Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০১-১৪-২০২০

সিনেটে ট্রাম্পের বিচার শুরু হতে পারে এ সপ্তাহেই

সিনেটে ট্রাম্পের বিচার শুরু হতে পারে এ সপ্তাহেই

ওয়াশিংটন, ১৪ জানুয়ারি- যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন ট্রায়াল সিনেটে শুরু হতে পারে এ সপ্তাহেই। অভিশংসন প্রস্তাব সিনেটে পাঠাতে বুধবারই প্রতিনিধি পরিষদে ভোটের ঘোষণা দিয়েছেন স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি।

মঙ্গলবার ন্যান্সি পেলোসি এ ঘোষণা দেন বলে জানিয়েছে সিএনএন। ট্রাম্পের বিচার শুরুর জন্য অভিশংসন প্রস্তাব সিনেটে পাঠানো জরুরি। কিন্তু সেটি আনুষ্ঠানিকভাবে পাঠানোর আগে আরো একটি কাজ করতে হবে পেলোসিকে। আর তা হচ্ছে ট্রাম্পের বিচার করার জন্য কয়েকজন আইনপ্রণেতার নাম ঘোষণা করা। যাদেরকে বলা হচ্ছে ‘ইমপিচমেন্ট ম্যানেজার’।

এই ম্যানেজারদের নাম ঘোষণা করে হাউজে একটি প্রস্তাব পাসের পরই সিনেটে যাবে অভিশংসন প্রস্তাব (আর্টিকেলস অব ইমপিচমেন্ট)। এই ম্যানেজারদের নামও আগামীকাল বুধবারই জানানো হবে বলে জানিয়েছেন পেলোসি।

বুধবার হাউজে ভোটের পর অভিশংসন প্রস্তাব সিনেটে গেলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিচার শুরু হতে পারে আগামী মঙ্গলবারই। আইনপ্রণেতারা এমনটিই ধারণা করছেন।

ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কাজে বাধা সৃষ্টির অভিযোগে ট্রাম্পকে অভিশংসনের প্রস্তাব কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে পাস হয় গতবছর ডিসেম্বরে।

এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে ট্রাম্প তৃতীয় প্রেসিডেন্ট হিসাবে গুরুতর অভিযোগে হাউজে অভিশংসিত হন।এখন তিনি প্রেসিডেন্ট পদে থাকতে পারবেন কি না,সেই সিদ্ধান্ত হবে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে।

হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি এতদিন অভিশংসন প্রস্তাবটি সিনেটে পাঠানোর পদক্ষেপ নেননি। কারণ, তিনি চেয়েছিলেন বিচারের নিয়মবিধি এবং প্রক্রিয়ার রূপরেখা ঠিক হওয়ার পরই তা সিনেটে পাঠাতে। তাই এ পদক্ষেপটি নিতে কয়েকসপ্তাহ লেগে গেল।

মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে পেলোসি বলেছেন, “আমেরিকার জনগণ সত্য জানার অধিকার রাখে। আর সংবিধান বিচার দাবি করে। হাউজ (প্রতিনিধি পরিষদ)এখন ১৫ জানুয়ারি বুধবার ভোটাভুটির মধ্য দিয়ে আর্টিকেলস অব ইমপিচমেন্ট সিনেটে স্থানান্তরের কাজ শুরু করবে এবং ইমপিচমেন্ট ম্যানেজারদের নাম জানাবে।”

সিনেটে ট্রাম্প বিচারের মুখোমুখি হওয়ার পর শুনানি শেষে তার অপসারণের পক্ষে দুই তৃতীয়াংশ ভোট পড়লে প্রেসিডেন্ট পদ ছাড়তে হবে তাকে। তবে রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত সিনেটে সে সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

ট্রাম্পের আগে প্রেসিডেন্ট এন্ড্রু জনসন এবং বিল ক্লিনটন প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত হয়েছিলেন। তবে কাউকেই সিনেট পদচ্যুত করেনি।

আর/০৮:১৪/১৪ জানুয়ারি

উত্তর আমেরিকা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে