Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ২১ মে, ২০১৯ , ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.8/5 (16 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-০৭-২০১৩

ডিভিসির প্রকল্প হবেই, বৈঠকের পর দাবি মন্ত্রীর


	ডিভিসির প্রকল্প হবেই, বৈঠকের পর দাবি মন্ত্রীর
পুরুলিয়া, ৭ নভেম্বর- ডিভিসি-র সমস্যা সমাধানে রাজ্য প্রশাসনের নির্দেশে জেলা প্রশাসনকে নিয়ে বৈঠক করলেন মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো৷ বুধবার দুপুরে পুরুলিয়ার জেলাশাসক কার্যালয়ে রাজ্যের স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও স্বনিযুক্তি প্রকল্পের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো,  সভাধিপতি সৃষ্টিধর মাহাতো, জেলাশাসক তন্ময় চক্রবর্তী ও রঘুনাথপুরের বিধায়ক পূর্ণচন্দ্র বাউরিকে নিয়ে বৈঠক করেন৷ সেই সঙ্গে রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের নির্দেশে দলগতভাবেও আন্দোলনরত জমিহারাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা শুরু করে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব৷ 
 
জেলাশাসক ডিভিসির সেই ই-মেল না পেলেও ডাকবিভাগে পাওয়া চিঠি পান এদিন৷ সেই চিঠির ভিত্তিতে প্রকল্পের ব্যাপারে সবরকম প্রশাসনিক সাহায্যের আশ্বাস দিয়ে ফ্যাক্স মারফত এদিন চিঠি পাঠান জেলাশাসক৷ বৈঠক শেষে মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো বলেন, "রঘুনাথপুরে ডিভিসি-র দ্বিতীয় পর্যায় অন্য রাজ্যে যাবে না৷ রঘুনাথপুরেই হবে৷" কীভাবে সমস্যার সমাধান করা যায় প্রশাসন দেখছে৷ তবে ডিভিসি-কেও নমনীয় হতে হবে৷" তবে সভাধিপতি বলেছেন, ডিভিসি-কে সিপিএম ব্যাক করছে৷ শিল্প সংস্হা নিজেরা জমিহারাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সমস্যা মেটানোর চেষ্টা না করেই প্রশাসনের উপর দোষ চাপাচেছ৷ 
 
এদিকে, আগামী জ্ঝ নভেম্বর রঘুনাথপুরের বি টিম গ্রাউন্ডে সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই-র রাজ্য কমিটি এই এলাকায় শিল্প স্হাপনের দাবিতে সভা করছে৷ ওই বৈঠকে থাকবেন প্রাক্তন শিল্পমন্ত্রী নিরুপম সেন৷ পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরের ডিভিসির নির্মীয়মাণ তাপবিদ্যুত্‍ কেন্দ্রের ওয়াটার করিডর ও অ্যাশপন্ড নিয়ে সমস্যার কারণেই এদিনের বৈঠক ছিল৷ 
 
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ডিভিসি ডাকবিভাগে পাঠানো চিঠিতে লিখেছে স্হানীয় মানুষদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই রেল করিডরের সমস্যা মিটেছে৷ কিন্ত্ত ওয়াটার করিডর ও অ্যাশপন্ডের সমস্যা মিটছে না৷ এর উপরে জেলা প্রশাসন লিখেছে রেল করিডরের সমস্যায় প্রশাসনের ভূমিকার কথা কি ডিভিসি ভুলে গেল? তবে চিঠির শেষে এই প্রকল্প নির্মাণে প্রশাসনের তরফে সবরকম সহযোগিতা করা হবে বলে জেলাশাসক ডিভিসি-কে জানিয়েছেন৷ ডিভিসির এই প্রকল্পের প্রধান তথা মুখ্য বাস্ত্তকার দেবাশিস মিত্র বলেন, "জেলাশাসকের চিঠি পেয়েছি৷ প্রশাসনের দিকেই তাকিয়ে রয়েছি আমরা৷" 
 
প্রশাসন এদিন প্রকল্প গড়ার বিষয়ে সবরকম সাহায্যের কথা বললেও বন্ধ হয়ে থাকা ওয়াটার করিডর ও অ্যাশপন্ডের কাজ কবে থেকে শুরু হবে তা জানাতে পারেনি৷ কারণ, ওয়াটার করিডরে আন্দোলনরত জমিহারারা প্রকল্পে চাকরির দাবিতেই অনড় রয়েছেন৷ পুজোর আগে ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে প্রশাসন ও ডিভিসি স্হায়ী চাকরি মিলবে না বলে জানিয়ে দিলেও তাঁরা এই সিান্তেই অনড়৷ তাই কীভাবে ডিভিসির কাজ শুরু করানো যাবে তা এদিনের বৈঠকে চূড়ান্ত হয়নি৷ রাজ্য প্রশাসনের দিকেই তাকিয়ে রয়েছে জেলা প্রশাসন৷ বাঁকুড়ার সাংসদ বাসুদেব আচারিয়া জানান, তাঁদের উদ্যোগেই এখানে প্রকল্পটি এসেছিল৷  তাই প্রকল্পটি যাতে এখানে হয় সেজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখবেন৷ 

পশ্চিমবঙ্গ

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে