Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০২০ , ৪ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০৩-২০১৯

নিরাপদ ও পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার

নিরাপদ ও পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার

ঢাকা, ০৩ ডিসেম্বর - কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। সরকার সবার জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য নিশ্চিত করতে কাজ করছে।

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে দুই দিনব্যাপী ‘ফিড দ্য ফিউচার ইনোভেশন ল্যাব ফর নিউট্রিশন সাইন্টিফিক সিম্পোজিয়াম অ্যান্ড টেকনোলজি এক্সিবিশন, এগ্রিকালচার টু নিউট্রিশন পাথওয়েজ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, নিবার্চনী ইশতেহারে অঙ্গীকার রয়েছে, নিরাপদ খাদ্য সম্পর্কে এসডিজিতে যে অভিষ্ট লক্ষ্য দেয়া আছে তা অবশ্যই সরকার বাস্তবায়ন করবে। যেহেতু ইতোপূর্বে এমডিজির প্রায় সবগুলো ধাপ অর্জন করেছে বাংলাদেশ, এখন এসডিজিও-এর অভিষ্ট অর্জনে কাজ করছে সরকার। উন্নত বাংলাদেশের যোগ্য নাগরিক গড়তে নিরাপদ খাদ্যের কোনো বিকল্প নেই।

মন্ত্রী বলেন, সুস্বাস্থ্য ও সুন্দর জীবনযাপনে ‘পুষ্টি’ হলো কেন্দ্রবিন্দু। পুষ্টি হলো শরীরে খাদ্যের চাহিদা অনুযায়ী খাদ্যগ্রহণ। বর্তমান ও আগামী সফল প্রজন্মের জন্য এটি হলো অস্তিত্বের দিশা। পর্যাপ্ত পুষ্টি-সম্পন্ন মানুষ তুলনামূলকভাবে বেশি সৃজনশীল। আমাদের কৃষি খাতে যথেষ্ট পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য উৎপাদন করছে, কিন্তু মানুষের যে আয় তা দিয়ে পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করতে পারে না।

তিনি বলেন, আয় বৃদ্ধি করতে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। যেহেতু কৃষিতে কর্মসংস্থান কমে যাচ্ছে, কৃষি যান্ত্রিকরণের ফলে। এখন কৃষি প্রক্রিয়াজাত ও শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির করে মানুষের আয় বৃদ্ধি করতে হবে। আয় বৃদ্ধি পেলে তখন সে পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করবে। সরকার দেশ থেকে সম্পূর্ণভাবে অপুষ্টি রোধে অঙ্গীকারবদ্ধ।

অপুষ্টি রোধে রাজনৈতিক অঙ্গীকার সবচেয়ে বেশি কার্যকরী বলে জানান অনুষ্ঠানের আলোচকরা। তারা বলেন, বর্তমান সরকার অপুষ্টি রোধে নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করায় এর ইতিবাচক প্রভাব দেখা যাচ্ছে। যেমন- ২০০৭ সালে খর্বাকার (পাঁচ বছরের নিচে) শিশু ছিল ৪৩ শতাংশ, ২০১৭-১৮ সালে তা কমে দাঁড়ায় ৩১ শতাংশে। স্বল্প ওজনের শিশু ৪১ শতাংশ থেকে কমে ২২ শতাংশ হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পিপিবি) ড. মো. রুহুল আমিন তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুল মুঈদ, জাতীয় পুষ্টি কাউন্সিলের মহাপরিচালক ডা. মো. শাহ নেওয়াজ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফিড দ্য ফিউচার ইনোভেশন ল্যাব ফর নিউট্রেশনের পরিচালক ড.প্যাট্রিক ওয়েব। এছাড়া অনুষ্ঠানে কি-নোট উপস্থাপন করেন আসিডিডিআর’বি-এর সিনিয়র পরিচালক ডা. তাহমিদ আহমেদ।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ০৩ ডিসেম্বর

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে