্ত পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ইনজামাম-উল হক। তার এই সময়ে অধিকাংশ সময়ই অধিনায়ক ছিলেন সরফরাজ আহমেদ। ইনজামাম-উল হকের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে যখন প্রধান নির্বাচক হিসেবে মিসবাহ-উল হককে দায়িত্ব দেয়া হয় (একই সঙ্গে প্রধান কোচও), এরপরই সরফরাজ আহমেদকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়।

সরফরাজের গুনগান গেয়ে ইনজামাম বলেন, ‘সরফরাজ আমাদেরকে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতিয়েছে। টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষে এনে দিয়েছে। আমাদেরকে বেশ কিছু ভালো জয় উপহার দিয়েছে। অধিনায়ক হিসেবে তাকে আরও বেশ কিছু সময় দেয়া দরকার ছিল। কিন্তু করা হলো তার বিপরীতটা। যাতে তার আত্মবিশ্বাস এবং ধৈর্য্য কমে যায়।’

সরফরাজের পর সিনিয়র টেস্ট ব্যাটসম্যান আজহার আলিকে টেস্ট এবং তরুণ ক্রিকেটার বাবর আজমকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব প্রদান করেছে।

সূত্র: জাগোনিউজ

আর/০৮:১৪/৪ জুলাই

ক্রিকেট

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে