Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ , ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১০-২৫-২০১৯

বগুড়ায় ভুল অপারেশনে শিশুর মৃত্যু, দুই ডাক্তার আটক

বগুড়ায় ভুল অপারেশনে শিশুর মৃত্যু, দুই ডাক্তার আটক

বগুড়া, ২৫ অক্টোবর - বগুড়ায় আবারও ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় তাওহিদ হাসান (৯) নামে এক শিশুর মৃত্যুর হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে শহরের ঠনঠনিয়া এলাকার ডক্টরস ক্লিনিক-(ইউনিট-২) নামে একটি ক্লিনিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জনতার তোপের মুখে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভিগীয় প্রধান (নাক কান ও গলা ) ডা. সাঈদুজ্জামান ও ডা. নিতাই চন্দ্রকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহত তাওহিদ হাসান সারিয়াকান্দি উপজেলার নারচী গ্রামের ফিরোজুল ইসলামের ছেলে। সে শাজাহানপুর এলাকার শাহীন একাডেমির তৃতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থী । সাইফুল ইসলাম ছেলের লেখাপড়ার জন্য পরিবার নিয়ে বর্তমানে শাজাহানপুর উপজেলার মাঝিড়া এলাকায় বসবাস করছিলেন।

পুলিশ জানায়, টনসিলজনিত অপারেশনের জন্য তাওহিদ হাসানকে বৃহস্পতিবার বিকেলে তার বাবা শহরের ঠনঠনিয়া এলাকার ডক্টরস ইউনিট-২ নামে বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করান। রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাওহিদ হাসানকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ডা. সাঈদুজ্জামান শিশু তাওহিদ হাসানের টনসিল অপারেশন করেন। তারপর থেকে শিশুটির আর জ্ঞান ফিরেনি। অপারেশন থিয়েটারেই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

নিহত তাওহিদ হাসানের বাবা ফিরোজুল ইসলাম অভিযোগ করেন, অপারেশনের পর মিথ্যা কথা বলে তাদের বাচ্চাকে অতিরিক্ত সময় অপারেশন থিয়েটারে রাখার পর তাকে একটি আলাদা রুমে রাখা হয়। এ সময় সেখানে কাউকে যেতে দেয়া হয়নি। তাদের জানানো হয় এখন সেখানে যাওয়া যাবে না। এ সময় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের গোপনীয়তা এবং শিশুটির বিষয়ে কিছু জানতে না দেয়ার কারণে তাদের মধ্যে উৎকণ্ঠা বেড়ে যায়। তখন তাদের বলা হয় শিশুটি ভালো আছে। পরে জোর করে ওই রুমে ঢুকে শিশুটির শরীর বরফের মত হিম শীতল অবস্থায় পাওয়া যায়। তারা বুঝতে পারেন অনেক আগেই ছেলে মারা গেছে।

সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, তাদের দাবিকৃত টাকা আগাম পরিশোধের পরও আমার তরতাজা বাচ্চাকে মেরে ফেলা হয়েছে। এমন কি ছেলের মৃত্যুর পরেও তার বিষয়টি গোপন করে তাদের মিথ্যা কথা বলা হয়েছে।

ঘটনার পর স্বজনদের কান্না ও চিৎকার চেঁচামেচিতে সেখানে শত শত লোক ভিড় করে এবং ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের ওপর চড়াও হয়। খবর পেয়ে বগুড়া সদর থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় জনতার রোষের মুখে পুলিশ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ও বিভিগীয় প্রধান (নাক কান ও গলা ) ডা. সাঈদুজ্জামান ও ডা. নিতাই চন্দ্রকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

বগুড়া সদর থানা পুলিশের ইন্সপেক্টর (তদন্ত) রেজাউল ইসলাম রেজা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান , নিহতের পরিবারের পক্ষে অভিযোগ করা হলে আটকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে অভিযুক্ত ডা. সাঈদুজ্জামান বলেন, এনেসথেসিয়ার কারণে শিশুটির মৃত্যু হতে পারে।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের গত ৮ এপ্রিল একইভাবে শহরের একটি নাম স্বর্বস্ব ক্লিনিকে ডাক্তারের ভুল অপারেশনে হুমাইরা নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ওই সময় ক্লিনিকে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় বিক্ষুব্ধ জনতা। বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশের পর অনুমোদনবিহীন ক্লিনিকটি সিলগালা করে দেয়া হয় ।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ২৫ অক্টোবর

বগুড়া

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে