Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০ , ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.1/5 (7 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-০৬-২০২০

মানিকগঞ্জে করোনা পরীক্ষার ৯ শতাংশই আক্রান্ত

মানিকগঞ্জে করোনা পরীক্ষার ৯ শতাংশই আক্রান্ত

মানিকগঞ্জ, ৬ জুন- করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক এবং জেল জরিমানার বিধান থাকলেও মানিকগঞ্জের চিত্র ভয়াবহ। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, সাবান দিয়ে নিয়মিত হাত ধোয়া এবং স্যানিটাইজার ব্যবহারের অবস্থা আরও করুণ। প্রাতিষ্ঠানিক সুযোগ সুবিধাও অপ্রতুল। এ অবস্থায় সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি আইন প্রয়োগে কঠোর অবস্থান, জনপ্রতিনিধিসহ সমাজের নেতৃস্থানীয়দের সক্রিয় ভূমিকাই পারে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটনাতে এমনটাই মনে করেন মানিকগঞ্জের বিশিষ্টজনরা।

মানিকগঞ্জ সিভিল সার্জন দপ্তর সূত্রে জানাগেছে, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তিনজন। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ১৪ জন। গত চারদিনে ৮৮ জনসহ এ পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৮৫ জন। দুই হাজার ৭৬৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৮৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে মানিকগঞ্জে আক্রান্তের হার ৯ শতাংশের উপরে। যা অনেক জেলার থেকে বেশি।  অপরদিকে মানিকগঞ্জে জনসংখ্যা প্রায় ১৬ লাখ। এরমধ্যে মাত্র মাত্র দুই হাজার ৭৬৪জনকে পরীক্ষা করা হয়েছে। এ হিসাবে জেলার এক শতাংশ মানুষকেও  (০.১৭২৪) পরীক্ষার আওতায় আনা সম্ভব হয়নি। 

মানিকগঞ্জে সরকারী এবং বেসরকারী দুটি মেডিক্যাল কলেজ থাকলেও নেই কোন করোনভাইরাস পরীক্ষাগার। নমুনা সংগ্রহ করে জেলার বাইরে থেকে পরীক্ষা করিয়ে আনতে হচ্ছে। অপরদিকে মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে ১০০ শয্যার একটি আইসোলেশন ওয়ার্ড খোলা হলেও নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসা সামগ্রী এবং ডাক্তার, নার্সসহ স্বাস্থ্য কর্মী।

প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতার পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাক্তিগত সুরক্ষাই একমাত্র রক্ষাকবচ। অথচ সেখানেই রয়েছে বড় অবহেলা। গত কয়েকদিন সরজমিনে দেখা গেছে, জেলা শহর, উপজেলা সদরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক পড়া, হাত ধোয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার করার বিষয়গুলি কিছুটা মানা হলেও গ্রাম পর্যায়ে একেবাড়ে নড়বড়ে অবস্থা। হাটে বাজারে, দোকানপাটে, কর্মস্থলে, চায়ের স্টলসহ বিভিন্ন জনসমাগমস্থানে ব্যাক্তিগত সুরক্ষার কোনটাই মানা হচ্ছে না পুরোপুরি ভাবে। মাস্ক ব্যবহার করলেও দীর্ঘদিন ব্যবহারে অপরিস্কার। কেউ কেউ মুখ না ঢেকে ঝুলিয়ে রাখে থুতনিতে, কানে। সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করার সংখ্যা খুবই সামান্য। মাস্ক ব্যবহার না করলে জেল জরিমানার বিষয়টি অনেকে জানেনই না।
  
এ ব্যাপারে  শিক্ষক, এনজিও কর্মী, সংবাদ কর্মী, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের লোকজনের সাথে কথা বললে তারা জনান, ব্যাক্তিগত সুরক্ষায় অভ্যস্থ হওয়া একটা সময়সাপেক্ষ ব্যপার। সবাই দ্রুত এতে অভ্যস্ত হতে নাও পারেন। কেউ কেউ গুরত্ব নাও দিতে পারেন। সচেতনতার পাশাপাশি যদি কঠোরভাবে আইন প্রয়োগ করা হয় তা হলে বেশি ফল পাওয়া যাবে। তারা বলেন, প্রশাসন এবং আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীকে এ ব্যাপাারে কঠোর হতে হবে। একই সাথে প্রতিটি নাগরিক একে অপরকে ব্যাক্তিগত সুরক্ষার পদক্ষেপগুলো মেনে চললে অনুরোধ করবে। প্রয়োজনে প্রশাসনের মাধ্যমে বাধ্য করতে পদক্ষেপ নেবেন। 

এ ব্যাপারে মানিকগঞ্জের জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌস বলেন, প্রশাসন থেকে সচেতনা সৃষ্টি করতে মাইকিং, মিটিং সহ বিভিন্ন ভাবে প্রচারনা চালানো হচ্ছে। আইন প্রয়োগ করে জেল জরিমানাও করা হচ্ছে। তাতেও পুরোপুরি ভাবে ব্যাক্তিগত সুরক্ষার নিয়মগুলি মানা হচ্ছে না। এখন সময় এসছে আইন প্রয়োগে আরও কঠোর অবস্থান নেওয়ার।

সূত্র: কালের কন্ঠ

আর/০৮:১৪/৬ জুন

মানিকগঞ্জ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে