Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ , ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (15 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-২৩-২০১৯

এসআইয়ের পরকীয়ায় ভাঙল দুই বোনের সংসার!

এসআইয়ের পরকীয়ায় ভাঙল দুই বোনের সংসার!

গাজীপুর, ২৩ ডিসেম্বর - শাহানা আর সোহানা দুইবোন (ছদ্মনাম)। দু’জনই বিবাহিতা। বড়বোন শাহানা দুই এবং ছোট বোন সোহানা এক সন্তানের জননী। কিন্তু পুলিশের এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে ভেঙে গেছে ওই দুই বোনের সংসার।

চাঞ্চল্যকার এ ঘটনা ঘটেছে গাজীপুরের কালীগঞ্জের ফুলদি গ্রামে। এ ঘটনায় বড় বোনের স্বামী উপজেলার দড়িসোম গ্রামের আল-আমিন হোসেন (৩২) ওই এসআইয়ের কু-কর্মের বিচার চেয়ে গাজীপুরের পুলিশ সুপার ও পুলিশ সদর দপ্তরের লিখিত অভিযোগ করেছেন।  

অভিযুক্ত ওই এসাআইয়ের নাম মাইন উদ্দিন ওরফে মাইনুল। তিনি বিবাহিত এবং গত শুক্রবার সকাল পর্যন্ত কালীগঞ্জ থানায় কর্মরত ছিলেন। ৬ মাস আগে তাঁর বদলির আদেশ হলেও নতুন কর্মস্থলে যাননি। অভিযোগের বিষয়টি জানাজানির পর তিনি গত শুক্রবার তড়িঘড়ি কাপাসিয়া থানায় যোগদান করেছেন।

আল আমিন জানান, তিনি টাইলস্ মিস্ত্রির কাজ করেন। ১২ বছর আগে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন শাহানাকে (ছদ্মনাম)। সংসারে তার ১১ বছরের একটি ছেলে ও ৩ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। ওই এসআই তার সুখের সংসার ভেঙে তছনছ করে দিয়েছেন। শ্বশুরবাড়ি এলাকায় গিয়ে তাঁর সুন্দরী শ্যালিকার সঙ্গে পরিচয় এবং মোবাইল নম্বর আদান-প্রদান হয় এসআইয়ের। পরে তাদের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ ঘটনায় শ্যালিকার সংসারে অশান্তির সৃষ্টি হয়। পরে ওই এসআইর বিয়ের প্রলোভনে শ্যালিকা স্বামীকে ডিভোর্স দেয়। কয়েকদিন পর এসআই তাঁর শ্যালিকার সাথে দেখা করতে শ্বশুরবাড়ি যায়। শালিকা বাড়ড়ি না থাকায় পরিচয় হয় আল-আমিনের স্ত্রীর সাথে। একইভাবে নানা ছলনা দিয়ে তাঁর স্ত্রীর সাথেও পরকীয়া এবং শারীরিক সম্পর্ক পড়ে তোলে এসআই।

আল-আমিন অভিযোগ করে বলেন, এসআইয়ের সঙ্গে কথা বলে বোঝানোর চেষ্টা করেও কাজ হয়নি। উল্টো মিথ্যা মামলা ও প্রাণনাশের হুমকি দেয়। এপথ থেকে ফিরে আসার চাপ দেয়ায় একমাস আগে সন্তান রেখে স্ত্রী বাবার বাড়ি চলে গেছে।

এ ঘটনায় তিনি কালীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ (নং ৫২৯) ডায়েরি করেছেন। স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের সাথে একাধিকবার ফোনে এবং দেখা করে কথা বলেও কোনো কাজ হয়নি। উপায়ন্তর না দেখে তিনি ১৯ ডিসেম্বর বিষয়টি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।  

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে এসআই মাইন উদ্দিন বলেন, ওই দুইবোনের সাথে কোনো পরকীয়ার সর্ম্পক নেই। মোবাইলে কথাবার্তা হতো। শত্রুপক্ষ এসব মিথ্যা রটনা রটাচ্ছে। অভিযোগের বিষয়টি পারিবারিকভাবে মিটানো হচ্ছে।

কালীগঞ্জ ও কাপাসিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পংকজ দত্ত জানান, পরকীয়ার ঘটনাটি সত্য নয়। পূর্ব পরিচয়ের সূত্রে ওই দুই নারীর সাথে এসআই মাইনের কথা হতো।

সূত্র : কালের কণ্ঠ
এন এইচ, ২৩ ডিসেম্বর

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে