Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, সোমবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-০৬-২০১৯

‘দুই সন্তান নীতিতে বিশ্বাস করে না ইসলাম’

‘দুই সন্তান নীতিতে বিশ্বাস করে না ইসলাম’

নয়া দিল্লী, ০৬ নভেম্বর- বদরুদ্দিন আজমল। এক বক্তব্যে নতুন করে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছেন। তিনি মুসলিমদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা করেছেন, ‘যত ইচ্ছা সন্তানের জন্ম দিন’। ২০১৬ সালে বসুদেবানন্দ সরস্বতী নামের হিন্দু ধর্মীয় এক নেতাও বলেছিলেন, ‘প্রত্যেক হিন্দু পরিবারের ১০টি করে সন্তান গ্রহণ করা উচিত।’

আসামে বিজেপি সরকারের দুই সন্তান গ্রহণের নীতির প্রতিবাদে অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ)-এর প্রধান বদরুদ্দিন আজমল এ ঘোষণা দেন।

আসামের বিজেপি সরকার এক ঘোষণায় বলেছে, ‘দুটির বেশি সন্তান হলে তাদের কোনো সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দেয়া হবে না। যা ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হবে।

আসাম সরকারের এই ঘোষণার প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ) প্রধান বদরুদ্দিন আজমল। তিনি অভিযোগ করে বলেছেন, ‘আসামে ধর্মের নামে মেরুকরণের রাজনীতি অব্যাহত।’

তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের সরকারি চাকরি পাওয়ার আশা নেই। সে কারণে সরকার ঘোষিত মুসলিমদের দুই সন্তান গ্রহণের নীতি মেনে চলা অর্থহীন।

বদরুদ্দিন আজমলের বক্তব্যের এক বার্তায় নতুন করে বিতর্কের ঝড় বইছে। যদিও ইসলামে এ কথাটি পুরোপুরি সমর্থন করেন। তিনি বলেছেন, ‘দুই সন্তান গ্রহণের নীতিতে বিশ্বাস করে না ইসলাম। এভাবে পৃথিবীর আলো দেখা থেকে কাউকে রোখা যায় না।’ মুসলিম ধর্ম মতেও গর্ভরোধ করা অবৈধ ও হারাম।

আসামের মুসলিমদের উদ্দেশ্য করে বদরুদ্দিন আজমল বলেন-
‘সরকার এমনিতেই আমাদের সরকারি চাকরি দিচ্ছে না। আমাদেরও কোনো প্রত্যাশা নেই। তাই আমাদের লোকজনকে বলতে চাই, যত ইচ্ছা সন্তান জন্ম দিন। তাদের শিক্ষিত করে তুলুন। যাতে নিজেরাই নিজেদের কর্মসংস্থান করতে পারে। ব্যবসা করতে পারে। নিজেদের সংস্থা খুলতে পারে অথবা খুলতে পারে দোকান। আর সেসব প্রতিষ্ঠানে হিন্দু ভাই-বোনদেরও চাকরি দিতে পারে তারা।‘

এদিকে বদরুদ্দিন আজমলের এ মন্তব্যের সমালোচনা করতে গিয়ে আরেক বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্রনারায়ণ সিংহ।

উত্তরপ্রদেশের বালিয়ার বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্রনারায়ণ সিংহ বলেছেন, ভারতে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ আইন চালু না হলে, আগামী ৫০ বছরে ভারতে হিন্দুত্ব নিরাপদ থাকবে না। হিন্দুত্বের অস্তিত্ব সঙ্কট দেখা দেবে।’

উল্লেখ্য যে, ২০১৬ সালে ভারত সরকারের দুই সন্তান গ্রহণ নীতির বিরোধিতা করেছেন আরএসএস সমর্থিত নেতারা। তারা হিন্দুদের সংখ্যা বাড়াতে বেশি বেশি সন্তান গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছিলেন। সে সময় আরআরএস এ নীতির প্রতিবাদে এক জনসভার আয়োজন করে।

জনসভায় বসুদেবানন্দ সরস্বতী নামের এক হিন্দুনেতা বলেছিলেন, ‘প্রত্যেক হিন্দু পরিবারের ১০টি করে সন্তান গ্রহণ করা উচিত। দুই সন্তান গ্রহণের নীতি বন্ধ করা উচিত। এর চেয়ে বরং দশটি করে সন্তান নিন। সন্তানদের নিয়ে আপনাদের চিন্তা করতে হবে না। ভগবানই তাদের দেখবেন।’

অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের চেয়ে হিন্দুদের সংখ্যা আরো বাড়ানো উচিত। আর এ কারণেই হিন্দুদের বেশি বেশি সন্তান গ্রহণ করা উচিত বলে উল্লেখ করেছিলেন ওই ধর্মীয় নেতা।

আর/০৮:১৪/০৬ নভেম্বর

দক্ষিণ এশিয়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে