Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি, ২০২০ , ১৫ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.3/5 (13 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-২৭-২০১১

সন্ত্রাসের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

সন্ত্রাসের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড
ঢাকা, ২৬ ডিসেম্বর: সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০১১-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে সন্ত্রাসী কাজে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত থাকার অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দেয়ার বিধান রাখা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সন্ত্রাসের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে মত দিয়েছে।
এছাড়া শাস্তির মেয়াদ তিন বছরের পরিবর্তে চার বছর করা হয়েছে এবং আর্থিক দণ্ড হবে ন্যূনতম দশ লাখ টাকা।
সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার সাপ্তাহিক বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এর আগে গত ১১ জুলাই মন্ত্রিসভা নীতিগত অনুমোদন দিয়েছিল।
সোমবার সচিবালয়ে পিআইডির সম্মেলন কক্ষে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের এ কথা জানান।
প্রেস সচিব বলেন, সন্ত্রাসবিরোধী আইন ছাড়াও মন্ত্রিসভা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন ২০১১’র খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়া রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক-রাকাব’র বাস্তবায়নাধীন রাকাব স্মল এন্টারপ্রাইজ ক্রেডিট প্রোগাম (এসইসিপি) শীর্ষক সমাপ্ত প্রকল্পকে সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। সভায় পাটনীতি ২০১১’র খসড়াও অনুমোদন দেয়া হয়।

যা থাকছে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে
বাংলাদেশের অখণ্ডতা, সংহতি, নিরাপত্তা বা সার্বভৌমত্ব বিপন্ন করতে কাউকে হত্যা, গুরুতর আঘাত, আটক বা অপহরণের উদ্দেশ্যে বা কোনো ব্যক্তির সম্পত্তির ক্ষতিসাধনকল্পে বিস্ফোরক দ্রব্য, দাহ্য পদার্থ, আগ্নেয়াস্ত্র বা অন্য কোনো ধরনের রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার কিংবা নিজ দখলে রাখাসহ অন্যান্য অপরাধ সুস্পষ্ট অপরাধ এ আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সংশোধনীতে সন্ত্রাসী কাজে জড়িত থাকা অথবা এজন্য আর্থিক লেনদেনের জন্য অপরাধের শাস্তি বাড়ানো হয়েছে। এতে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি শাস্তির মেয়াদ তিন বছরের পরিবর্তে চার বছর এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ড আরোপ করা হয়েছে। এতে আর্থিক দণ্ডের পরিমাণ সংশ্লিষ্ট সম্পত্তির দ্বিগুণ মূল্যের সমপরিমাণ অথবা দশ লাখ টাকা করা হয়েছে।

বর্তমান আইনে সন্ত্রাসী কার্যক্রমের ধরন ও প্রকৃতি পরিবর্তনের কারণে বিশেষ করে সন্ত্রাসী কার্যক্রমে অর্থ যোগানের অপরাধ বিষয়টির সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা নেই। এতে ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে অর্থপাচারের বিষয়ে উল্লেখ থাকলেও ব্যাংক ছাড়া অন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যম অর্থ পাচারের বিষয়ে কোনো কিছু উল্লেখ নেই।

ব্যাংক বা ব্যাংকিং চ্যানেলের রিপোর্ট দাতা সংস্থা অন্তর্ভুক্ত করা, সন্দেহজনক লেনদেন সংক্রান্ত তথ্য অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সঙ্গে নেয়া-দেয়া, কোনো আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক বা দ্বিপাক্ষিক চুক্তি জাতিসংঘের কনভেনশন বা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে নেয়া সিদ্ধান্তের আওতায় কোনো ব্যক্তি বা সত্ত্বার হিসাব জব্দ করার উদ্যোগ নেয়া ও নিষ্পত্তি করা এবং সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন সংক্রান্ত তথ্য সরবরাহের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে ক্ষমতা দেয়া সংক্রান্ত বিধান সংযোজন করার বিধান রাখা হয়েছে।

সংশোধিত এ আইনে এ সংক্রান্ত ঘটনার পুলিশি তদন্তের সময়সীমা ৩০ দিন থেকে বাড়িয়ে ৬০ দিন, পরবর্তীতে প্রয়োজনে সময় বাড়ানোর মেয়াদ ১৫ দিনের পরিবর্তে ৩০ দিন রাখা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোনো বিশেষ ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক পুনঃতদন্তের পরিবর্তে অধিকতর তদন্ত করার নির্দেশনা দেয়ার বিধান সংযোজিত হয়েছে।

নতুন আইনে কোনো অপরাধের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা সত্তার সম্পত্তি, কোনো বিদেশী রাষ্ট্র বা সংস্থার অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে কিংবা কোনো আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক বা দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি, জাতিসংঘের কনভেনশন বা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে নেয়া সিদ্ধান্তের আওতায় জব্দ করা যাবে। ক্ষেত্রমতো সরকার, উপযুক্ত আদালত কিংবা সংশ্লিষ্ট রেজুলেশনের এ ধরনের ব্যক্তি বা সত্তার সম্পত্তি জব্দ এবং নিষ্পত্তিযোগ্য বাজেয়াপ্ত এবং ফেরৎ দেয়ার বিধানও এতে নতুন সংযোজন করা হয়।

তবে আন্তঃরাষ্ট্রীয় পারস্পরিক সম্মতি ছাড়া এ আইনের অধীনে কোনো অপরাধের অভিযোগ বিচারের জন্য বাংলাদেশের কোনো নাগরিককে কোনো বিদেশী রাষ্ট্রের কাছে সমর্পণ করা যাবে না।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে