Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২০ , ১৩ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০৯-২০১৯

সাধারণ সম্পাদক পদে ত্রিমুখী লড়াই

সাধারণ সম্পাদক পদে ত্রিমুখী লড়াই

ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর- আওয়ামী লীগে আসন্ন কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক পদে দ্বিমুখী নয় ত্রিমুখী লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। সম্ভাব্য সাধারণ সম্পাদক পদে তৃণমূল পর্যায়ে ‍তিন জনের নাম উঠে এসেছে। সাধারণ সম্পদক পদে এখন পর্যন্ত লড়াইয়ে এগিয়ে আছেন দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এবং একাধিক নীতি নির্ধারকের সঙ্গে কথা বলে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের তো আছেনই। তার সঙ্গে প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এবং প্রথম যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এখনো সাধারণ সম্পাদকের দৌঁড়ে টিকে আছেন।

আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন পূর্ণকালীন সাধারণ সম্পাদক নিতে পারেন। আর এই বিবেচনায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে দ্বিতীয় মেয়াদে ওবায়দুল কাদেরের সাধারণ সম্পাদক থাকা। যদিও এখন পর্যন্ত তিনি ফেবারিট। পদ্মা সেতু, মেট্রো রেলের মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোর দায়িত্ব অন্য কাউকে দিয়ে পূর্ণকালীন সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হবে কিনা তা নিয়ে দলের মধ্যে নানা রকমের জল্পনা কল্পনা চলে এসেছে।

একটি সূত্র ইঙ্গিত দিয়েছে, শেষ পর্যন্ত ওবায়দুল কাদেরকে বিশেষ বিবেচনায় হয়তো সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ এবং মন্ত্রীত্ব দুটোই দেওয়া হতে পারে। এরপর সাধারণ সম্পাদকের পদটি পূর্ণকালীন করা হতে পারে।

আবার সাধারণ সম্পাদক পদে আব্দুর রাজ্জাককেও ভাবা হচ্ছে। তাকে এই পদে ভাবার মূল কারণ হলো ড. রাজ্জাক একজন বিনয়ী এবং দলের ভেতরে এবং বাইরে তার একটি ক্লিন ইমেজ রয়েছে। এর পাশাপাশি মৃতভাষী হিসেবে তার একটি সুনাম রয়েছে। সৈয়দ আশরাফ যেমন অল্প কথা বলতেন, তার প্রত্যেকটা কথাই ছিল অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং ওজনদার। তেমনি আব্দুর রাজ্জাকের কথাও সাধারণ মানুষের কাছে গুরুত্বপূর্ণ এবং মূল্যবান হিসেবেই বিবেচনা করা হচ্ছে। ড. আব্দুর রাজ্জাক দলের সাধারণ সম্পাদক পদ পেলে মন্ত্রীত্ব পদ ছাড়তে আগ্রহী বলেও তাঁর ঘনিষ্ঠজনদের জানিয়েছেন।

সাধারণ সম্পাদক পদে তৃতীয় যে নামটি এসেছে সেটি হচ্ছে মাহবুব আলম হানিফ। মাহবুব আলম হানিফ এমপি কিন্তু মন্ত্রী নন এবং সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেলে তিনি দীর্ঘদিন পর আওয়ামীলীগের একজন পূর্ণকালীন সাধারণ সম্পাদক হবেন। মাহবুবুল আলম হানিফ দুই মেয়াদে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এবার তাঁর পদন্নতি অবধারিত। তিনি যদি সাধারণ সম্পাদক নাও হন তাহলে তিনি আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্যের অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন বলে আওয়ামীলীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে।

শেষ পর্যন্ত এই ত্রিমুখী লড়াইয়ে কে বিজয়ী হবেন তা চূড়ান্ত হবে ২০, ২১ ডিসেম্বর আওয়ামীলীগের কাউন্সিলে। আওয়ামীলীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পদটি চূড়ান্ত করবেন আওয়ামীলীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেশের রাজনীতি, সরকার পরিচালনার কৌশল এবং অন্যান্য পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনা করে এই পদের নিয়োগ চূড়ান্ত করবেন।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

আর/০৮:১৪/১০ ডিসেম্বর

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে