Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০ , ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-০৪-২০২০

লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের দুই সদস্য গোপালগঞ্জে ধরা

লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের দুই সদস্য গোপালগঞ্জে ধরা

গোপালগঞ্জ, ৪ জুন- লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। গতকাল বুধবার (৪ জুন) দিবাগত রাতে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার লোহাইর গ্রাম থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন মো. সেন্টু শিকদার (৪৫) ও মোসা. নার্গিস বেগম (৪০)। সেন্টু গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার যাত্রাবাড়ী গ্রামের মৃত রত্তন শিকদারের ছেলে। আর নার্গিস একই গ্রামের আ. রব মোড়লের স্ত্রী।

গণমাধ্যমে র‍্যাবের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৮ মে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা করে মানবপাচার চক্র। এ ছাড়া গুলিতে মারাত্মক আহত হন আরো ১১ বাংলাদেশি। বিষয়টি র‌্যাব-৮ এর নজরে এলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানবপাচার চক্রে জড়িত এই দেশে যারা রয়েছে তাদের সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ ও তাদেরকে গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে অভিযান পরিচালনা শুরু হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৮ জানতে পারে, দীর্ঘদিন ধরে একটি আন্তর্জাতিক চক্র ইতালিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে মোটা অংকের বেতনে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে মানবপাচার পরিচালনা করে আসছে। চক্রটির সদস্যরা বাংলাদেশ, লিবিয়া ও ইতালিতে সমানভাবে সক্রিয়। এদের শিকার মূলত মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের উঠতি বয়সের বেকার যুবকরা। তারা বাংলাদেশ থেকে যুবকদের প্রাথমিকভাবে লিবিয়ায় পাচার করে থাকে। পরবর্তীতে লিবিয়ায় অবস্থানরত চক্রের সদস্যরা সেদেশের  বন্দিশালায় তাদেরকে আটক রেখে বিভিন্নভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। এরপর ওই বন্দিদের নিকটাত্মীয়দের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। টাকা প্রাপ্তি সাপেক্ষে তাদেরকে লিবিয়া থেকে নৌকাযোগে অবৈধ পথে ইতালিতে গমনের সুযোগ করে দেওয়া হয়। ক্ষেত্র বিশেষে বন্দিপ্রতি পাঁচ থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত মুক্তিপণ আদায় করে বলে র‌্যাব জানতে পারে।

বলা হয়, র‌্যাবের একটি দল গতকাল বুধবার (৩ জুন) রাত ২টার দিকে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানাধীন লোহাইর গ্রাম থেকে মো. সেন্টু শিকদার ও মোসা. নার্গিস বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ওই চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকার করেন এবং প্রাপ্ত গোপন তথ্য সমূহের সত্যতা পাওয়া যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে মানবপাচার চক্রটির লিবিয়া অংশের অন্যতম দুই প্রধানের একজন হলেন গ্রেপ্তার সেন্টু শিকদারের ভাই বশির শিকদার। আর অপরজনের নাম সেলিম শেখ (৩৫)। তাদের নেতৃত্বে লিবিয়ার বন্দিশালায় পাচার বাংলাদেশি যুবকদেরকে অর্ধাহারে-অনাহারে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। গ্রেপ্তার সেন্টু শিকদার ও নার্গিস বেগম বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়াদের নিকটাত্মীয়দের কাছ থেকে টাকা তোলেন।

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে  মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও উল্লেখ করা হয় বিজ্ঞপ্তিতে। 

সূত্র: কালের কণ্ঠ

আর/০৮:১৪/৪ জুন

গোপালগঞ্জ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে