Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.1/5 (9 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১৬-২০২০

রিজিক কমবেশি কেন হয়?

রিজিক কমবেশি কেন হয়?

আল্লাহ তায়ালা জীবন-উপকরণ দান করেন। মানুষ নিতেও পারে না দিতেও পারে না, মাধ্যম হতে পারে মাত্র।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তা’য়ালা বলেন, জমিনে বিচরণকারী যত প্রাণী আছে, সবার রিজিকের দায়িত্ব আল্লাহর ওপরে। (সুরা হুদ: আয়াত ৬)

রিজিক মানে শুধু খাদ্য সামগ্রী নয়, বরং জীবন-উপকরণের সবকিছু। অর্থাৎ সব প্রাণীর জীবন-উপকরণের দায়িত্ব আল্লাহ তায়ালা নিজেই গ্রহণ করেছেন।

আল্লাহ তায়ালা তার বান্দাদের প্রতি দয়ালু, যাকে ইচ্ছা রিজিক দান করেন, তিনি প্রবল পরাক্রমশালী। ( সুরা শুরা: আয়াত ১৯)

রিজিক কমবেশি কেন হয়? কেউ পায় কম, কেউবা বেশি। কেউ ধনী হয়, কেউবা গরীব। এর উত্তরও আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে দিয়েছেন ; আল্লাহ তায়ালা যদি তার সব বান্দাকে প্রচুর রিজিক দিতেন, তাহলে তারা পৃথিবীতে বিপর্যয় সৃষ্টি করত। কিন্তু তিনি যে পরিমাণ ইচ্ছা (রিজিক) সে পরিমাণ অবতীর্ণ করেন। (সুরা শুরা: আয়াত ২৭)

অপর আয়াতে এসেছে, তারা কি তোমার পালনকর্তার অনুগ্রহ বণ্টন করে?( না, বরং ) আমিই তাদের মধ্যে রিজিক বণ্টন করি পার্থিব জীবনে এবং তাদের একজনের মর্যাদা অপরজনের ওপরে উন্নত করেছি; যেন তারা একে অন্যকে সেবক রূপে গ্রহণ করতে পারে। (সুরা জুখরুফ: আয়াত ৩২)

আরও এরশাদ হয়েছে, তিনিই তো তোমাদের জন্য জমিনকে সুগম করে দিয়েছেন; সুতরাং তোমরা এর পথে-প্রান্তরে বিচরণ কর এবং তার রিজিক থেকে আহার কর। আর তার নিকটই তোমাদের পুনরুত্থান। ( সুরা মুলুক : আয়াত ১৫)

আল্লাহ তায়ালা বান্দার তাকদিরে যা লিখে রেখেছেন এবং যতোটুকু লিখে রেখেছেন, তা সে ততোটুকু পাবেই। চাই সে অক্ষম হোক বা সক্ষম।

অনেক সময় এমন হয়, কোনো কারণে অফিসে নির্ধারিত বোনাস আমি পেলাম না, না পেয়ে বললাম, ইস,একটুর জন্য বা এই কাজের জন্য বোনাসটা পেলাম না। আসলে বোনাস আমার তাকদিরেই ছিল না। আল্লাহ তায়ালা আমার ভাগ্যেই রাখেননি। রাখলে আমি অবশ্যই পেতাম।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, পৃথিবীর সব মানুষ মিলে তোমার ততটুকুই ক্ষতি করতে পারবে যতোটুকু আল্লাহ তায়ালা চান। তেমনিভাবে ততটুকুই উপকার করতে পারবে যতোটুকু আল্লাহ তায়ালা চান।

মেশকাত শরীফে আছে, আল্লাহ তায়ালা আসমান এবং জমিন সৃষ্টি করার পঞ্চাশ হাজার বছর পূর্বে মানুষের তাকদির লিখে রেখেছেন।

সুতরাং আমি যতো কিছুই করি, পাবো ঠিক ততটুকুই, যতোটুকু আমার ভাগ্যে লেখা আছে।

এখানে এসে অনেকেই ভুল করে ফেলেন। মনে করেন, আল্লাহ তায়ালা নিজেই যখন রিজিকের ভার গ্রহণ করেছেন, তাহলে আর চাকরি-বাকরি করার দরকার কী! আল্লাহ তায়ালার ওপরে তাওয়াককুল করলাম, আল্লাহ আমাকে আহার্য দান করবেন।

আসলে ব্যাপারটি এমন নয়। আল্লাহ তায়ালা যেমনিভাবে নিজেকে রাজিক ও রাজ্জাক পরিচয় দিয়েছেন এবং নিজেই রিজিক দাতা হওয়ার উন্মুক্ত ঘোষণা দিয়েছেন, তেমনিভাবে রিজিককে অন্বেষণ করারও নির্দেশ দিয়েছেন।

অর্থাৎ, আল্লাহ তায়ালা আমাকে খাওয়াবেন-এই কথা বলে হাত গুটিয়ে বসে থাকার সুযোগ নেই। কাজ করতে হবে। রিজিককে কর্মের মাধ্যমে খুঁজে বের করতে হবে।

কারণ, আল্লাহ তায়ালা রিজিককে কর্মপ্রচেষ্টার সাথে সংযুক্ত করে দিয়েছেন এবং প্রত্যেক মাখলুকের রিজিক বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে দিয়েছেন।

কারও রিজিক আসমানে, সে বিমান চালিয়ে সেখান থেকে তার প্রাপ্য সংগ্রহ করে। কারও রিজিক জমিনে ; সে চাকরি করে, চাষাবাদ করে, ব্যবসা করে তার রিজিক সংগ্রহ করে। কারও রিজিক সমুদ্র তলদেশে, সেখান থেকেই সে তা সংগ্রহ করে।

কারও রিজিক মেঘের ওপরে, সেখান থেকেই তাকে অর্জন করতে হয়। কারও রিজিক মাটির নিচে কিংবা শক্ত পাথরের ভেতরে, মাটি-পাথর ভেঙে তাকে রিজিক বের করতে হয়।

কারও রিজিক ময়লা,দূষিত পানিতে, তাকে সেখান থেকেই তা ওঠাতে হয়। কারও রিজিক আগুনে, আগুন নিভিয়ে তাকে নির্ধারিত রিজিক সংগ্রহ করতে হয়। এভাবে আল্লাহ তায়ালা বান্দার রিজিক জমিনের বিভিন্ন প্রান্তরে ছড়িয়ে দিয়েছেন। যার রিজিক যেখানে আছে, সেখান থেকে তুলে আনতে হবে।

দুনিয়া বা ধনসম্পদ উপার্জনের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টাই করতে হবে। তবে, চেষ্টার পরেও কাঙ্ক্ষিত বস্তু অর্জিত না হলে আক্ষেপ না করে মনে করতে হবে, এটা আমার ভাগ্যে ছিল না। বাকি চেষ্টা করতেই হবে। যেমন হযরত উমর রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আসমান স্বর্ণালঙ্কার ফেলে না।

একবার এক সাহাবী উটে সওয়ার হয়ে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে আগমন করলেন। রাসূল তখন মসজিদে বসা ছিলেন। সাহাবী উটকে মসজিদের সামনে রেখে রাসূলের সঙ্গে দেখা করতে চলে গেলেন। কথাবার্তা শেষে মসজিদের বাইরে এসে দেখেন উট নেই। চিন্তিত হয়ে পড়লেন, উট কোথায় গেল!

হুজুর সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে বললেন, হুজুর,আমার উট! আমি তো আল্লাহ তায়ালার ওপরে তাওয়াককুল করে এখানেই রেখে গিয়েছিলাম! জবাবে হুজুর সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আগে উট বাঁধবে এরপরে তাওয়াককুল করবে।

ওপরের হাদিস দ্বারা বুঝা গেল, মাধ্যম অবশ্যই গ্রহণ করতে হবে। বসে থাকার কোনো সুযোগ নেই। যে ফসল চায়, তাকে ক্ষেতখামার করতে হবে। যে রোগ থেকে আরোগ্য চায়, তাকে ওষুধ খেতে হবে।

নয়তো ব্যাপারটি ঠিক এমন হয়ে যাবে, যেমন এক ব্যক্তি হযরত আশরাফ আলী থানবীর (রহ:) কাছে এসে বলল, হযরত, আমার জন্য দুআ করবেন, যেন আমি সন্তান লাভ করি। বুজুর্গ বললেন, আচ্ছা দুআ করব। বেশ কিছুদিন পরে দুআ প্রার্থী লোকটি পুনরায় এল।

এবার কিছুটা আক্ষেপ এবং অভিযোগের সুরে বলল, হযরত, সন্তান তো হয় নি! আপনি কেমন দুআ করেছেন! থানবী (রহ.) জিজ্ঞেস করলেন তুমি বিয়ে করেছো কি? এবার লোকটি মুচকি হেসে উত্তর দিল, না হুজুর, বিয়েটা এখনও করা হয় নি।

হুজুর এবার রেগে গিয়ে বললেন, আল্লাহ তায়ালা সন্তান কি তোমার পেটেই দিবেন!

সন্তান পেতে হলে যেমন আগে বিয়ে করতে হবে, ঠিক তেমনি রিজিক পেতে হলে, সম্পদ পেতে হলে কর্ম-প্রচেষ্টা চালাতে হবে। এটাই বিধান। এটাই আল্লাহ তায়ালার নির্দেশ। অতএব, তার নির্দেশের বাইরে যাওয়া উচিত নয়।

এন এইচ, ১৭ জানুয়ারি

ইসলাম

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে