Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-২০-২০১৯

আগামী বছর গ্রামে ডেঙ্গু ছড়াবে না, এই নিশ্চয়তা নেই

আগামী বছর গ্রামে ডেঙ্গু ছড়াবে না, এই নিশ্চয়তা নেই

ঢাকা, ২০ নভেম্বর - আগামী বছর গ্রামে ডেঙ্গু মশা ছড়িয়ে যাবে না, এই নিশ্চিয়তা দেয়া যাবে না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, তবে ডেঙ্গু যেন গ্রামেও ছড়িয়ে না পড়ে এ জন্য সব ধরনের ব্যাবস্থা নিচ্ছে সরকার।

বুধবার (২০ নভেম্বর) স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের মুজিব বর্ষকে (২০২০) সামনে রেখে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে ‘পরিচ্ছন্ন গ্রাম-পরিচ্ছন্ন শহর’ কর্মসূচি বাস্তবায়নে কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নের উদ্দেশ্যে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, এবার ঢাকা শহরে এডিস মশার প্রাদুর্ভাব দেখেছি। গ্রামে যে আগামীবার তা ছড়িয়ে যাবে না, তার নিশ্চয়তা দেয়া যায় না। কারণ, গ্রাম তো সেই গ্রাম নেই, প্রায় ঘরই এখন বিল্ডিং হয়ে গেছে, সেখানে ছাদে পানি জমবেই। এডিস মশা এবার শহর থেকে গ্রামে মাইগ্রেট করেছে, এবার কম-বেশি সব জায়গায় ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখেছি।

মন্ত্রী বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে ১৯৯৯ সালে ডেঙ্গুতে এক হাজার লোক মারা যায়, ১০ লাখের বেশি এফেক্টেড হয়। সেখানে আমাদের ডেনসিটি হাই। তাদের ডেনসিটি লো। দেখা যায়, সেখানে ইনফেক্টেড মশা আরেক জায়গায় গিয়ে মানুষকে কামড়াতে গিয়ে মারাই যায়। কারণ, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এডিস মশা ডিম পারতে না পারলে বেঁচে থাকা কষ্টকর। আমেরিকা প্রতিদিন এসব নিয়ে রিসার্চ করে।সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত দেশে ১৫ জন ডেঙ্গুতে মারা গেছে। সমস্যা পর্যায়ক্রমে হয়েছে, হতাশার কারণ নেই। আমরা অনেক দূর এগিয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের শরীরে ১০০ ট্রিলিয়ন ব্যাকটেরিয়া আছে। এর মধ্যে ৯৯ ভাগ আপনার জন্য প্রয়োজন। আর ১ ভাগ ক্ষতিকর। এই ব্যাকটেরিয়ার মধ্যে যা প্রোটেকটিভ এজেন্ট হিসেবে কাজ করছে, তাকে যদি মেরে ফেলেন তাহলে কি বেঁচে থাকার উপায় আছে? সেভাবে মশা মারতে গিয়ে মানুষ মেরে ফেলা যাবে না। যেগুলো মশাকে ধ্বংস করবে, সেগুলো আমরা মেরে ফেলছি।

তাজুল ইসলাম বলেন, মুজিব বর্ষকে (২০২০) সামনে রেখে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়ে তােলার লক্ষ্যে পরিচ্ছন্ন গ্রাম-পরিচ্ছন্ন শহর’কার্যক্রম অবিলম্বে শুরু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী অনুশাসন প্রদান করেছেন। উন্নত দেশগুলোর ন্যায় বাংলাদেশে তৃণমূল পর্যায় হতে কেন্দ্রীয় পর্যায় পর্যন্ত সর্বত্র সার্বিক পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে হবে। ব্যক্তি, পরিবার হতে প্রাতিষ্ঠানিক সবক্ষেত্রে শৃঙ্খলা, পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি নিশ্চিত করা প্রয়ােজন।

তিনি বলেন, ভিশন ২০২১, ২০৪১, এসডিজি অর্জন ও উন্নয়নের মানদণ্ড হিসেবে পরিচ্ছন্ন জনপদ গড়ে তােলা সর্বসাধারণের মধ্যে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার দৈনন্দিন অভ্যাস গড়ে তােলা, জনসাধারণকে এ বিষয়ে সচেতন করা মশাবাহিত, পানিবাহিত, বায়ুবাহিত ও মৌসুমি রােগ-বালাই হতে পরিত্রাণ পাওয়া, প্লাস্টিক, পলিথিনের ব্যবহার রােধ, সীমিতকরণ এবং জলাবদ্ধতা দূরীকরণ, নতুন প্রজন্মকে উন্নত-পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করা ও তাদের মধ্যে জীবনব্যাপী পরিচ্ছন্নতার বােধ ও অভ্যস্ততা গড়ে তােলা আমাদের লক্ষ্য।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ২০ নভেম্বর

জাতীয়

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে