Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ , ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১১-০৪-২০১৯

মণিপুরের স্বাধীনতা ঘোষণা কতোটুকু যৌক্তিক?

হাসান ইবনে হামিদ


মণিপুরের স্বাধীনতা ঘোষণা কতোটুকু যৌক্তিক?

মণিপুরের দুইজন নেতা লন্ডনে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন। এটি বর্তমান সময়ের বহুল আলোচিত সংবাদ। গত ২৯ অক্টোবর অনেকটা আকস্মিকভাবে মণিপুর রাজ্যের স্বাধীনতাকামীদের পক্ষ থেকে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন ইয়ামবিন বিরেন এবং নরেংবাম সমরজিত। তারা নিজেদের স্বাধীন ঘোষণা দিয়ে ইতোমধ্যে লন্ডনে অন্তর্বর্তীকালীন প্রবাসী সরকারও গঠন করে ফেলেছেন। এই ঘটনা নিয়ে বিশ্বে মোটামুটি একটু হইচই শুরু হয়েছে। হওয়াটাও স্বাভাবিক, কারণ স্বাধীনতার দাবি যখন কেউ তোলে তখন দুটো পক্ষ তৈরি হয়ে যায়। কোনো পক্ষ স্বাধীনতা আন্দোলন বলেন আর অন্য পক্ষ বলেন বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন। কিন্তু একটি আন্দোলনকে স্বাধীনতার আন্দোলন বলতে গেলে বেশ কিছু ধাপ অতিক্রম করতে হয়। নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে আন্দোলন সংগ্রাম পরিচালনা না করে হঠাৎ করে স্বাধীনতার ঘোষণা দিলেই তাকে স্বাধীনতার আন্দোলন বলা যায় না, বলাটাও অযৌক্তিক।

মণিপুরের এই ঘোষণাকে কি বলা হবে? স্বাধীনতার আন্দোলন নাকি বিচ্ছিন্নতাবাদী! ঐক্যের বিপরীতে বিচ্ছিন্নতাবাদ কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়। কেননা এই স্বাধীনতা ঘোষণার আগে কিছু নৈতিক ভিত্তি থাকতে হয়। ভারত থেকে মণিপুরের স্বাধীনতা ঘোষণা তখনই গ্রহণযোগ্য হতে পারে যদি তাদের বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য যৌক্তিক কারণ থাকে। স্বাধীনতা আন্দোলন বা স্বাধীন হবার পেছনে যে যৌক্তিক কারণগুলো থাকে তা একটু উল্লেখ করছি।
প্রথমত, যদি ভারত তাদের জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে এমন ঘটনা ঘটে তবে সেই আন্দোলনের যৌক্তিকতা থাকে। কিন্তু ইতিহাস আসলে কী বলছে! মণিপুরকে ভারত দখল করে নিয়েছে এমন স্বাক্ষ্য অন্তত ইতিহাস দেয় না। মণিপুর ভারতের সাথে একীভূত ছিল না ইংরেজ আমলে। ইংরেজদের আনুগত্য ও কর দেয়ার মাধ্যমে তাদের রাজা তাদের আলাদাভাবে শাসন করতো। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় মণিপুরের রাজা বার্মার আক্রমণের ভয়ে ইংরেজদের সাহায্য চায়। সে সুযোগে ব্রিটিশরা তাদের সরাসরি শাসন করতে শুরু করে। ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে যেভাবে নবাব বা জমিদার ছিল তাদের রাজার মর্যাদাও তেমন ছিল। ভারত যখন ১৯৪৭ সালে স্বাধীন হয় তখনও মণিপুর ভারতের সাথে একীভূত হয়নি। ভারতের স্বাধীনতার দুই বছর পর ১৯৪৯ সালে দেশটির অংশ হয় সাবেক ব্রিটেন শাসিত মণিপুর। তখন থেকেই সেখানকার স্বাধীনতাকামীরা ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে আসছেন এবং সহিংস আন্দোলন চালাচ্ছেন। তবে এ অংশ মণিপুরের অধিকাংশ মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে না। ১৯৪৭ সালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে বল্লভভাই প্যাটেলের অন্যতম দায়িত্ব ছিল ব্রিটিশ ভারত, প্রদেশ এবং দেশীয় রাজ্যসমূহকে নিয়ে অখণ্ড ভারত নির্মাণ। তারই কূটনীতিক প্রচেষ্টায় রাজ্যটির সর্বশেষ শাসক বোধচন্দ্র সিংহ ভারতের সাথে যুক্ত হয়েছেন। এখানে মণিপুরের ইতিহাস বলছে ভারত জোরপূর্বকভাবে এই অঞ্চল দখলে নেয়নি বরং চুক্তির মাধ্যমে স্বেচ্ছায় তারা এসেছেন। তাই এখানে কোনো ক্ষুদ্র গোষ্ঠী যদি স্বাধীনতার আন্দোলন তুলে তবে অবশ্যই বৃহৎ জনগোষ্ঠীকে তাদের ছায়াতলে আনতে হবে। অন্যথায় আন্দোলনকে কখনো স্বাধীনতার আন্দোলন বলা যাবে না।

দ্বিতীয়ত, ভারতের অন্তর্ভুক্ত হবার পরেও যদি মণিপুরবাসীদের ভোটাধিকারসহ অন্যান্য মৌলিক অধিকার সংরক্ষিত না থাকে তবে এই আন্দোলন গ্রহণযোগ্য হতে পারে। কিন্তু মণিপুরবাসীদের ক্ষেত্রে এরকম আজ পর্যন্ত শোনা যায়নি। ভারত সরকার মণিপুরবাসীদের জন্য ভারতের সংবিধান অনুযায়ী মৌলিক অধিকার রক্ষা করেছে। মণিপুরবাসীরা নিজেদের ইচ্ছা অনুযায়ী তার প্রার্থীকে ভোট দেন। ২০১৭ সালের নির্বাচনেও মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মনীপুরবাসী নির্বাচিত করেছেন ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী এন বিরেন সিংকে। আর রাজ্যপাল হিসেবে আসেন নাজমা হেপতুল্লা। যারা মণিপুরে স্বাধীনতার কথা বলে সরকার গঠনও করে ফেলেছেন তারা কখনো নির্বাচনে দাঁড়ানো তো দূরের কথা, কোথাও কোনো জায়গায় এক হাজার ভোট পাওয়ার নজিরও নেই। অথচ স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে দিয়েছেন। এটা একইসাথে অযৌক্তিক এবং হাস্যকর!

তৃতীয়ত, যদি মণিপুরবাসী ধর্ম, বর্ণ, ভাষা, সংস্কৃতি ও জাতি বিদ্বেষের মাধ্যমে শোষণ বঞ্চনার শিকার হয় তখন এই বিচ্ছিন্নতাবাদকে আন্দোলন হিসেবে নৈতিক ভিত্তির উপর দাঁড় করানো যায়। কিন্তু এক্ষেত্রে মণিপুরে আসলে কি তেমন কিছু আজ নাগাদ হয়েছে? যেমনটা একাত্তর পূর্বে আজকের বাংলাদেশের ক্ষেত্রে হয়েছিল। ১৯৪৭ সালের দেশভাগের পর শুধুমাত্র ভিন্ন ভাষার কারণে নানা বঞ্চনার শিকার হতে হয় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানকে। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী আমাদের ভাষার অধিকার কেড়ে নিতে চায় এবং আমরা এর প্রতিবাদ করি। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি এর চূড়ান্ত রূপটি দেখে গোটা বিশ্ব। ভাষার জন্য লড়াই করে প্রাণ দেন সালাম, বরকত, রফিক জব্বাররা। ভাষা নিয়ে এমন কিছু যেমন কখনো শোনা যায়নি আবার মণিপুরবাসী নিজেদের ধর্ম পালনে বাধা আসছে এই ধরণের সংবাদ আজ নাগাদ আমরা কেউ শুনিনি। বিভিন্ন ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী সেখানে বাস করে, তাদের সংস্কৃতিও ভিন্ন। আর ভারত সরকার এই সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র্য নষ্ট হতে কখনোই দেয় না। কেননা ভারত নিজেদের গর্বের জায়গা বলে মনে করে এই বৈচিত্রতাকে। গোটা পৃথিবীর কাছে অসংখ্য ভাষা ও সংস্কৃতির ধারক হিসেবে ভারত নিজেকে পরিচয় করিয়ে দিতেই বেশি স্বাচ্ছন্দবোধ করে। তাই এই সংস্কৃতিতে হাত দেয়া ভারতের নীতিবিরুদ্ধ এবং সংবিধানবিরোধী কাজ।

চতুর্থত, যদি তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পক্ষে থাকে। কিন্তু আজ পর্যন্ত এমন নজির তারা স্থাপন করতে পারেনি। স্বাধীনতার আন্দোলন বলার মতো কার্যক্রম কারো চোখেও পড়েনি। আবারো বলতে হয় বাংলাদেশের কথা। নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ সর্বোচ্চ আসনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠনের পথে এগিয়ে যায়। কিন্তু পাকিস্তান সামরিক সরকার ক্ষমতা হস্তান্তরে রাজি না হওয়ায় ভিন্ন পথে আন্দোলন যায় এবং স্বাধীনতার আন্দোলনে রূপ নেয়। দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ বাঙালির মুক্তির সনদ ছয় দফার পক্ষে ছিল। আর সেই প্রেক্ষাপটেই সংখ্যাগরিষ্ঠ জনতা তাদের ম্যান্ডেট দিয়ে স্বাধীনতার পক্ষে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু মণিপুরে আজ পর্যন্ত এমন দল বা নেতার অস্তিত্বই পাওয়া যায় না। এখন পর্যন্ত হাজার ভোট পাওয়া কোনো নেতার অস্তিত্বই পাওয়া যায়নি মণিপুরে। তাই দেশের বাইরে বসে জনসমর্থন ছাড়া কেউ যদি স্বাধীনতার ঘোষণা দেয় সেটা নিতান্তই বলার জন্য বলা। বাস্তবিক অর্থে এটা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের আন্দোলন হিসেবেই গ্রহণযোগ্য হবে। একে স্বাধীনতার আন্দোলন কখনোই বলা যাবে না।

অপরদিকে যে দুজন স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন তারা স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন, সেখানকার রাজা লেইশেম্বা সানাজাওবার পক্ষ থেকেই তারা এই ঘোষণা দিয়েছেন। মণিপুর রাজ্যের রাজনৈতিক সমস্যার সমাধানে মহারাজা তাদের ক্ষমতা প্রয়োগের অধিকার দিয়েছেন বলে একটি নথি দেখিয়েছেন তারা। কিন্তু রাজা লেইশেম্বা ইতোমধ্যে জানিয়েছেন তিনি স্বাধীনতার ব্যাপারে কিছুই জানেন না।

তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে জানান, লন্ডনে বসে ইয়ামবিন বিরেন এবং নরেংবাম সমরজিৎ নামের যেই দুইজন মণিপুর নিয়ে বিতর্কিত দাবি করেছেন তাদের অনুরোধে কিছু কাগজে স্বাক্ষর করেছিলেন তিনি। লন্ডনে কিছু ঐতিহাসিক দলিল ও ছবি নিয়ে গবেষণার জন্য ওই কাগজে রাজার স্বাক্ষর দরকার বলে জানিয়ে তার থেকে সই নেয়া হয়েছিল বলে দাবি করেছেন রাজা লেইশেম্বা। এই দুজনকে রাষ্ট্র ও সংহতিবিরোধী উল্লেখ করে তিনি উপযুক্ত শাস্তিরও দাবি জানান।

ভারতের সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড পিস স্ট্যাডিজের তথ্যানুযায়ী, মনিপুরে বিদ্রোহীরা ১৯৬৪ সালের ২৪ নভেম্বর ইউনাইটেড ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট (ইউএনএলএফ) গঠন করেন। বর্তমানে সন্ত্রাসবাদের সাথে জড়িত থেকে বিভিন্ন অপকর্মের দায়ে এই সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ করেছে ভারত সরকার। এরপর একই দাবিতে ১৯৭৮ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর সৃষ্টি হয় পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ), ১৯৭৭ সালের ৯ অক্টোবর পিপলস রেভ্যুলিউশনারি পার্টি অব ক্যাংলেইপাক (পিআরইপিএক), ১৯৮০ সালের এপ্রিলে ক্যাংলেইপাক কমিউনিস্ট পার্টির (কেসিপি) সূচনা হয়। জনভিত্তি না থাকা সত্ত্বেও তারা প্রত্যেকেই স্বাধীন ও সার্বভৌম মনিপুরের দাবির কথা বলে পুরো রাজ্যে সন্ত্রাস সৃষ্টি করতে চাইছে। এমন বিদ্রোহের কারণেই ১৯৮০ সালে ভারত সরকার মনিপুরকে ’সমস্যাপ্রবণ এলাকা’ বলে ঘোষণা করে যা এখনও বলবৎ আছে।

স্বাধীনতার আন্দোলন করার জন্য কোনো যৌক্তিক কারণ মণিপুরে বিদ্যমান না থাকা সত্ত্বেও সেখানে স্বাধীনতা ঘোষণা আসা অযৌক্তিক। ভারত সরকার এই বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠনকে শক্ত হাতে দমন করতে চাইছে। সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি কমাতে কিছু কার্যকর পদক্ষেপ ভারত সরকার মণিপুরে নিয়েছে। আর তাই বেশ আগে থেকে মণিপুরে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। মণিপুরে এখন সাধারণ মানুষের যে সমস্যা সেটা হলো তাদের এলাকায় মাঝে মধ্যে সেনা উপস্থিতি দেখা যায়। আর এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর কারণেই। তাই বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনকে দমন করতে হলে ভারত সরকার ও মণিপুরবাসীকে একত্রে থেকেই সমস্যার সমাধান করতে হবে। সন্ত্রাসবাদের মাধ্যমে নিরীহ মানুষকে বলি দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করা যায়না। এটা যত দ্রুত এই বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের গুটিকয়েক নেতা বুঝবে ততো দ্রুতই শান্তি বিরাজ করবে সর্বত্র।

লেখক : রাজনৈতিক বিশ্লেষক

আর/০৮:১৪/০৫ নভেম্বর

অভিমত/মতামত

আরও লেখা

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে