Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , ৭ আশ্বিন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (61 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০১-২০১৩

ইন্দো-বাংলা পাসপোর্ট বন্ধের সিদ্ধান্ত বদলের আর্জি


ইন্দো-বাংলা পাসপোর্ট বন্ধের সিদ্ধান্ত বদলের আর্জি
আগরতলা, ০১ ডিসেম্বর- ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের ‘ইন্দো বাংলা পাসপোর্ট’ (আইবিপি) বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছে ত্রিপুরা রাজ্য সরকার। ভারত সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রভাব পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।
 
সম্প্রতি ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সংশোধিত ভ্রমণ চুক্তি অনুযায়ী ইন্দো-বাংলাদেশ পাসপোর্ট (আইবিপি) বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। চলতি মাসের প্রথম দিকেই এক বিবৃতিতে বিদেশ মন্ত্রক জানায়, ৩০ নভেম্বরের পর নতুন করে আর কোন ইন্দো-বাংলাদেশ পাসপোর্ট দেওয়া হবে না। যাঁদের এই বিশেষ পাসপোর্ট রয়েছে তাঁরা মেয়াদ উত্তীর্ণ না হওয়ার পর্যন্ত এটি ব্যবহার করে বাংলাদেশে যেতে পারবেন।
 
১৯৭২ সালের আগস্টে দুই দেশের মধ্যে ইন্দো-বাংলাদেশ (আইবিপি) পাসপোর্ট ব্যবস্থা চালু হয়। বাংলাদেশ সীমান্ত সংলগ্ন পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা, আসাম, নাগাল্যান্ড, মণিপুর, মিজোরাম, মেঘালয় এবং অরুনাচল প্রদেশের বাসিন্দাদের এই পাসপোর্ট দেওয়া হত। এই পাসপোর্টের মাধ্যম ভারতীয় নাগরিকরা একমাত্র বাংলাদেশেই যেতে পারেন। নতুন এই নির্দেশিকা সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলোকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।
 
সেই প্রসঙ্গেই শনিবার ত্রিপুরা রাজ্য সরকাররের এক বলিষ্ঠ আধিকারিক এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পুনবিবেচনা করা উচিত বলেও মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, রাজ্যের বাসিন্দাদের আন্তর্জাতিক পাসপোর্ট পাওয়ার ক্ষেত্রে নানা রকম অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। কারণ এর কিছু কাজ ভারতের বেসরকারি প্রতিষ্ঠান টাটা গ্রুপের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে করতে হয় সেক্ষেত্রে টাটাদের অফিস কলকাতায় স্থানান্তরিত হওয়ার কারণে এরাজ্য থেকে কোন তথ্য জানা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন আগরতলায় মিনি পার্সপোর্ট সেবা কেন্দ্র স্থাপিত না হওয়া পর্যন্ত আইবিপি চালু রাখার বিষয়ে রাজ্য সরকারের তরফে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকে আর্জিও জানানো হয়েছে।
 
বিদেশ মন্ত্রক সূত্রে খবর, কয়েক বছর আগেও গড়ে প্রতিটি রাজ্যে মাসে প্রায় ৩০০ থেকে ৪০০ টি করে ইন্দো বাংলা পাসপোর্টের আবেদন জমা পড়লেও ইদানিং তা কমে ৪০-৫০ টিতে দাঁড়িয়েছে। এর মূল কারণ হল আবেদনের পর পুলিশি যাচাই পর্ব শেষে পাসপোর্ট হাতে আসতে প্রায় মাস দেড়েক সময় লাগে। প্রায় একই সময়ে পাওয়া যায় আন্তর্জাতিক পাসপোর্টও। যদিও ইন্দো-বাংলা পাসপোর্টের খরচ বেশ কম ৫০০ রুপি। আর সাধারণ আন্তর্জাতিক পাসপোর্টের খরচ ১৫০০ রুপি।

 

ত্রিপুরা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে