Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ২৭ জানুয়ারি, ২০২০ , ১৪ মাঘ ১৪২৬

গড় রেটিং: 2.6/5 (40 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ১০-২৯-২০১৩

শতবর্ষী মানুষদের দীর্ঘ জীবনের ৭টি গোপন রহস্য!


শতবর্ষী মানুষদের দীর্ঘ জীবনের ৭টি গোপন রহস্য!
বয়স শতকের কোঠায় পৌঁছে গেলেই কি বিছানায় পড়ে থাকতে হবে? মোটেই না! কি করে ভালো থাকেন এই শতবর্ষী মানুষেরা? “নিজেকে বুড়ো না ভাবাটাই প্রয়োজনীয়”, বলেন এ বইয়ে ১০১ বছর বয়সী মারভিন নিউডসন। তাদের অনেকেই এখনও কর্মক্ষেত্রে সক্রিয় এবং আধুনিক পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে চলছেন তারা। সেই বইতে দেওয়া তাদের পরামর্শ অনুযায়ী দেখে নিন কি করলে দীর্ঘায়িত হবে আপনার আয়ু।
 
১) ইতিবাচক মনোভাবঃ
অ্যারিজোনার ট্রুডি ফ্লেচার সারা জীবন ধরে শিল্পচর্চা করে এসেছেন। এমনকি ১০০ বছর বয়সেও তার সৃজনশীলতায় ভাঁটা পড়েনি একটুও। এমনকি শতবর্ষী এই নারীর চিত্রকলার প্রদর্শনীও হয়েছে যাতে তিনি নতুন আঙ্গিকে উপস্থাপন করেন তার শিল্প। শিল্পচর্চা এভাবে ধরে রাখার পেছনে কারণ হিসেবে তিনি বলেন,”মনোভাব, মনোভাব, মনোভাব।” অন্যান্য শতবর্ষীরাও স্বীকার করেন যে ইতিবাচক মনোভাব জীবনের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।
 
২) খাদ্যভ্যাসঃ
খাদ্যভ্যাসের ব্যাপারে এমন একটি উপদেশ দেওয়া হয়েছে যা আপনি কস্মিকালেও শোনেন নি। তা হল, “১৯৬০ সালের মতো খাওয়া দাওয়া করো।” এই শতবর্ষী মানুষেরা বর্তমান কালের খাদ্যভাস নিয়ে সমালোচনা করেন। তাদের বেশি ভাগই বলেন পুষ্টিকর এবং পরিমিত পরিমাণে খাদ্যগ্রহন করতে। এদের মাঝে মাত্র ২০ শতাংশ মানুষ পরিকল্পিত ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ করতেন। কেউ কেউ ছিলেন নিরামিষভোজী। ফ্লোরিডার বাসিন্দা, ১০৭ বছর বয়সী লিলিয়ান কক্স স্বীকার করেন যে ৫০ বছর বয়সের দিকে তার ওজন বেশ বেড়ে গিয়েছিল। কিন্তু দৃঢ় মনোবল থাকায় তিনি এই ওজন কমিয়ে আনতে সক্ষম হন পরিমিত খাদ্যগ্রহণের মাধ্যমে।

৩) ব্যায়ামঃ
১০১ বছর বয়সী লুইস কোল্ডার বলেন, “Move it or lose it”। তিনি ঘুম থেকে উঠে কমপক্ষে ৩০ মিনিট হালকা ব্যায়াম না করে শোবার ঘর থেকে বের হন না। দিনে কমপক্ষে এক মাইল হাঁটেন। নিজের শরীরের পাশাপাশি মানসিক শক্তিরও চর্চা করতে হবে। ১০২ বছর বয়সী জো মেইজার ৭০ বছর বয়সে গলফ খেলা শুরু করেন এবং প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া শুরু করেন। ১০০ বছর বয়সে একটি স্বর্ণ পদক লাভ করেন তিনি।
 
৪) বিশ্বাসঃ
বর্ষীয়ান এই মানুষদের প্রায় প্রত্যেকে বলেন, বিশ্বাসের জোরে এতদুর আসতে পেরেছেন তারা। তাদের মতে, এতদিন তাদের বাঁচিয়ে রাখার পেছনে নিশ্চয়ই ঈশ্বরের কোনও উদ্দেশ্য রয়েছে।
 
৫) শুদ্ধ জীবনঃ
১০১ বছর বয়সী হ্যারি অ্যাডলার বলেন, “সব রকমের ঝামেলা থেকে দূরে থাকো।” তাদের মতে, নিজের বিবেক অনুসরণ করে সঠিক কাজটা করতে হবে। এদের প্রায় ৭৫ ভাগ জীবনেও ধূমপান করেননি। বাকিরা ৪০ থেক ৭০ বছর বয়সের মাঝে ধূমপান বর্জন করেন। এদের কেউ কেউ কখনোই মদ্যপান করেননি এবং যারা করেন তারাও এ ব্যাপারে সংযমী।
 
 

৬) পারিবারিক বন্ধনঃ
বর্ষীয়ান এই মানুষদের সবার কাছেই পরিবারের গুরুত্ব অনেক। নিজ নিজ পরিবারের কর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে ভালবাসেন তারা। পরবর্তী প্রজন্মকে বেড়ে উঠতে দেখাকে তারা উপভোগ করেন।
 
৭) জিনগত বৈশিষ্ট্যঃ
সুষ্ঠু জীবনযাত্রার পাশাপাশি বংশগতিও বেশ বড় ভূমিকা রাখে মানুষের আয়ু নির্ধারণে। এ কারণে কোনও কোনও পরিবারের মানুষ বেশ দীর্ঘ জীবনের অধিকারী আবার অনেকে হরেক রকম নিয়ম মানার পরেও শতবর্ষের মাইলফলক ছুঁতে পারেন না।
 
যত রকম নিয়মই মেনে চলা লাগুক না কেন, শতবর্ষী এসব মানুষ একবাক্যে স্বীকার করেন যে তাদের এই জীবন সার্থক। ব্যাপারটা অনেকাংশেই পাহাড়ে চড়ার মতো। কষ্ট করে শীর্ষে পৌঁছে যাবার পরেই আপনি দেখতে পাবেন অতুলনীয় দৃশ্য।
 
 

সচেতনতা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে