Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ , ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-১৭-২০১৩

প্রতিশ্রুতি পেলে নির্বাচনে যাবেন এরশাদ

সেরাজুল ইসলাম সিরাজ



	প্রতিশ্রুতি পেলে নির্বাচনে যাবেন এরশাদ
ঢাকা, ১৭ নভেম্বর- সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এক তরফা নির্বাচনে যাবেন না ঘোষণা দিয়েছেন। প্রতিনিয়ত এ ঘোষণাই দিয়ে যাচ্ছেন তিনি।
 
তবে ঘোষণা যাই থাকুক, নিরপেক্ষ নির্বাচনের গ্যারান্টি পেলে বিএনপি না এলেও আওয়ামী লীগের অধীনেই জাপা অংশ নিতে পারে বলে জানিয়েছে দলটির নির্ভরযোগ্য সূত্র।
 
আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিয়ে এখনো সংশয়ে এরশাদ। এ জন্যই তারা আগে নিরপেক্ষ নির্বাচনের গ্যারান্টি চান। এই গ্যারান্টি আওয়ামী লীগ দিলে চলবে না। তৃতীয় কোনো পক্ষের মাধ্যমে এই গ্যারান্টি পেতে চায় জাপা। তা হতে পারে অন্য কোনো দেশের মধ্যস্থতায়।
 
জাতীয় পার্টি মনে করছে, দেশের বেশিরভাগ মানুষ এখন আওয়ামী লীগ সরকারকে দেখতে চায় না। ভোটে যদি বিএনপি-জামায়াত না আসে সব ভোট পড়বে জাপার বাক্সে। বিএনপি-জামায়াতও আওয়ামী লীগ ঠেকাতে জাপার প্রার্থীদের ভোট দেবে।
 
আর এতে আওয়ামী লীগ নয়, সরকার গঠন করবে জাতীয় পার্টি। এমন স্বপ্নই দেখতে শুরু করেছেন দলটির নেতারা। একই সঙ্গে রয়েছে সরকারের চাপ। যদি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায় তাহলেও প্রধান বিরোধীদলে বসবে জাপা।
 
আর তেমটি হলে শেষ বয়সে জাতীয় পার্টিকে একটি ভিত্তির উপর দাঁড় করাতে চান এরশাদ। যাতে তার দলের মাধ্যমে তিনি অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারেন। ভোটে গেলে বিএনপির সঙ্গে গোপন সমঝোতা করেই যাবে। নির্বাচনের ৩ বছর পর পুনরায় ভোটের প্রতিশ্রুতি থাকবে।
 
এতে নাকি বিএনপিরও সায় রয়েছে। বিএনপি চাইবে নির্বাচন ঠেকাতে। যদি তা নাই সম্ভব হয়, তাহলে শেখ হাসিনার চেয়ে এরশাদকেই তারা বেছে নেবেন। এর পেছনে বিএনপিরও মতলব রয়েছে। তা হচ্ছে তাদের পরিক্ষীত মিত্র জামায়াতকে নিয়ে।
 
দলটির জামায়াত নির্ভরতাই তাদের এই পথে চলতে আগ্রহী করে তুলেছে। যুদ্ধাপরাধ ইস্যুতে জামায়াতের অনেক নেতার নামেই এখন ফাঁসির খড়গ ঝুলছে। বিএনপি এই ইস্যুতে নিজেকে জড়াতে চায় না বলে জাপা সূত্র জানিয়েছে।
 
ফাঁসি দিয়ে জামায়াতকে হারাতে চায় না। আবার যুদ্ধাপরাধীদের ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের হাতে ইস্যু তুলে দিতে চান না। বিশেষ করে তারেক রহমানের ভবিষ্যত নষ্ট করতে চান না খালেদা জিয়া।
 
দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান রাজাকার শাহ আজিজুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী করেছিলেন। সেই অপবাদ এখনও সইতে হয় বিএনপিকে। সে কারণে অনেক কথা বললেও যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে সরাসরি কোনো কর্মসূচি দেয় নি বিএনপি।
 
জাপার সঙ্গে সমঝোতা থাকবে, ক্ষমতায় এলে ৩ বছরের মধ্যে যুদ্ধাপরাধী এবং পিলখানা হত্যা মামলার বিচার শেষ করবে। ততদিনে বিএনপি দায়সারা গোছের কর্মসূচি অব্যাহত রাখবে সরকারের বিরুদ্ধে। এতে একসঙ্গে দুই ‘দায়’-‘সারা’ হয়ে যাবে।
 
অন্যদিকে, এর মাধ্যমে এরশাদ ১৯৮৬ সালের ঋণও কিছুটা হালকা করতে চান। ওই নির্বাচনে বিএনপি না এলেও আওয়ামী লীগ নির্বাচনে এসেছিলো। পরে আন্দোলনের মুখে পতন হয় জাপা সরকারের।
 
নিজের দলে ৩শ’ যোগ্য প্রার্থীই নেই। একেও সমস্যা মনে করছে না জাতীয় পার্টি। আরপিও ধারা পরিবর্তন হওয়ায় বিএনপির অনেক বড় নেতা তাদের দলে ভিড়বে বলেও জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির একাধিক প্রেসিডিয়াম সদস্য।
 
বিএনপি নির্বাচনে না এলে তাদের অর্ধশতাধিক নেতা জাপায় যোগ দিয়ে নির্বাচন করতে পারেন বলে এরশাদের ঘনিষ্ট একটি স‍ূত্র জানিয়েছে।
 
এরশাদ ঘোষণা দিয়েছেন, একতরফা নির্বাচনে গিয়ে বেঈমান হতে চান না। যে কারণে বিএনপি না এলে জাপা অংশ নেবে না। এরশাদের এমন বক্তব্যকে বেশিরভাগ নেতাই আস্থা রাখতে পারছেন না।
 
অনেকেই নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, শেষ পর্যন্ত জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশ নেবে। তখন হয়তো সেভাবে নতুন করে যুক্তি দেখাবেন।
 
এদিকে কয়েকদিনের ব্যবধানে এরশাদও সুর কিছুটা নরম করে ফেলেছেন। শনিবার ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশে যুব সংহতির সম্মেলনে বলেন, নির্বাচনে গেলে জনগণ বেঈমান বলবে। আর না গেলে একতরফা নির্বাচন হবে। সেই সরকার এক বছর থাকতে পারে। বেশিও থাকতে পারে। আবার না থাকতে পারে।
 
এরশাদ আরও বলেন, এখন জনগণক কোন সিদ্ধান্ত নেবে? ভোট, না মিলিটারি ক্যু, নাকি সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে সরকার পরিবর্তন করবে।
 
এখানে তিনি এ কথাও বলেন, জাতীয় পার্টি নির্বাচনমুখী দল নির্বাচনে অংশ নিতে চায়।
 
এখন শুধু অপেক্ষার পালা।

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে